বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ইউটিউবকে রাশিয়ার ইন্টারনেট সেন্সরের নতুন করে অবরোধের হুমকি

Roscomnadzor suggests that the latest block may restrict some Russians' access to all of YouTube. Images mixed by Tetyana Lokot.

রসকমনাদজর ইঙ্গিত দিয়েছে, সম্প্রতি যে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে তাতে রাশিয়ানদের কেউ কেউ ইউটিউবের সবগুলো ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে বাঁধাগ্রস্ত হতে পারেন। টেটিয়ানা লকটের সম্পাদিত ছবি।

রুশ সরকারের একটি প্রচার মাধ্যম হচ্ছে রসকমনাদজর। এটি একটি ইন্টারনেট ওয়াচডগ। কপিরাইট আইন লঙ্ঘনের দায়ে ভিডিও হোস্টিং ওয়েব সাইট ইউটিউবকে রাশিয়ার ইন্টারনেটের কালো তালিকায় যোগ করা সম্পর্কে এটি একটি সরকারী সতর্কতা জারি করেছে। এই সময়ে ওয়েবসাইটটি বন্ধ হওয়ায় ব্যবহারকারীদের কেউ কেউ ইউটিউবে একেবারেই প্রবেশ করতে পারবেন না।

“চেরনোবিল” এবং “ফিজরুক” (“পিই শিক্ষক”) শিরোনামের দুইটি রাশিয়ান টেলিভিশন অনুষ্ঠানের অননুমোদিত কপি তৈরির কারণে ভিডিও হোস্টিং ওয়েবসাইটটি রাশিয়ার সেন্সরের কবলে পড়েছে। টেলিভিশন অনুষ্ঠান দুইটি ওয়েবসাইটে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। মস্কো শহরের আদালত গত ৭ এপ্রিল তারিখে প্রথমে রুল জারি করে রায় দিয়েছে যে অনুষ্ঠান দুইটির পর্বগুলো কপিরাইট আইন লঙ্ঘন করে ইউটিউবে আপলোড করা হয়েছে এবং তা অপসারণ করতে হবে। ইউটিউব সাথে সাথেই রায় মেনে নিয়েছে। তবে রসকমনাদজর বলেছে, অনুষ্ঠানগুলোর পর্বের নতুন বেশ কিছু কপি রায়ের পর থেকে আপলোড করা হয়েছে এবং ২০ জুলাই তারিখে আপলোড করা হিসাবে ওয়েবসাইটে এখনও সর্বমোট ১৩৭ টি এমন আপত্তিকর ভিডিও ছিল।

কোন ওয়েবসাইটকে রুনেটের কালো তালিকাভুক্ত করার সময় রসকমনাদজর সাধারণত সাইটটিকে সতর্ক করে না। তবে এই বিশেষ ক্ষেত্রে ইউটিউবের জন্য এর ব্যতিক্রম ঘটেছে। কেননা ওয়েবসাইটটি বিশ্বের সর্বাধিক দেখা এক ওয়েবসাইট হিসেবে বিবেচিত। রসকমনাদজর তাঁদের দাপ্তরিক ওয়েবসাইটে গত ২২ জুলাই তারিখে বলেছে, ইউটিউব সর্বশেষ প্রচারসূচী সরিয়ে ফেলার অনুরোধ কেন মেনে চলেনি তা তাঁদের কাছে স্পষ্ট নয়। এটা আরও বলেছে যে ২৭ জুলাই তারিখে ইউআরএলগুলো কালো তালিকাভুক্ত করে তাঁরা এই প্রশ্ন তুলেছে। এই ঘোষণা দেয়ার তিন দিন পরেও যদি ভিডিওগুলো থেকে যায় তবে ওয়েবপেইজগুলো রাশিয়ার ভিতরে অবস্থানকারী ব্যবহারকারীদের জন্য অবরোধ করা হবে।

এটা উল্লেখযোগ্য যে (ব্যক্তিগত বিভিন্ন ভিডিও, ব্যবহারকারী প্রোফাইল এবং বিভিন্ন চ্যানেল সহ) ইউটিউব পেইজগুলো অনেকবার রাশিয়ান কালো তালিকা নিবন্ধনে যোগ করা হয়েছে। তবে এই ক্ষেত্রে রসকমনাদজর রাশিয়ান ব্যবহারকারীদের কারও কারও জন্য আপাতদৃষ্টিতে ওয়েবসাইটটি সম্পূর্ণ বন্ধ করে দেয়ার সম্ভাবনার দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করতে জুতসই পদক্ষেপ নিয়েছে। কেননা ইউটিউব যে HTTPS এনক্রিপশন (তথ্যকে কোডে রুপান্তরিত করা, বিশেষকরে অননুমোদিত প্রবেশ প্রতিরোধ করতে) প্রোটোকল ব্যবহার করে থাকে তা কিছু কিছু আইএসপি ট্রাফিক ফিল্টারিং করা থেকে বাঁধা দেয়।

По истечении трех рабочих дней в случае неудаления противозаконной информации доступ к этим ссылкам будет ограничен операторами связи. Это может привести к тому, что для абонентов отдельных интернет-провайдеров будет ограничен доступ ко всему сервису YouTube.

তিন কর্মদিবসের পর যদি বেআইনী এসব তথ্য মুছে ফেলা না হয়, তাহলে আইএসপি দিয়ে এই ইউআরএলগুলোতে প্রবেশ নিষিদ্ধ করে দেয়া হবে। এর অর্থ দাঁড়ায়, কিছু আইএসপি এর গ্রাহকদের সম্পূর্ণ ইউটিউব সেবাতে কোন রকম প্রবেশাধিকার থাকবে না।

রসকমনাদজর বলেছে, এটি আশা করে ইউটিউব এ বিষয়ে সম্পূর্ণরূপে আদালতের আদেশ মেনে চলবে। গুগলের (ইউটিউব যার মালিকানাধীন) একজন প্রতিনিধি ভেদোমস্তি এই মন্তব্যে করে বলেছেন যে তারা “এই পরিস্থিতি তদন্ত করছেন” এবং এ বিষয়ে পরবর্তীতে দাপ্তরিকভাবে প্রতিক্রিয়া জানাবেন।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .