বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

জাপানের ‘বেশ সুদর্শন’ গরিলাকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উত্তেজনা

নাগয়েতে বসবাসকারী শাবানি নামের “আইকম্যান (সুদর্শন) গরিলা” আলোচনার আন্তর্জাতিক শিরোনামে পরিণত হয়েছে!

শিল্পী মডেলদের মতো সুন্দর চেহারা, আকর্ষণীয় ভঙ্গি এবং ভাবপূর্ণ চোখ দিয়ে শাবানি জাপানের তরুণীদের হৃদয়ে ঝড় তুলেছে।

তবে শাবানি নবাগত কোন অভিনেতা কিংবা র‍্যাম্পে ক্যাটওয়াক করা নবাগত একজন মডেলও নন।

হিগাশিয়ামা চিড়িয়াখানা এবং নাগয়ের বোটানিক্যাল গার্ডেনে ২০০৭ সাল থেকে বসবাসরত শাবানি অস্ট্রেলিয়ায় বেড়ে ওঠা একটি গরিলা। মডেলদের মতো সুন্দর চেহারা এবং আকর্ষণীয় চোখের কারণে সে রীতিমত এক সেন্সেশনে পরিণত হয়েছে।

শাবানির ডাকনাম কি? সে জাপানে “আইকম্যান (সুদর্শন)” গরিলা নামে পরিচিত। জাপানিজ সমাজে “সুদর্শন পুরুষদের” “আইকম্যান” নামে ডাকা হয়।

পেঁয়াজ পাতা খাওয়া অবস্থায় তাঁকে বেশ সুন্দর এবং আকর্ষণীয় দেখাচ্ছে।

শাবানির সৌন্দর্য্যে মুগ্ধ হয়ে এবং তার প্রেমনিবেদন লাভ করতে চিড়িয়াখানায় ঝাঁক ঝাঁক তরুণী দর্শকের নিয়মিত ঢল নামছে। পাশাপাশি শাবানি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতেও ব্যাপক আলোড়ন তুলেছে।

তাঁর সৌন্দর্য্য নিয়ে মন্তব্য করে ব্যবহারকারীরা বিভিন্ন ছবি শেয়ার করেছেন।

তাঁর রূপালি রঙের পিঠ দেখতে দারুণ!

শাবানিকে নিয়ে কৌতূহল এখন জাপানের সীমানা ছাড়িয়েছে। তবে, এই গরিলাকে নিয়ে পশ্চিমে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

টুইটার ব্যবহারকারীদের কেউ কেউ বিশ্বাস করেন যে যদি শাবানি চায় তবে সে বিশ্বের নামীদামী ক্যাটওয়াকে নেতৃত্ব দেয়ার সক্ষমতা রাখে…

আমার বেশিরভাগ সাবেক প্রেমিকদের চেয়ে গরিলাটি অনেক বেশি আকর্ষণীয়।

…জাপানের বাইরের অন্য টুইটার ব্যবহারকারীরা গল্পটিকে একটি “অদ্ভূত জাপানি” বিষয় হিসেবে তুলে ধরে লিখেছেন।

আহ, এই বাজে ব্যাপার নিয়ে এতোটা? সত্যিই, জাপানে? এ কারণেই সারা বিশ্ব আপনাদের কাছে খুব অদ্ভূত বলে মনে হয়। এটা বন্ধ করুন!

উপরন্তু, এমন অনেকে রয়েছেন যাদের সাথে “অদ্ভূত জাপান” ধারণাটি একেবারেই ঠিক মানায় না।

নিউইয়র্ক টাইমসের একজন সাংবাদিক হিরোকো তাবুচি সাধারণত জাপানের সংবাদ সংগ্রহ করে থাকেন। তিনি লিখেছেনঃ

#বিএসসতর্কতাঃ জাপানের নারীরা সুদর্শন গরিলার জন্য মূর্ছা যাচ্ছেন “যেখানে বিভিন্ন জরিপের ফলাফলে দেখা যায় অনেক তরুণ তরুণীদের প্রেমে তেমন আগ্রহ নেই।”

আপনি কি কখনও আপনার নিজের দেশের তরুণীদের নিয়ে এমনটি লিখেছেন অথবা বিশ্বাস করেন? জাপানে প্রেম কিংবা যৌনতা সম্পর্কে এমন অদ্ভুত বানোয়াট গল্প বেশ হাস্যকর।

তবে তাঁর গুণগ্রাহীদের জন্য দুর্ভাগ্য, শাবানি ইতিমধ্যে বন্ধনযুক্ত।

সে হিগাশিয়ামা চিড়িয়াখানার বাসিন্দা দুইটি মহিলা গরিলা আই এবং নেনের সঙ্গী এবং একটি ছেলে গরিলা ও একটি মেয়ে গরিলা শিশুর গর্বিত পিতা।

উপরন্তু, গরিলাটিকে পরম সুখী বলে মনে হয় অথবা অন্ততপক্ষে তার জনপ্রিয়তা এবং ক্রমবর্ধমান ভক্তকূল সম্পর্কে সে বেশ উদাসীন।

হুম…আইকম্যান? এটা যদি সুস্বাদু হতো…?

2 টি মন্তব্য

আলোচনায় যোগ দিন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .