বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

জাপান, আইএসআইএস আতঙ্কের কারণে সিরিয়ায় যেতে ইচ্ছুক ফটোগ্রাফারের পাসপোর্ট জব্দ করেছে

CAPT

ছবি সাকু তাকাকুসাকির। আন্তর্জাতিক ক্রিয়েটিভ কমন্স শেয়ার এলাইক ৪.০-এর অধীনে লাইসেন্স করা হয়েছে।

জাপানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে ৭ ফেব্রুয়ারি তারিখে জাপানের ফ্রিল্যান্স ফটোসাংবাদিক ইয়ুচি সুগিমোটোর পাসপোর্ট জব্দ করা হয়েছে,এতে উদ্ধৃত করা হয় যে সিরিয়ায় যাওয়ার ইচ্ছে পোষণ করার কারণে তার পাসপোর্ট জব্দ করা হয়েছে।

জাপানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এই অস্বাভাবিক সিদ্ধান্তে এক প্রতিবাদের ঝড় ওঠে, বিশেষ করে বিদেশী প্রচার মাধ্যমে, তারা যুক্তি দেখায় যে জাপান সরকার সুগিমাটোর অধিকার লঙ্ঘন করছে।

ভিডিওঃ জাপানের বিদেশী সংবাদদাতা ক্লাবে সুগিমোটোর সংবাদ সম্মেলন (ইংরেজি অনুবাদ সহ)।

এই বিতর্ক যে বিষয়ের উপর আলোকপাত করেছে তা হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপের সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক আচরণের মাঝে তুলনা, এতে যুক্তি দেখানো যেতে পারে যে জাপানি সংস্কৃতি অন্য দেশের মত ব্যক্তির অধিকার রক্ষায় ততটা প্রতিশ্রুতিশীল নয়।

জাপান সরকারের সুগিমোটোর পাসপোর্ট জব্দ করার এই সিদ্ধান্ত,জানুয়ারির শেষে আইএসআইএস-এর হাতে সাংবাদিক কেনজি গোটো এবং হারুনা ইয়ুকাওয়ার নামক দুজন জাপানের নাগরিকের নির্মম হত্যাকাণ্ডের প্রেক্ষাপটে নেওয়া হয়েছে। তাদের এই হত্যাকাণ্ড সামগ্রিক ভাবে জাপানের জন্য দারুণ এক আঘাত হয়ে আসে, এই হত্যাকাণ্ডের পূর্ব পর্যন্ত এই বিষয়টি স্বয়ং গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনায় আসেনি,যেহেতু কোন দলের কাছে এরা “শত্রু’ বা ‘উপদেষ্টা’ ছিল না।

জাতীয় দৃষ্টিভঙ্গি রাতারাতি পাল্টে গেছে। জাপানে এখন এ রকম আবছা একটা ধারণা হয়েছে যে বিশ্বে এমন কিছু স্থান আছে যা ভ্রমণ উপযোগী নয়। কেন এক সাংবাদিকের অধিকার ছিনিয়ে নেওয়া হল, এই নিয়ে প্রশ্ন করার বদলে সমাজে সবার মাথায় এখন একটাই প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে, “কেন এখন সেখানে সবাই যেতে যাচ্ছে”?

নিঃসন্দেহে এর আগে কোন জাপানি নাগরিক এ ধরনের নির্মম হত্যাকাণ্ডের পুনরাবৃত্তি দেখেনি এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুগিমোটোর পাসপোর্ট জব্দ করার পেছনে সামাজিক এই আবেগ এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে

তবে, কারণ যাই হোক, এই বিষয়টিকে এড়িয়ে যাওয়া সহজ নয় যে ফ্রিল্যান্স এই ফটোসাংবাদিকের পাসপোর্ট জব্দ করে নেওয়া হয়েছে। এদিকে সুগিমোটোর সিরিয়ায় যাওয়া রোধ করতে তার পাসপোর্ট জব্দ করে নেওয়া এক যৌক্তিক কারণ হিসেবে কাজ করেছে, যদি এ ধরনের আর কোন ঘটনার উৎপত্তি ঘটে তাহলে এই বিষয় জাপানে আগামীতে এক বিস্তারিত বিতর্কের সূত্রপাত ঘটাবে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .