বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ব্রিটেনের জনপ্রিয় টপ গিয়ার শো অনুষ্ঠান ফকল্যান্ড নামক ক্ষতের কারণে আর্জেন্টিনায় ততটা জনপ্রিয় নয়

Grafitti en la ciudad de Ushuaia - Imagen de Laura Schneider

আর্জেন্টিনার উশুহুইয়া সিটির এক গ্রাফিতি “ ইংরেজ জলদস্যু জাহাজের এখানে নোঙ্গর নিষিদ্ধ”। ছবি লাউরা স্কেনেইডার-এর।

এখন থেকে ৩২ বছর আগে যখন আর্জেন্টিনার সেনা ফকল্যান্ড দ্বীপে অবতরণ করে এবং তা পুনরায় দখল করার চেষ্টায় যুক্তরাজ্যের সাথে এক যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে, যে দ্বীপটি ১৮৩৩ সালের পূর্বে দক্ষিণ আমেরিকার এই রাষ্ট্রের অধীনে ছিল, এরপর থেকে দুটি দেশের সর্ম্পকের মাঝে এক সাধারণ এক উত্তেজনা বিরাজ করছে।

১৯ নভেম্বর তারিখে আর্জেন্টিনার সংসদে এক আইন পাস হয়, যার মাধ্যমে এই বিষয়টিকে প্রতিষ্ঠিত করা হয় যে জল, স্থল, এবং আকাশ পথে যে কোন গণপরিবহন কিংবদন্তীর এই বাণী “লস মালভিনাস (ফকল্যান্ড) সন আর্জেন্টিনা” [মালভিনাস দ্বীপ আজেন্টিনার]” বহন করতে বাধ্য। এই আইনের পেছনে মৌলিক চিন্তাটি হচ্ছে দেশটির ইতিহাসের চেতনাকে আরো শক্তিশালী করা

দ্বীপবাসীদের মাঝে এই বিষয়ে অনুভূতি ভিন্ন। ক্রিস থরসেন এক ফকল্যান্ডবাসী যে সম্প্রতি এই দ্বীপের এলাকা মধ্যে আর্জেন্টিনার পতাকা বহন নিষিদ্ধ করার জন্য দরখাস্ত উপস্থাপন করে যা তার মতে এখানকার নাগরিকদের মাঝে অস্বস্তির সৃষ্টি করে। এই দ্বীপের মূল যে বেসামরিক বিমানবন্দর সেখানে এক বাণী ঝোলানো রয়েছে যেটিতে উপদেশ প্রদান করা হয়েছে ফকল্যান্ড সীমানার মাঝে কেউ যেন আর্জেন্টিনার পরিচয় চিহ্ন বহন না করে।

কিন্তু, পৌরুষত্বকে তুলে ধরে- এবং দ্রুত গতিতে যারা গাড়ি চালাতে ভালবাসে তাদের উদ্দেশ্যে নির্মিত, বিবিসি প্রচারিত বৃটিশ এক টেলিভিশন অনুষ্ঠান ‘টপ গিয়ার’ এর সাম্প্রতিক এবং বিতর্কিত আর্জেন্টিনা ভ্রমণ- সত্যিকার অর্থে আর্জেন্টিনার অনেক নাগরিকের পুরোনো ক্ষতকে আবার জাগিয়ে তুলেছে।

টপ গিয়ার অনুষ্ঠানের আর্জেন্টিনা পরিদর্শনের কেন্দ্রে ছিল এই ঘটনাটি, যে এখানে দেখানো গাড়ির মধ্যে একটি গাড়ির নিবন্ধন নাম্বার ছিল “এইচ৯৮২ফক” , যা স্থানীয় অনেকের মাঝে এক ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করে

A principios de octubre, los integrantes del programa de la BBC fueron apedreados cuando recorrían la Patagonia con automóviles de lujo. El problema se generó porque el Porsche que utilizó Jeremy Clarkson, el histórico presentador del show de autos más visto del mundo, tenía la matrícula “H982FLK”. El nombre alude inevitablemente a la guerra que enfrentó al Reino Unido con la Argentina en las Islas Malvinas: 82 coincide con el año del conflicto (1982) y FLK, con el nombre del archipiélago en inglés, Falklands.

অক্টোবরের শুরুতে, বিবিসির কর্মচারীরা নিজেদের আর্জেন্টিনার নাগরিকদের আক্রমণের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করে যখন তারা বিলাসবহুল গাড়িতে করে পাতাগোনিয়া অঞ্চল পরিভ্রমণ করে। সমস্যার উদ্ভব হওয়ার কারণ হয় উক্ত অনুষ্ঠানের সঞ্চালক জেরেমি ক্লার্কসনের ব্যবহার করা পোরশে গাড়ি, যার নিবন্ধন নাম্বার ছিল “এইচ ৯৮২ফক”। এই নামটি অনিবার্য ভাবে ফকল্যান্ড নিয়ে যুক্তরাজ্যে এবং আর্জেন্টিনার মাঝে সংঘঠিত যুদ্ধের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়ঃ ঘটনাক্রমে ৮২ সংখ্যাটি উক্ত যুদ্ধের বছরের (১৯৮২) সময়কাল স্মরণ করিয়ে দিয়েছে এবং ফক অক্ষর ইংরেজিতে ফকল্যান্ড দ্বীপপুঞ্জের নামের আদ্যক্ষর।

অনুষ্ঠানের উপস্থাপক জেরেমি ক্লার্কসন, স্পষ্টভাষী হিসেবে এবং সরকারকে রাজনৈতিক ভাবে আঘাত করার কারণে যার সুনাম রয়েছে, তবে সে টুইটারের মাধ্যমে দৃঢ়তার সাথে বলে

নাম্বার প্লেটের বিষয়টি ঘটনাক্রমে মিলে গেছে। যখন এই বিষয়ের প্রতি আমাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়, আমরা তা পাল্টে ফেলি। সকালের এই মেইল দেওয়া ছবি বিষয়টি প্রদর্শিত করছে।

আরেকটি টুইট, যা ছিল আরো বিদ্রূপাত্মক, ক্লার্কসন তার মাধ্যমে আর্জেন্টিনার সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়েছে:

অনুষ্ঠানের শেষটা যাতে ভাল হয় আমরা তার জন্য পরিকল্পনা করেছিলাম, কিন্তু সরকারের বোকামির জন্য ধন্যবাদ, এমনকি বিষয়টি এখন তার চেয়ে ভাল হয়েছে।

২৭ ও ২৮ ডিসেম্বর তারিখে বিবিসি-তে এই অনুষ্ঠান সম্প্রচারিত হওয়ার কথা

এই বিষয়টি স্মরণ করা যেতে পারে যে ফিফা ২০১৪ ফুটবল বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা দলের এক খেলার সময় “ফকল্যান্ড আমাদের” (লাস মালভিনাস সন আর্জেন্টিনা) লেখা পতাকা প্রদর্শনের কারণে এএফএ-কে (আর্জেন্টিনা ফুটবল সংস্থা) জরিমানা করেছিল। এবং ২০১২ সালে লন্ডন অলিম্পিকে ফকল্যান্ড দ্বীপ নিয়ে আর্জেন্টিনার রাষ্ট্রপতির দপ্তর থেকে নির্মিত একটি ভিডিও চলচ্চিত্রে আর্জেন্টিনার দলটির প্রচারণায় ব্যবহার করা “ইংরেজদের মাটিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য, আমরা আর্জেন্টিনার মাটিতে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত” স্লোগান বিতর্কের সৃষ্টি করে।

এই সপ্তাহান্তে ছুটির দিনে প্রচারিত হতে যাওয়া অনুষ্ঠানটি যদি আরেক দফা বিতর্কের সৃষ্টি না করে তাহলে তা হবে এক বিস্ময়কর ব্যাপার।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .