বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

নতুন কর ম্যাসেডোনিয়ার ফ্রিল্যান্সার এবং পার্ট টাইম কর্মীদের রাস্তায় নামিয়ে এনেছে

"No to racketeering by the state" - banner at a protest in Skopje, Macedonia, Dec 22, 2014. Photo: F. Stojanovski, CC BY.

রাষ্ট্রের ধান্দাবাজি-কে না বলুন। ম্যাসেডোনিয়ার স্কোপজার বিক্ষোভে প্রদর্শিত এক ব্যানার।২২ ডিসেম্বর ২০১৪ ছবি ফিলিপ স্তায়নোভস্কির

২২ ডিসেম্বর তারিখে ম্যাসেডোনিয়ার হাজার হাজার নাগরিক রাজধানী স্কোপজার কেন্দ্রস্থলের রস্তায় হাজির হয়ে এক নতুন করের বিষয়ের তাদের বিক্ষোভ প্রদর্শন করে যা রাষ্ট্রীয় অবসরভোগী এবং স্বাস্থ্য সেবা খাতে অবদান রাখাকে বাধ্যতামূলক করেছে। যারা ফ্রিল্যান্সার হিসেবে কাজ করে নতুন ট্যাক্স তাদের উপর ধার্য হবে এবং তা অন্যান্য ব্যক্তিগত আয় থেকে এই করের জন্য অর্থ কর্তন করা হবে, এবং এটি ১ জানুয়ারি ২০১৫ থেকে ধার্য হবে। ম্যাসেডোনিয়া হচ্ছে এমন এক রাষ্ট্র, যেখানে ২০১৪ সালের দ্বিতীয় চার মাসে বেকারত্বের হার ২৯ শতাংশে গিয়ে ঠেকেছে, সেখানে ফ্রিল্যান্স এবং পার্ট টাইম চাকুরী কারো কারো আয়ের একমাত্র মাধ্যম।

ফেসবুকে তৈরী করা এক কর্মসূচির পাতার মাধ্যমে এই বিক্ষোভ কর্মসূচির আয়োজন করা হয় এবং তা দ্রুত ৫০০০ জনের মনোযোগ আকর্ষণ করে এবং টুইটার ও ফেসবুকে এর জন্য ফ্রিল্যান্সবিক্ষোভ (#ПротестХонорарци) নামের হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করা হয়। এই বিক্ষোভকে সামনে রেখে ম্যাসেডোনিয়ার অনুবাদক সংগঠন, স্বাধীন সাংবাদিক ট্রেড ইউনিয়ন, বাম সংগঠন লেঙ্কা এবং সলিডারিটি, ছাত্র সঞ্চয় সংঘ, এবং অন্যান্য সংগঠন তাদের সমর্থন প্রকাশ করেছে। বিখ্যাত অনেক ব্যক্তিত্ব এই বিক্ষোভে অংশগ্রহণকারীদের সাথে যোগ দেয়, যাদের মধ্যে শিল্পী, সঙ্গীতজ্ঞ, একটিভিস্ট এবং বিনিয়োগকারী উপস্থিত ছিলেন, যাদের অনেকে আবার ফ্রিল্যান্সার।

বিক্ষোভকারীর সংসদ, শ্রম ও সমাজকল্যাণ নীতি বিষয় মন্ত্রণালয় এবং ম্যাসেডোনিয়া প্রজাতন্ত্রের সরকারী ভবনে গিয়েছিল। তবে কর্তৃপক্ষ এই বিষয়ে আনুষ্ঠানিক কোন সাড়া প্রদান করেনি।

"Taking from the poor to give to the rich!" - some protesters associated the Prime Minister Gruevski with the slogan of "reverse Robin Hood."  Skopje, Macedonia, Dec 22, 2014. Photo: F. Stojanovski, CC BY.

২২ ডিসেম্বর ২০১৪ তারিখে ম্যাসেডোনিয়ার রাজধানী স্কোপজার রাস্তায় প্রধানমন্ত্রী গ্রুয়েভস্কিকে লক্ষ্য করে বিক্ষোভকারী স্লোগান দেয়, “গরীবদের কাছ থেকে নাও, ধনীদের দাও”! অথবা “রবিন হুডের বিপরীত চরিত্র”। ছবি ফিলিপ স্তায়নোভাস্কির। সিসি বাই।

এই করের বিরোধিতাকারীরা দাবী করছে, এই কর সরাসরি কাজের ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলবে, যদিও আয়কর এবং স্বাস্থ্য বীমার টাকা প্রদানের বিষয়টি কৌশলে কর্মচারীর উপর চাপিয়ে দেওয়া হয়। সমালোচকেরা বলছে যে নতুন এই কর কেবল বেতন কমিয়ে দেবে, কখনো কখনো এর পরিমাণ ৩৫ শতাংশে পরিণত হবে। একই সাথে নাগরিকরা উদ্বিগ্ন যে এটা বৈষম্যের সৃষ্টি করবে, যেহেতু নির্বাচিত এবং নিয়োগপ্রাপ্ত সরকারী কর্মকর্তাদের মত বিশেষ কয়েক ধরণের কাজ এই করের আওতা মুক্ত থাকবে।

বেশ কয়েকটি কারণেও এই করটি অজনপ্রিয়। যেমন, যে সমস্ত কর্মী রাষ্ট্র নির্ধারিত সর্ব নিম্ন আয়ের চেয়ে বেশী উপার্জন করে, তারা গতবছর বেকারত্বের সুবিধা নিবন্ধনে ব্যর্থ হয়েছে। বাড়তি করের এই বোঝার কারণে ধারণা কার হচ্ছে যে অলাভজনক খাত, এবং একই সাথে বেসরকারি সংবাদপত্রের ক্ষেত্রে তা প্রচণ্ড নেতিবাচক প্রভাব তৈরী করবে, যেখানে বাড়তি খরচের জন্য অর্থ পাওয়া খুব দুষ্পাপ্য এক বিষয়। বিক্ষোভকারীদের মতে, নতুন কর ম্যাসেডোনিয়ায় রাষ্ট্রীয় সেবা ব্যবস্থার মান উন্নত করবে না, এবং বর্তমান এই ব্যবস্থায় কেবল ব্যায় বাড়িয়ে দেবে।

"Is this personal enough?" Protest meme designs  by MightyCreation Aleksandar Pesevski

“এটা কি যথেষ্ট ব্যক্তিগত? বিক্ষোভের এই মীমের ডিজাইন করেছেন মাইটিক্রিয়েশন আলেকজান্ডার পেসেভসকি। সিসি বাই –এনসি

এই বিক্ষোভের মূল ফেসবুক কর্মসূচির পাতা অনুসারে, ফ্রি ল্যান্স এবং পার্ট টাইম কাজ করা নাগরিকদের ক্ষেত্রে বাড়তি কর বেশ কিছু কারণে গ্রহণযোগ্য নয়:

Намерата на Владата да воведе плаќање придонеси за хонорарите од 1 јануари 2015 година ќе доведе до зголемување на сиромаштијата и до зголемување на невработеноста. Покрај тоа, изземањето на државните службеници од оваа обврска што Владата им ја наметнува на сите други смртници, без никакво логично објаснение, ја покажува целата извитопереност на вака зацртаниот концепт на плаќање придонеси за хонорарите.

Кои се нашите барања?

Нашите барања се:

1) да се стопира примената на измените на законите со кои се воведува плаќање на придонеси од задолжително социјално осигурување за хонорарите, со цел да се отвори простор за нивна измена и повлекување;

2) преку засилени инспекции на Инспекторатот за труд да бидат отстранети случаите на прикриен работен однос, односно на наметнато вршење работа без договор или врз основа на договор за дело, при што за работниците не се плаќаат придонеси од задолжително социјално осигурување.

3) да се покачи или целосно да се укине највисоката месечна основица за пресметување и уплата на придонесите на плата од шест просечни плати.

Кого сè ќе го загрозат законските измени?

Голем број лица во Македонија, немајќи можност за редовно вработување, се принудени да се борат за својата егзистенција работејќи за хонорар, кој најчесто не е ниту редовен ниту висок. Покрај тоа, ним не им следуваат сите оние права кои ги имаат според закон работниците во редовен работен однос. Далеку од привилегирани, овие лица се дел од прекаријатот, еден од најзагрозените делови од работништвото. Ним, кога ќе стапат на сила законските измени, работодавачите ќе им ги намалат хонорарите за со тие пари да ги платат придонесите кон државата и на тој начин ќе предизвикаат нивно дополнително осиромашување. Дури е можно, неможејќи повеќе да ги плаќаат, да ги отпуштат од работа, со што ќе се зголеми и невработеноста.

Сите лица кои се работно ангажирани и сите лица што во иднина ќе бидат работно ангажирани се загрозени од овие законски измени![…]

Со овие законски измени Владата сака да превиди дека најголемиот проблем на Македонија е сиромаштијата, а не зголемувањето на парите кои таа ги контролира! И понуди лек кој е полош од болеста! Решавањето на проблемите кои самата власт ги создаде кај Фондот за пензиско и инвалидско осигурување и кај Фондот за здравствено осигурување не смее да биде на грбот на сиромашните и обесправените!

সরকারের ইচ্ছে ১ জানুয়ারি, ২০১৫ থেকে ফ্রি ল্যান্স কর্মীরা যেন রাষ্ট্রীয় খাতে এই অবদানের সূচনা করে, যা দারিদ্র এবং বেকারত্বকে আরো বাড়িয়ে তুলবে। এছাড়াও, সরকারী কর্মচারী এই কর থেকে রেহাই প্রদান যা কিনা সরকার বাকী সকল জীবিত নাগরিকদের উপর আরোপ করেছে, কোন ধরনের যৌক্তিক ব্যাখ্যা ছাড়াই, তা এই ধারণার পুরো বিকৃতিকে তুলে ধরছে।

আমাদের দাবী হচ্ছে:
১. নতুন এই কর আইনের প্রয়োগ বন্ধ করতে হবে… যাতে তারা নিজেদের পরিবর্তন করতে এবং এই অবস্থা থেকে প্রত্যাহার করে নেওয়ার ক্ষেত্রে জায়গা তৈরী করতে পারে।
২. লেবার ইন্‌স্পেকটর-এর কাজের পরিধি বাড়ানো এবং যে সমস্ত পেশা সাধারণ চোখে পড়ে না সে সব পেশার ক্ষেত্রে প্রকৃত কাহিনী চিহ্নিত করা, চুক্তি ছাড়া কাজ করা অথবা সামাজিক নিরাপত্তা খাতে অবদান না রাখার মত বিষয়কে চিহ্নিত করা…
৩. হয় বেতন বাড়ানো হোক অথবা কর প্রদানের ক্ষেত্রে হিসেবে করার সময় যে মাসে সর্বোচ্চ আয় হবে সেই হারে কর প্রদানের মত গণনার বিষয়টির বিলুপ্ত করা হোক, যা বর্তমানে গড় বেতনের ছয়গুণ।

এই সকল আইনগত পরিবর্তনে কারা আক্রান্ত হবে?

বিশাল সংখ্যক ম্যাসেডোনিয় নাগরিক যাদের পুর্ণ মেয়াদের চাকুরির সূযোগ নেই, যারা তাদের অর্থের জন্য বিদ্যমান কাজ নিয়ে লড়াই করছে, যাদের কাছে বেশীর ভাগ সময় নিয়মিত কিংবা বড় আকারের কোন কাজ থাকে না। এই সমস্ত ফ্রিল্যান্সার কর্মীরা শ্রম অধিকারের যোগ্য নয় যার জন্য পূর্ণ সময়ের নিবন্ধিত চাকুরীর প্রয়োজন। সুবিধা প্রাপ্তি তো দূরে থাক, তারা হচ্ছে সমাজের অনিশ্চিত শ্রেণী রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা সুবিধা বঞ্চিত শ্রেণী যারা শ্রমজীবী মানুষ হিসেবে সবচেয়ে বিপন্ন। যখন এই আইনগত পরিবর্তন কার্যকর হবে, রাষ্ট্রের অনুরোধে তাদের সেবা খাতের সুবিধা প্রদানের জন্য তাদের মালিকরা বেতন কমিয়ে দেবে, আর এভাবে এই বিষয়টি আরো দারিদ্র্যের সৃষ্টি করবে। এই ধরনের ঘটনা ঘটাও সম্ভব যে পরিস্থিতি ক্রমশ খারাপের দিকে যাওয়ার কারণে এ ধরনের অনেক ব্যক্তি চাকুরীচ্যুত হতে পারে, যা বেকারত্বের হার আরো বাড়িয়ে দেবে।

যারা পূর্ণকালীন চাকুরীতে নিযুক্ত এবং ভবিষ্যতে যারা এই ধরনের চাকুরীতে যোগদান করতে যাবে, তারাও আইনের এই পরিবর্তনের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

আইনের এই সংশোধনে মাধ্যমে সরকার ম্যাসেডোনিয়ার সবচেয়ে বড় সমস্যাটাকে এড়িয়ে যাচ্ছে- আর তা হচ্ছে দারিদ্র্য-তার নিয়ন্ত্রণে থাকা অর্থ বাড়িয়ে তোলা নয়! রোগ প্রশমনের ওষুধ, রোগের চেয়ে পরিস্থিত বাজে করে তুলছে! গরীব এবং নির্যাতিতরা বলির পাঠা হিসেবে এবং এই আত্মত্যাগে ব্যবহৃত হতে পারে না, যাতে তাদের কাছ থেকে নেওয়া অর্থ দিয়ে সরকারকে অবসর ভাতা এবং শারীরিক অক্ষমতা ও স্বাস্থ্য বীমার জন্য তহবিল গড়ার মত সমস্যা সমাধান করতে হবে, যা সে নিজে তৈরী করেছে!

গত গ্রীষ্মে এক বিশেষ অধিবেশনের মাধ্যমে ম্যাসেডোনিয়ার সংসদ নতুন আইনটিকে গ্রহণ করে, সে সময় তারা স্টেকহোল্ডারদের সাথে গণ আলোচনা এবং পরামর্শের জন্য যে সমস্ত গতানুগতিক বিষয়ের প্রয়োজন তা এড়িয়ে যায়। নতুন এই নিয়মের ক্ষেত্রে কিছু অস্পষ্টতা বিষয়ে আলোচনার জন্য সংসদরা অক্টোবর পর্যন্ত অপেক্ষা করে, কিন্তু সরকার তা প্রত্যাহার করতে অস্বীকার করে। তবে কিছু চিহ্ন দেখা যাচ্ছে যাতে বোঝা যাচ্ছে আইন প্রণেতারা সরকারী কর্মকর্তাদের প্রদান করা কিছু সুবিধা প্রত্যাহার করে নেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে, যা এই আইনের অধীনে রাখা হয়েছিল।( কর্মকর্তারা অনেকটা নীরবে রাষ্ট্রীয় অবসর ভাতা ফাণ্ডের ওয়েবসাইট থেকে সেই বাক্যগুলো অপসারণ করেছে যা ওই সমস্ত সুবিধা প্রদানে বাধ্য করত)।

কিছু সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারী নতুন আইনে অসাংবিধানিক এবং বৈষম্যমূলক ধারা যুক্ত করায় রাষ্ট্রকে অভিযুক্ত করেছে, তাদের মতে যা কেবল দর কষাকষির এক হাতিয়ার হিসেবে তা ব্যবহার করা হয়েছে, যা জনগণকে শান্ত করার এক উপায় হিসেবে রাষ্ট্র পরে প্রত্যাহার করে নিতে পারে।

"Hell comes when you could have said 'No!,' but you kept silent" - protest in front of the Government of Republic of Macedonia, Dec 22, 2014. Photo: F. Stojanovski, CC BY.

“নরক নেমে আসবে যখন আপনি বলবেন ‘না! কিন্তু আপনি চুপ থাকবেন”-২২ ডিসেম্বর ২০১৪ এ ম্যাসেডোনিয়া সরকারী দপ্তরের সামনে বিক্ষোভ। ফিলিপ স্তায়নোভস্কির। সিসিস বাই

এখন পর্যন্ত, ম্যাসিডোনীয় সরকার বিক্ষোভকারীদের দাবীর সামনে টলেনি, এমনকি ব্যাপক ছাত্র বিক্ষোভের মুখেও না। নতুন ধরনের এই কর থেকে অর্জিত অর্থ (প্রায় ৬৮ মিলিয়ন ইউরো) কোন এক বিশেষ মাত্রা পর্যন্ত দেশটির স্বাস্থ্যসেবা এবং অবসর ভাতার জন্য প্রদেয় অর্থ জোগাতে সাহায্য করবে। ম্যাসেডোনিয়ায় প্রায় ২০ লক্ষ নাগরিকের বাস, দেশটি ১৮০,০০০ জন সরকারী কর্মচারীর বেতন, এবং সেই সাথে জনসংখ্যার একটা গুরুত্বপূর্ণ জনসংখ্যার জন্য প্রদান করা সুবিধা যারা মূলত শাসক দলকে ভোট দেয়,যেমন পেনশনভোগী অবসর গ্রহণ করা নাগরিক এবং কৃষক যারা রাষ্ট্রের ভর্তুকি পেয়ে থাকে, যে সমস্ত বিষয় রাষ্ট্রীয় বাজেটের ক্ষেত্রে এক বোঝা হয়ে দাঁড়ায়।

ফ্রিল্যান্সবিক্ষোভ।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .