বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

“নিখুঁত মানব” পুয়ের্টোরিকোয় বাস করে না, ( অথবা বিশ্বের কোন দেশে নয়)

Drum workshop on Calle Loiza, Santurce, Puerto Rico. Photo by Flickr user Angel Xavier Viera-Vargas. CC BY-ND 2.0

পুয়ের্টোরিকোর সানট্রুসের কালে লোইজায় ড্রাম বাদন প্রশিক্ষণ কর্মশালা, ছবি ফ্লিকার ব্যবহারকারী এঞ্জেল জাভিয়ার-ভার্গাস-এর। সিসি বাই–এনডি ২.০।

“নিখুঁত মানব” বলে আদৌও কোন কিছু কি আছে? পুয়ের্টোরিকোর অনেকে এমনটা মনে করে। আর যারা তা বিশ্বাস করে,তারা বিশ্বাস করে নিখুঁত মানবের সবচেয়ে কাছাকাছি যে মানুষটা, নিঃসন্দেহে সে এক পুয়ের্টোরিকোর নাগরিক।

অন্তত, যে বিষয়টি স্যোশাল মিডিয়ার গুঞ্জন থেকে এসেছে, আর তার শুরু লিওর প্যাচটার-এর লেখা ব্লগ পোস্ট থেকে, যার শিরোনাম, “নিখুঁত মানব” হচ্ছে পুয়ের্টোরিকোর এক নাগরিক। লিওর প্যাচটারের লেখা ২ ডিসেম্বর তার নিজস্ব ব্লগ “বিটস অফ ডিএনএ“-তে প্রকাশিত হয়েছে, যেটি ডিএনএর আণবিক কাঠামোর অন্যতম এক আবিষ্কারক জেমস ওয়াটসন হয়ত নোবেল পুরস্কার নিলামে উঠাতে পারে এমন এক সংবাদের প্রতিক্রিয়ায় লেখা।

ওয়াটসন তখন থেকে বিজ্ঞানী সম্প্রদায়ের দ্বারা উপেক্ষিত, যখন তিনি বিস্ফোরক এক মন্তব্য করেন যে গবেষণা সম্ভবত এই বিষয়টি নির্দেশ করছে যে সাদা মানুষের চেয়ে কালো ব্যক্তিরা কম বুদ্ধিমান। ওয়াটসন তার সারা জীবন যে কয়টি বর্ণবাদী এবং পুরুষতান্ত্রিক মন্তব্য করেছেন এটা তার সাম্প্রতিকতম।

প্যাচার, যে কিনা এক তথ্য বিশ্লেষক জীববিজ্ঞানী, তার পোস্টের জন্য এই রকম এক শিরোনাম বেছে নেওয়া ছিল খানিকটা পরিহাসের বিষয়। ভাবনাটা ছিল অনেকটা এ রকম জিনগত ভাবে উন্নত মানব আসলে রয়েছে ওয়াটসনের এ রকম আচ্ছন্নতা যে অবাস্তব, সেটিকে অনানুষ্ঠানিক তথ্যগত চিন্তার মত এক পরীক্ষা দ্বারা ভুল প্রমাণ করা। প্যাচারের চিন্তাধারা পরীক্ষায় অত্যাবশ্যকীয় হচ্ছে সিঙ্গেল নিউক্লিওটাইড পলিমরফিজম যা এসএনপিএস নামে পরিচিত (অথবা “সিনিপস”) উপাদানের ডাটা এসএনপিডিয়া থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে। এই এসএনপিডিয়ায় হচ্ছে ৫৯,৫৯৩ টি এসএনপিএস এবং সেগুলোর সহযোগীর এক উন্মুক্ত ডাটাবেজ। প্যাচটার যে বিশেষ ডাটা সংগ্রহ করেছে তা মায়াগুয়েজ-এর ইউনিভার্সিটি অফ পুয়ের্টোরিকোর, ক্যারিবিয়ান জেনোম সেন্টার থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে।

এই ডাটা সংগ্রহের কাজে যে সমস্ত গবেষক জড়িত ছিল তারাস অলেকসাইক তাদের একজন,প্যাচারের পোস্ট দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার কয়েকদিন পরে ক্যারিবীয় জিনোম সেন্টারের প্রকাশিত এক প্রবন্ধে সংক্ষেপে তিনি প্যাচারের চিন্তাধারা গবেষণার নিয়ে ব্যাখ্যা প্রদান করেন:

এই জেনেটিক উপাদান ব্যবহার করে, প্যাচার [অসুস্থ্য] ডাটাবেসের সকল পরিব্যাপ্তির দিকে তাকিয়েছে এবং একবার যদি ফোনোটাইপ ধরনের প্রভাবের ঘটনা ঘটে, তিনি সাথে সাথে তা লিখে নিয়েছেন নিয়েছে। যদি এই প্রভাব ইতিবাচক হয়, তাহলে পরিব্যাপ্তি এতে সুবিধাপ্রাপ্ত হবে। আর এতে যে ব্যক্তি সবচেয়ে সুবিধাজনক এ্যালেলি (ক্রোমোজমে প্রাপ্ত জিনের উপাদান) প্রাপ্ত হবে এবং যার ক্ষেত্রে এ্যালেলি হবে সবচেয়ে কম ক্ষতিকর সেই হবে ‘নিখুঁত মানব’। তিন বছর আগে পুয়ের্টোরিকো থেকে সংগ্রহ করা উপাদান বিশ্লেষণের পর বিষয়টি এমন ভাবে ঘটছে তাতে দেখা যাচ্ছে যে নমুনার মধ্যে গুচ্ছের সবচেয়ে কাছের উপাদান নির্দেশ করছে যে নিখুঁত মানব এক নারী। যার ফলে তাকে “নিখুঁত মানবী” বলে অভিহিত করা হচ্ছে।

আর এ ভাবে প্যাচারের পোস্টের অংশটি, যা এই প্রবন্ধকে তার শিরোনাম প্রদান করেছে এবং বেশীরভাগ মানুষের মনোযোগ আকর্ষণ করেছে:

একজন নিখুঁত মানবের সবচেয়ে যে কাছাকাছি, সে হচ্ছে এক নারী… একজন পুয়ের্টোরিকান। কেউ একজন হয়ত কল্পনা করছে যে, ইতোমধ্যে এ রকম এক ব্যক্তির অস্তিত্ব রয়েছে, হয়ত সে ইউইজা, পুয়ের্টোরিকোর ইতিহাসে একমাত্র নারী গোত্রপ্রধান (টিয়ানো কাচিকে)।

ঐতিহাসিক ভুলকে একপাশে রেখে (আমরা যা জানি, ইউইজা বিশ্বের একমাত্র মহিলা গোত্র প্রধান নয়, আর তাকে পুয়ের্টোরিকান বলে বিবেচনাও করা যায় না), প্যাচার, তার এই কৃতিত্বের ক্ষেত্রে দ্রুত স্বীকার করেন যে অন্তত এই বিষয়টি পরিষ্কার করে যে নিখুঁত মানবীর ধারণা খুবই বিভ্রান্তিকর।

তারাস অলেকসাইক, যিনি মায়াগুয়েজ-এর ইউনিভার্সিটি অফ পুয়ের্টোরিকোর জীববিজ্ঞানের অধ্যাপক, তিনি উপরের উদ্ধৃতি পোস্টের ক্ষেত্রে কিছু ব্যাখ্যা দেওয়ার চেষ্টা করছে, বিশেষ করে যখন এটা হচ্ছে ডাটা, যা লিওর প্যাচারের এই গবেষণা অনুশীলনে সময় তা সংগ্রহে সে সাহায্য করেছিল, এমনকি যদিও সে কখনো কল্পনা করেনি তার এই সাহায্য স্যোশাল মিডিয়ায় ঝড় তুলবে:

যদি পাঠকেরা কেবল এই প্রবন্ধের উপসংহার পাঠ করে তাহলে যে বিষয়টি তারা খেয়াল করবে যে এর লেখক “পুয়ের্টোরিকো অলস্টার বাস্কেটবল ইউনিসাইকেল” টিমের একজন ভক্ত, তারা নিজেদের জিজ্ঞেস করবেঃ বার্কলে বিশ্ববিদ্যালয়ের এই অধ্যাপক পুয়ের্টোরিকো সম্বন্ধে এতকিছু জানে কি ভাবে, যদিও আমি সারা জীবন ধরে এখানে বাস করছি, কিন্তু এ রকম কোন কিছুর নাম কখনো শুনিনি??”

এই সমস্ত ঘটনা ঘটছে, কারণ উদাহরণ হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে এর লেখক এই ধরনের তুলনার ক্ষেত্রে বিদ্রুপাত্মক। ঘটনা হচ্ছে মানব জিনের এই তুলনায় পুয়ের্টোরিকোর নাগরিকরা বিজয়ী হয়েছে, এতে তিনি দারুণ খুশী, কারণ তিনি ভয় পাচ্ছিলেন একজন নিখুঁত মানব হবেন হয়ত ওয়াটসন নামক এক ব্রিটিশ বংশোদ্ভুত ব্যক্তি। তার মতে, বিজয়ী জনগোষ্ঠী অন্যদের থেকে একেবারে বিচ্ছিন্ন তা এক দারুণ বিষয়, যতক্ষণ না এটা ব্রিটিশ বংশোদ্ভুত কোন আমেরিকার নাগরিক হয়। বেদনাদায়ক ভাবে পাঠকেরা এর সূক্ষ্ম যে বার্তা অনুধাবন করতে সক্ষম হয়নি। যা বলছে, হুররে! মানব প্রজাতির দৌড়ে আমরা বিজয়ী! যার ফলে সকলে এই বিষয়ে সমালোচনামূলক রায় প্রদানে ব্যর্থ হয়েছে।

যে বিষয়টি বোধগম্য নয়, তা হচ্ছে স্প্যানিশ ভাষার সংবাদপত্র ইএফই একটি প্রবন্ধ লিখেছে যেটিতে প্যাচারের ব্লগস্পটকে গুরুত্বপূর্ণ এক বৈজ্ঞানিক গবেষণা বলে অভিহিত করা হয়েছে। ওই একই প্রবন্ধে পরে সমালোচনাহীন ভাবে বিভিন্ন সংবাদপত্র সাইটে প্রকাশিত হয়, যার মধ্যে পুয়ের্টোরিকোর সর্বাধিক পঠিত দৈনিক পিমেরা হোরাও রয়েছে, যা লিওর প্যাচারের গ্রহণ করা এক সাক্ষাৎকারের সুবিধা সত্ত্বেও, ভূল তথ্য ছড়ানোয় সাহায্য করে, যার ফলে অনেকে বিশ্বাস করে যে জিনগত ভাবে সত্যিকার অর্থে এক নিখুঁত মানব অস্তিত্ব রয়েছে এবং এ রকম খুব কাছাকাছি যে মানুষ, সে পুয়ার্টোরিকোর এক নাগরিক ।

পুয়ের্টোরিকান এক গবেষক রাফায়েল এ. ইরিজারি, যিনি হাভার্ড স্কুল অফ পাবলিক হেলথ-এর বায়োস্ট্যাটিসটিকস–এর অধ্যাপক এবং গণিত এবং কম্পিউটার বিষয়ক অন্যতম এক উচ্চমানের গবেষক, তিনি তার নিজের ব্লগে স্প্যানিশ ভাষায় এক পোস্টে লিখেছেন। তাতে তিনি খুব সহজ ভাষায় এই বিষয়ে যে বিভ্রান্তি এবং মূল ধারার প্রচার মাধ্যমে লিওর প্যাচারেরর পোস্ট যে ভুল এবং নিতান্ত যে অর্থ তৈরী করে তার উদ্বেগজনক দিকটি বর্ণনা করেন। মানব জীন আসলে কি, কি ভাবে জিনগত ভিন্নতা কাজ করে এবং মানব প্রজাতির বিষয়টি সহজ ভাষায় ব্যাখ্যা করার পর তিনি নীচের এই চিন্তা দিয়ে তার প্রবন্ধটির পরিসমাপ্তি টেনেছেন:

A pesar de nuestros problemas sociales y económicos actuales, Puerto Rico tiene mucho de lo cual estar orgulloso. En particular, producimos buenísimos ingenieros, atletas y músicos. Atribuir su éxito a “genes buenos” de nuestra “raza” no sólo es un disparate científico, sino una falta de respeto a estos individuos que a través del trabajo duro, la disciplina y el esmero han logrado lo que han logrado. Si quieren saber si Puerto Rico tuvo algo que ver con el éxito de estos individuos, pregúntenle a un historiador, un antropólogo o un sociólogo y no a un genético. Ahora, si quieren aprender del potencial de estudiar genomas para mejorar tratamientos médicos y la importancia de estudiar una diversidad de individuos, un genético tendrá mucho que compartir.

আমাদের বর্তমান অর্থনৈতিক এবং সামাজিক সমস্যা সত্ত্বেও, গর্ব করার মত অনেক কিছু এখানে আছে। বিশেষ করে আমাদের এখানে অসাধারণ ইঞ্জিনিয়ার, ক্রীড়াবিদ, এবং সঙ্গীতজ্ঞ রয়েছে। তাদের এই কৃতিত্বের জন্য আমাদের শুধু এ জাতির উন্নত জিনকে কৃতিত্ব দিলে এটা কেবল বৈজ্ঞানিক ভাবে অবিশ্বাস্য এক বিষয় হবে না, একই সাথে ওই সকল ব্যক্তির প্রতি অশ্রদ্ধা প্রদর্শন করা হবে, যারা তাদের কঠোর পরিশ্রম, নিয়মানুবর্তিতা এবং কাজের প্রতি উৎসর্গ-থেকে এই সকল গুণাবলী অর্জন করেছে। যদি আপনি জানতে চান এই সকল সফল ব্যক্তির সফলতার পেছনে পুয়ের্টোরিকোর অবদান কতখানি তাহলে এক ইতিহাসবিদ, নৃতাত্ত্বিক অথবা এক সমাজ বিজ্ঞানীকে জিজ্ঞেস করুন, কিন্তু কোন জিন বিজ্ঞানীকে নয়। আর এবার যদি আপনি জিন বিষয়ক গবেষণা চিকিৎসা সেবা উন্নত করার ক্ষেত্রে এবং ব্যক্তির ভিন্নতা গবেষণায় কতটা গুরুত্ব রাখে এই বিষয়ে জানতে চান, সেক্ষেত্রে জেনেটিকসের তুলে ধরার মত অনেক কিছু আছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .