বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

ভিডিও: ব্রিটিশ পাথে-এর সংগ্রহশালায় পুরোনো সময়ের দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া

ব্রিটিশ পাথে একটি মিডিয়া কোম্পানি, যা ১৯১০ থেকে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত যুক্তরাজ্যে চলচ্চিত্র তৈরীর কাজে নিয়োজিত ছিল। উক্ত প্রতিষ্ঠান তার ইউটিউব চ্যানেলে প্রায় ৮০,০০০ বেশী ঐতিহাসিক টুকরো সংবাদ ভিডিও আপলোড করেছে। একই সাথে তাদের সংগ্রহশালায় অজস্র চলচ্চিত্র রয়েছে যা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার রাষ্ট্রসমূহকে তুলে ধরে। এই সমস্ত চলচ্চিত্র হচ্ছে মুল্যবান সম্পদ যা আমাদের এই অঞ্চলের নিকট অতীত এবং এমন কি বর্তমান সমন্ধে শিক্ষা প্রদান করতে পারে। ব্রিটিশ পাথে-এর সংগ্রহ থেকে প্রাপ্ত কিছু কৌতূহলজনক ভিডিও নীচে তুলে ধরা হল:

১. ১৯৫৩ সালে লাওসে চালানো হামলা।

২. ১৯৪৫ সালে মিত্র বাহিনী কর্তৃক ম্যানিলা পুনরুদ্ধার। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষে ম্যানিলা ছিল দ্বিতীয় সবচেয়ে বিধ্বস্ত এক শহর, পোল্যান্ডের রাজধানী ওয়ারস-এর পরে ছিল যার অবস্থান।

৩. ১৯৪৬ সালে বার্মায় (মায়ানমার) অনুষ্ঠিত পানি উৎসব। এই ভিডিও তুলে ধরছে, এখনকার মত তখনও হৈচৈ এবং মজা করে পানি ছিটানো হত।

৪. ১৯৪৫ সালে ইন্দোনেশিয়ার স্বাধীনতা দিবস উদযাপন।

৫. ১৯৪০ সালে ব্যাংককের রাস্তায় অনুষ্ঠিত র‍্যালি। বর্তমান অনুষ্ঠিত সড়ক বিক্ষোভের সাথে তুলনা করলে দেখা যাচ্ছে এই ভিডিওতে প্রদর্শিত সে সময়ের র‍্যালি ছিল শান্তিপূর্ণ এবং শৃঙ্খলিত।

৫. ১৯৭৩-এর ভিয়েতনামের হ্যানয়ের এক স্কুল। ভিডিওর প্রায় শেষের দিকে বোমা হামলা থেকে বাঁচার জন্য নির্মিত আশ্রয় কেন্দ্রটি লক্ষ্য করুন।

৭. ১৯৪৯ সালে অনুষ্ঠিত ভিয়েতনামের নববর্ষ

৮. .১৯৬৯ সালের কম্বোডিয়া

৯. ১৯৫০-এর দশকের সিঙ্গাপুরের নির্বাচন। ১৯৫৯ সালের পর থেকে সিঙ্গাপুরের নির্বাচনে একটি মাত্র দলের আধিপত্য বজায় রয়েছে, লী কুয়ান ইয়ে ছিলেন যে দলের প্রতিষ্ঠাতা।

১০. ১৯৬০ সালে সংঘঠিত ম্যানিলার বন্যা। বন্যা, আজো ম্যানিলার একটি অন্যতম প্রধান সমস্যা।

১১. ১৯৫০-এর দশকের মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুর

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .