বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

“ফিলিস্তিন নামে কোন রাষ্ট্র ছিল না” ?

ফিলিস্তিন এবং আরব অঞ্চলের কয়েকজন টুইটার ব্যবহারকারী মাইক্রোব্লগিং সাইট ব্যবহার করে ‘ফিলিস্তিন নামে কোন রাষ্ট্রের অস্তিত্ব কখনোই ছিল না’ – ইসরায়েলিদের বলা এই অতি প্রচলিত উক্তিকে খণ্ডনের চেষ্টা করছেন। সাবেক ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী গোলডা মেয়ার একবার বলেছিলেন, “ফিলিস্তিনি জনগণ বলে কোন কিছুর অস্তিত্ব নেই”।

২০১১ সালে প্রকাশিত একটি ইউটিউব ভিডিওতে সাবেক ইসরাইলি পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ড্যানি আয়ালন বলেছিলেন, “১৯৬৭ সালে ফিলিস্তিন নামে কোন আরব জাতি বা রাষ্ট্র ছিল না”। এরপর তিনি প্রশ্ন রাখেন, “আসলে কি কখনও ছিল?”

এই উক্তি সম্পর্কে ব্লগার এবং প্রাবন্ধিক জুয়ান কোল লিখেছেনঃ 

ইসরায়েলি রটনাগুলোর মধ্যে কারও দেখা অন্যতম একটি সাধারণ জোরালো উক্তি হচ্ছে, “ফিলিস্তিন নামে কোন রাষ্ট্র ছিল না”। প্রমাণবিহীন এই অদ্ভূত বিবৃতিটি একেবারেই সত্যি নয়। সিদনের দক্ষিণে এবং সিনাইয়ের উত্তরে অবস্থিত একটি ভৌগোলিক এলাকা দীর্ঘদিন ধরেই ফিলিস্তিন নামে পরিচিত হয়ে আসছে। এখানে মধ্যযুগীয় একটি টাকশাল থেকে মুসলিমদের প্রচলিত মুদ্রা তৈরি করা হত। এই মুদ্রাগুলোর গাঁয়ে “ফিলাস্তিন” (ফিলিস্তিন) নামটি খোদাই করে লেখা থাকত। উনিশ শতকে স্থানীয় কয়েকজন লোকের ডায়রি পাওয়া গেছে। ডায়েরিগুলোতে উল্লেখ করা ছিল যে তারা দামস্কাসে ঘুরতে এসেছিলেন। এটাও লেখা ছিল যে তারা কীভাবে “ফিলাস্তিনে” তথা ফিলিস্তিনে যেতে ব্যর্থ হয়েছেন।   

তিনি আরও বলেছেনঃ 

তারা তাদের নিজেদের পক্ষে যা বলছেন তা যদি সত্যি হয়, তবে আসলেই ফিলিস্তিন নামে কোন জাতি বা রাষ্ট্র ছিল না। পরবর্তীতে বন্ধ হয়ে যাওয়া লীগ অব নেশন্স নিদেনপক্ষে এই রাষ্ট্রটি সৃষ্টি করার আগে এটার কোন অস্তিত্ব ছিল না। উনিশ শতকের আগ পর্যন্ত কোন জাতি বা রাষ্ট্রেরই অস্তিত্ব ছিল না। ১৮৬০ সালের আগে “ইতালির” কোন অস্তিত্ব ছিল না। ভেনিস ছিল জেনোয়া ফ্রেঞ্চ অষ্ট্রিয়ার একটি অংশ। ১৮৭০ সালের আগে “জার্মানি” নামে কোন রাষ্ট্র ছিল না। উনিশ শতকের আগে অনেক গুলো ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র রাজ্য ছিল। এসব রাজ্যের কয়েকটি আবার অন্য রাজ্যের শাসনাধীন বা প্রতাপের অধীন ছিল। 

মিশরীয় ঔপন্যাসিক আহদাফ সৌফ গত ১৫ এপ্রিল তারিখে ফিলিস্তিন_নামের_কোন_ রাষ্ট্র_ছিল_না শিরোনামে একটি হ্যাশট্যাগের ব্যবহার শুরু করেছেন। তিনি ব্যবহারকারীদের প্রতি ১৯৪৮ সালের আগে লক্ষ লক্ষ ফিলিস্তিনিকে তাদের ভূমি এবং গ্রাম থেকে জোরপূর্বক উচ্ছেদ করার সময় তখনকার ফিলিস্তিনের জনগণের বিভিন্ন ছবি হ্যাশট্যাগটিতে পোস্ট করার আহ্বান জানিয়েছেনঃ 

১৯৪৮ সালের পূর্বে ফিলিস্তিনিদের শহুরে জীবনের বিভিন্ন ছবি সংগ্রহ করতে ফিলিস্তিন_নামের_কোন_ রাষ্ট্র_ছিল_না শিরোনামে একটি হ্যাশট্যাগ চালু করা হয়েছে।   

হ্যাশট্যাগটি চালু করার কিছু সময় পরেই এটিতে ছবি দেয়া শুরু হয়। 

#ফিলিস্তিন_নামের_কোন_ রাষ্ট্র_ছিল_না #মানচিত্র। আমার দাদার সংগৃহীত ১৯৩৯ সালের ব্রিটিশ মানচিত্রের কপি। 

#ফিলিস্তিন_নামের_কোন_ রাষ্ট্র_ছিল_না এটি ১৯৪০ সালে হাইফাতে বসবাসকারী একজন ইহুদি জার্মান মেয়ের পরিচয়পত্র। সেখানে সিলমোহরে লেখা আছে “ফিলিস্তিন রাষ্ট্র”।  

#ফিলিস্তিন_নামের_কোন_ রাষ্ট্র_ছিল_না ১৯২৪ সালে রামাল্লার নারীদের আরব ইউনিয়ন। 

ত্রিশের দশকে লেবানন এবং ফিলিস্তিনের মধ্যকার চেকপয়েন্ট। অতএব #ফিলিস্তিন_নামের_কোন_ রাষ্ট্র_ছিল_না ? 

1927 Palestinian Coin

১৯২৭ সালের ফিলিস্তিন মুদ্রা 

১৯৪৩ সালে ফিলিস্তিন সম্প্রচার কেন্দ্র ইয়াফাতে লরে দাক্কাস। @আরওয়া_থ আহমেদ ম্রোওয়াতের সংগ্রহশালা অবলম্বনে।  

পুরাতন ফিলিস্তিনি পত্রিকা। তাহলে আপনারা কি করে বলেন, ফিলিস্তিন_নামের_কোন_ রাষ্ট্র_ছিল_না ? 

রামাল্লায় একটি বিয়ের অনুষ্ঠান। 

ব্যবহারকারী আলি হুসেন আল হেলু ১৯৩৯ সালে অস্ট্রেলিয়া এবং ফিলিস্তিনের মাঝে হওয়া একটি ফুটবল খেলার একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন। 

অস্ট্রেলিয়া বনাম ফিলিস্তিনের ফুটবল খেলা (১৯৩৯):

হাইথাম সাব্বাহ ১৯০০ সালেরও আগের ফিলিস্তিনি জীবনের আরও বেশ কিছু ছবির জন্য ছবির একটি তালিকা সংকলন করেছেন। 

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .