বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

২৩৯ জন যাত্রীবাহী মালয়েশীয় বিমান নিখোঁজ

Malaysian Airline. Flickr photo by planegeezer (CC License)

মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন। ছবি প্লেনগিজার-এর ফ্লিকার ছবি (সিসি লাইসেন্স)

গত ৮ মার্চ সারা দুনিয়ার সংবাদ মাধ্যমের খবর ছিল যে চীনগামী মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের একটি বিমান নিখোঁজ হয়েছে। কুয়ালালামপুর থেকে বেইজিং এর উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া ফ্লাইট নম্বর এমএইচ৩৭০ এর যাত্রার এক পর্যায়ে এয়ার ট্রাফিক নিয়ন্ত্রকের সঙ্গে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। কর্তৃপক্ষ এখনও বিমানটির অবস্থান শনাক্ত করতে পারেনি। বিমানটিতে ২২৭ জন যাত্রী ও ১২ জন কেবিন ক্রু ছিল।

দি গার্ডিয়ান সংবাদপত্রের ভাষ্যমতে ভিয়েতনামের আকাশসীমায় বিমানটি রাডার সংযোগ হারায়।

এয়ারলাইনটির ফেসবুক পাতায়  বিদ্যমান পরিস্থিতি নিয়ে এখন পর্যন্ত অনেকগুলো সাম্প্রতিক সংবাদ পাওয়া গেছে। প্রতিষ্ঠানটির সি ই ও আহামাদ জওহারি ইয়াহিয়া-ও একটি বিবৃতি প্রদান করেছেনঃ

আমরা গভীর দুখের সাথে জানাচ্ছি যে রাত ১২:৪১ মিনিটে কুয়ালালামপুর ত্যাগ করা  বেইজিং গামী ফ্লাইট নম্বর ৩৭০ –এর সাথে  আমরা সকল ধরণের যোগাযোগ হারিয়েছি।

বেইজিং এর স্থানীয় সময় সকাল ৬:৩০ মিনিটে বেইজিং আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে বিমানটির অবতরণের জন্য নির্ধারিত ছিল।

সুবাং এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল জানায় আজ রাত্র ২:৪০ মিনিটে(মালয়েশিয়ার স্থানীয় সময়) তারা বিমানটির সঙ্গে সংযোগ হারায়।

ফ্লাইট এমএইচ ৩৭০ বোয়িং বি ৭৭৭-২০০ বিমানের মাধ্যমে পরিচালিত হত।

ফ্লাইটটিতে যাত্রী ও ক্রুসহ মোট ২৩৯ জন ছিল – এর মধ্যে ২২৭ জন যাত্রী (২ জন শিশুসহ), ১২ জন ক্রু সদস্য ছিল। যাত্রীরা ১৩ টি ভিন্ন দেশের নাগরিক।

বিমানটিকে শনাক্ত করা ও উদ্ধার করার কাজে নিয়োজিত কর্তৃপক্ষের সাথে ইতোমধ্যেই মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্স কাজ শুরু করেছে।

আমাদের দল এর মধ্যেই যাত্রী ও ক্রুদের আত্মীয়-স্বজনের সাথে কথা বলছেন।

এয়ারলাইন আরেকটি সংবাদবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানিয়েছে  ঐ বিমানের চালক ক্যাপ্টেন জাহারি আহমাদ শাহ- এর ১৮,৩৬৫ উড্ডয়ন ঘণ্টার অভিজ্ঞতা রয়েছে।

টুইটারে অনেকেই তাঁদের উদ্বেগ প্রকাশ করেছেনঃ

৭৭৭-২০০এস কুয়ালালামপুর থেকে সাংহাই গামী মালয়েশীয় এয়ারলাইন্স @এমএএস এ বহুবার ভ্রমন করেছি। দুঃসময়ে সবার সাথে আমিও চিন্তিত। — পিটার ম্যাকগিনলে (@পিটারম্যাকগিনলে) ৮মার্চ, ২০১৪

মালয়েশীয় বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার একাধিক প্রতিবেদন পাওয়া যাচ্ছে কিন্তু আনুষ্ঠানিকভাবে নিশ্চিত করে কিছু বলা হয় নি http://t.co/tE3HWmeNBt তাজাসংবাদ — ক্রিসল দাবু (@ক্রিসলজেজেডদাবু) ৮ মার্চ, ২০১৪

মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট উধাও। ঠিক একারনেই আমি আকাশে উড়তে ভয় পাই — জোনাথন ওলেক (@জোনাথনওলেক) ৮মার্চ,২০১৪

প্রার্থনা করি যেন মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের বিমান বিধ্বস্ত না হয় এবং ২৩৯ জন মানুষের সবাই যেন নিরাপদ থাকে— সি০০১০ আর। (এফ_সিকেওহিওএসটি) ৮মার্চ,২০১৪

বিমান শিল্প ও যারা বিমানে ছিলেন তাঁদের জন্য খুবই দুঃখজনক ঘটনা! বিবিসি নিউজ- বেইজিং গামী মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্স সকল যোগাযোগ হারিয়েছে — স্টেফান চিমালো (@এসচিমালো) ৮ মার্চ, ২০১৪

এ ঘটনায় মালয়েশীয় প্রধানমন্ত্রী, নাজিব রাজাক টুইটারে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেনঃ

আমার চিন্তা ও প্রার্থনা ফ্লাইট #এমএইচ৩৭০ এর পরিবারের সদস্যদের জন্য। সকল ধরনের পদক্ষেপ নেয়ার জন্য আমি বলেছি। – মোহাম্মদ নাজিব তুন রাজাক (নাজিবরাজাক) ৮মার্চ, ২০১৪

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে বিমানটি দক্ষিন চীন সাগরে বিধ্বস্ত হয়েছে, যদিও এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত এ বিষয়ে কোন সরকারি ঘোষণা পাওয়া যায় নি।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .