বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ভেনেজুয়েলাঃ বিক্ষোভকারীর মোবাইল ফোন জব্দ করেছে পুলিশ

ভেনেজুয়েলাতে পুলিশ এবং নিরাপত্তা কর্মকর্তারা প্রতিবাদকারী এবং আটক-বন্দীদের মোবাইল ফোন জব্দ করেছে বলে বেশ কয়েকজন রিপোর্ট করেছেন। যেহেতু ভেনেজুয়েলার রাস্তাঘাটে পনের দিন ধরে প্রতিবাদ কর্মসূচী চলছে, তাই প্রতিবাদকারীরা মনে করে পুলিশ তাদের ব্যক্তিগত তথ্য উপাত্ত পর্যালোচনা করছে, প্রতিবাদকারীদের বিভিন্ন ছবি এবং ভিডিও মুছে দিচ্ছে। পুলিশ প্রতিবাদকারীদের পরিবার এবং বন্ধুবান্ধবদের কাছে বিভিন্ন বার্তা পাঠাচ্ছে। একজন ভেনেজুয়েলান আইনজীবী ও আইন বিষয়ক প্রফেসর জোসে ভিসেন্তে হারো আটককৃত শিক্ষার্থীদের পক্ষে কাজ করছেন। তিনি টুইট করেছেনঃ 

সিআইসিপিসিতে আটক-বন্দীদের কাছ থেকে তাদের মোবাইল ফোন [পুলিশ কর্তৃক] কেড়ে নেওয়া হয়েছে। তারা বলেছে যে সোমবারে তাদের মোবাইল ফোনগুলো ফেরত দিয়ে দেওয়া হবে। তাদের ফোনে থাকা তথ্যসমূহ তারা পর্যালোচনা করছে।  

গত সপ্তাহ থেকে বিভিন্ন স্থান থেকে খবর আসছে যে পুলিশ কর্মকর্তারা শিক্ষার্থীদের সেলফোন ব্যবহার করে তাদের পরিবার এবং বন্ধুবান্ধবদের কাছে দুরভিসন্ধিমূলক বিভিন্ন বার্তা পাঠাচ্ছে। এই প্রতিবাদ কর্মসূচীতে অংশ নেওয়া একজন শিক্ষার্থী হচ্ছেন এদোয়ার্দো লিসচিনস্কি। তিনি বলেছেনঃ 

তারা আটক-বন্দী শিক্ষার্থীদের বন্ধুবান্ধব এবং পরিবারের সাথে কৌতুক করতে তাদের সেলফোন ব্যবহার করছে। কেননা তাদের বন্ধুবান্ধব ও পরিবারের সদস্যরা তাদের সাথে দেখা করার চেষ্টা করছে। 

ম্যারি মেনাও নামের একজন তদন্তকারী রিপোর্টারকে আটক করা হয়েছে। তিনিও বলেছেন যে কমপক্ষে দুইজন সাংবাদিককে আটক করা হয়েছে। জাতীয় নিরাপত্তা কর্মকর্তারা তাদেরও সেলফোন জব্দ করেছেঃ 

সাংবাদিক @জেপিবিআইইআরআইএল এবং @পেরেজভ্যালের১৭ কে আটক করা হয়েছে এবং তাদের সেলফোন জব্দ করা হয়েছে। @এস্পাশিওপাবলিকো এবং @আইপিওয়াইএসভেনেজুয়েলা বিষয়ে সতর্ক থাকুন।  

আটক-বন্দীদের আত্মীয়স্বজনদের সাথে কথা বলার পর সাংবাদিক লুইসকার্লোস ডায়াজ সত্য বলে ধরে নিয়েছেন যে পুলিশ এবং জাতীয় নিরাপত্তা কর্মকর্তারা শুধুমাত্র ঠাট্টা করার জন্য তাদের সেলফোন জব্দ করেনি, বরং তাদের ছবি, ভিডিও এবং প্রতিবাদের অন্যান্য প্রমাণাদি মুছে ফেলার উদ্দেশ্যেই এমনটি করেছেঃ 

ভেনেজুয়েলাতে আরেকটি দমনমূলক পদক্ষেপ হিসেবে আটক-বন্দীদের ফোন কেড়ে নেওয়া হচ্ছে। তাদের বিভিন্ন ছবি, ভিডিও মুছে দিতে এবং ব্যক্তিগত তথ্যাদি পর্যালোচনা করতে এমনটি করা হচ্ছে। 

এই প্রতিবাদ কর্মসূচীর মাঝখানে এবং সেন্সরকৃত প্রচার মাধ্যম থাকা সত্ত্বেও ভেনেজুয়েলার নাগরিকেরা প্রতিবাদ কর্মসূচী এবং তাদের প্রতিবাদ পরবর্তী দমননীতি বিষয়ক ছবি, ভিডিও এবং তথ্য শেয়ার করতে ইন্টারনেটের দিকে মোড় নিয়েছে। কারাকাসের শাকাও জেলাতে প্রতিবাদকারীরা প্রতিবাদের সবচেয়ে নৃশংস এলাকা হিসেবে কিছু ভিডিও বিরতিহীনভাবে প্রকাশ করেছে। ফেব্রুয়ারি মাসের ১৮ তারিখ পর্যন্ত ২,৩০,২২৫ জন লোক এই ভিডিওটি দেখেছে। 

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .