বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ভেনেজুয়েলাঃ তাকিরাতে ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন

ভেনেজুয়েলায় ১৬ দিন ধরে প্রতিবাদ কর্মসূচী পালনের পরও শেষ পর্যন্ত ৩৬ ঘন্টার জন্য তাকিরা রাজ্যে ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছে। টুইটার ব্যবহারকারীরা এবং নিউজ ওয়াবসাইটগুলো রিপোর্ট করেছে, এ এলাকাতে বিদ্যুৎ সংযোগও বিচ্ছিন্ন করার উপক্রম হয়েছিল। ভেনেজুয়েলার রাষ্ট্রীয় সংবাদপত্র এল ইউনিভার্সাল ২১ ফেব্রুয়ারি তারিখে টুইট করেছেঃ 

রাত ১০:৫৯ মিনিটে তাকিরা রাজ্য থেকে প্রতিবেশীরা রিপোর্ট করেছেন যে সিএএনটিভি থেকে ইন্টারনেট সেবা বিহীন অবস্থায় তারা ২৪ ঘন্টা কাটিয়েছেন। 

মোইসেস মালদোনাদো নামের তাকিরার একজন প্রকৌশলী টুইট করেছেনঃ 

তাকিরাতে আমরা ইন্টারনেট, পানি, বিদ্যুৎ, খাবার, গ্যাসোলিন, [গণ] পরিবহন ব্যবস্থা, বাণিজ্য বিহীন অবস্থায় ছিলাম। কিন্তু আমারা সজাগ ছিলাম, যা এই মুহূর্তে ভেনেজুয়েলার সবচেয়ে বেশি দরকার। 

তাকিরাতেই প্রতিবাদ কর্মসূচিটি প্রথম শুরু হয়েছে। এই রাজ্যটিতে প্রতিবাদ কর্মসূচীর বিরুদ্ধে নৃশংস দমননীতি বিশেষভাবে প্রকট হয়ে উঠেছে। অনেকেই রিপোর্ট করেছে, সামরিক বাহিনীর হেলিকপ্টার তাদের মাথার উপর দিয়ে যাতায়াত করছে। নটিসিয়েরো২৪ টুইট করেছেনঃ 

তাকিরাঃ ইন্টারনেট না দিয়ে সামরিক বাহিনী পাঠানো হয়েছে। ফ্লাইওভারগুলো ফিরে এসেছে এবং ব্যারিকেডগুলো এখনো বহাল রয়েছে। 

ভেনেজুয়েলাতে এই মাত্রার ইন্টারনেট ব্ল্যাকআউট নজিরবিহীন। কিন্তু ওয়েব বন্ধ করে দেয়ার ঘটনা নজিরবিহীন নয়। যেহেতু গত ছয় মাসে মুল্যস্ফীতি শতকরা ৫০ ভাগের উপরে উঠে গেছে, এন মাসে তাই বিদেশী মুদ্রার মূল্য নির্ধারণ সাইটগুলো বন্ধ করে দিয়েছে। গত সপ্তাহ থেকে আন্দোলনটি ধাপে ধাপে তীব্রতর হওয়ায় খবর ও রাজনৈতিক ইস্যুগুলো সংগ্রহকারী কয়েক শত ব্লগ এবং ওয়েবসাইট বন্ধ করে দেয়ার খবর পাওয়া গেছে। টুইটার এবং জনতা-উৎসারিত মঞ্চ, হার্ডিকটে থাকা ব্লগ এবং ওয়েবসাইটগুলো মূলত: বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। সারা দেশ জুড়ে থাকা এসব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীরা এক সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে রিপোর্ট করেছে যে টুইটারে ঢুকতে তাদের বেশ অসুবিধা হচ্ছে। নাটকীয়ভাবে দেশের সব জায়গাতেই ইন্টারনেটের গতি ধীর হয়ে গেছে।

সবচেয়ে সমসাময়িক এই ঘটনায় নাগরিকদের কেউ কেউ ব্যাখ্যা করেছেন যে শুধুমাত্র সরকার-চালিত আইএসপি সিএএনটিভি অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে। আর এ কারণেই তারা শুধুমাত্র মোবাইল সংযোগের মাধ্যমে ওয়েবে প্রবেশ করতে পারছেন। কিন্তু অন্যান্যরা বলেছেন, তারা অন্যান্য আইএসপি ব্যবহার করেও অনলাইনে প্রবেশ করতে পারছেন না। সাংবাদিক লরেনা আরাইজ টুইট করেছেনঃ 

এবিএ থেকে সেবা না পেয়ে ইন্টারনেট সংযোগ ছাড়া ২৪ ঘন্টা অতিবাহিত হতে চলেছে। 

দু’দিন অন্ধকারে থাকার পরে ইন্টারনেট সেবা আবার ফিরে এসেছে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী ম্যানুয়েল ফারনান্দেজ এই সংযোগ বিচ্ছিন্নতার জন্য ক্ষমা চেয়েছেন। তিনি বলেছেন, “উত্তর তাকিরাতে এবং সান ক্রিস্টবালে কিছু সমস্যা” হয়েছিল। “শহরটির বেশ কিছু জায়গাতে আগুন লাগায়” সাময়িক এই সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। 

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .