বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

জাপানের নুতন মহাবিশ্ববিজ্ঞান সরকারি বিদ্যালয়ে মেয়েরা অনুমোদিত নয়

Photo taken at Jaxa Space Center in Tsukuba by Phil Knall (CC BY-NC)

সুকুবার জাক্সা মহাকাশ সেন্টার থেকে ছবিটি তুলেছেন ফিল নাল (সিসি বাই-এনসি) 

জাপান অ্যারোস্পেস অনুসন্ধান এজেন্সির (জেএএক্সএ) সহযোগিতায় জাপানে একটি নুতন পাবলিক বিদ্যালয় স্থাপন করা হয়েছে। বিদ্যালয়টি মহাবিশ্ববিজ্ঞান বিষয়ে শিক্ষা প্রদানের ক্ষেত্রে বিশেষায়িত। সমগ্র জাপান থেকে শিক্ষার্থী সংগ্রহ করতে কাগোশিমা প্রশাসনিক এলাকার সর্বদক্ষিণে অবস্থিত সামুদ্রিক জলবেষ্টিত উপদ্বীপে বিদ্যালয়টি স্থাপন করা হয়েছে।

বিদ্যালয়টি উচিনৌরা মহাশূন্য কেন্দ্র থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। ২০১৫ সালের এপ্রিল মাস থেকে বিদ্যালয়টিতে ৭ম শ্রেণী থেকে ১২শ শ্রেণী পর্যন্ত পাঠ দান করা হবে। এটিই প্রথম একটি বিদ্যালয় হতে যাচ্ছে যেখানে সকল ছাত্রদেরকে আবাসিক হলে বসবাস করতে হবে।

এই খবরের প্রেক্ষিতে ওয়েব ব্যবহারকারীদের মাঝে বেশ ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। টুইটার ব্যবহারকারী রিরিরি একজন শিক্ষার্থী। তিনি বেশ উত্তেজনা নিয়ে মন্তব্য করেছেনঃ

এমন একটি বিদ্যালয় যেখানে “মহাবিশ্ববিজ্ঞান” পড়ানো হবে, এটি অভাবনীয়। শুনতে বেশ উত্তেজনাপূর্ণ মনে হচ্ছে। আমি আশা করি এমন একটি বিদ্যালয় মহাশূন্য কালের ভবিষ্যত বিষয়ে নেতৃত্ব প্রদানে জাপানকে সাহায্য করবে! 

ব্যবহারকারীদের কেউ কেউ এই বিদ্যালয়টি এবং টুইন স্পিকা নামের একটি ধারাবাহিক কমিকস বইয়ের মাঝে সংযোগ স্থাপন করেছেন। কমিকস হচ্ছে উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়ুয়া একদল জাপানিজ শিক্ষার্থীদের সম্পর্কে একটি বিজ্ঞান কল্পকাহিনী। তাদেরকে নভোচারী হবার জন্য বিদ্যালয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। এই কমিকস বইটির প্রধান চরিত্র হচ্ছে আসুমি কামোগাওয়া নামের একজন ছাত্রী। সে টোকিও মহাকাশ একাডেমিতে ভর্তি হয়ঃ

TwinSpica

আসুমি কামোগাওয়া অভিনীত মাঙ্গা ভলিউম ফিচারিং প্রথম টুইন স্পিকার কভার ফটো।[ছবিটি উইকিমিডিয়া, @মিডিয়াফ্যাক্টরি থেকে পাওয়া] 

এটি আমাকে টুইন স্পিকারের কথা মনে করিয়ে দিয়েছে। 

মনে হচ্ছে, আমার মতো আরো অনেক জনকেই এটি টুইন স্পিকারের কথা মনে করিয়ে দিয়েছে। 

যাইহোক, বিজ্ঞান কল্পকাহিনী ভিত্তিক কমিকস বইয়ের বর্ণিত বিদ্যালয়টি এবং এই নুতন পাবলিক বিদ্যালয়টির মাঝে একটি বিশেষ ইঙ্গিতপূর্ণ পার্থক্য আছেঃ শেষোক্তটিতে শুধুমাত্র ছেলেরা ভর্তি হতে পারবে।   

টুইটার ব্যবহারকারী এপিআইসিএ [জাপানিজ] বিস্মিত হয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেনঃ 

বিদ্যালয়টি বেশ কল্পনা সমৃদ্ধ। কিন্তু এটি শুধুমাত্র ছেলেদের জন্য হবে কেন? যেখানে আমাদের এতো নারী নভোচারী রয়েছে। অন্যান্য আরো অনেক উচ্চ বিদ্যালয় আছে, যেখানে ছেলে ও মেয়েরা একই আবাসিক হলে বসবাস করে থাকে!  

হাতেনা বুকমার্ক ব্যবহারকারী উনিম্মো সংশয় প্রকাশ করে মন্তব্য [জাপানিজ] করেছেন, হয়তোবা বিদ্যালয়টি অনিচ্ছাকৃতভাবে নারীদের প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণ করছেঃ   

女性は宇宙にふさわしくないとでも?

আপনারা কি বলতে চাইছেন যে মহাকাশ নারীদের জন্য নয় ? 

ইয়ুকি বিবেচনা করে বলেছেন, হতে পারে সিদ্ধান্তটি লিঙ্গ সম্পর্কে চিন্তা করে নেয়া হয়নি, বরং অর্থনৈতিক দিকটি ভাবা হয়েছেঃ 

যেখানে নারী নভোচারী রয়েছে, সেখানে এমন একটি ব্যাপার দুঃখজনক। হতে পারে শুধুমাত্র খরচের জন্য এটি কেবলমাত্র ছেলেদের জন্য করা হয়েছে।  

যেভাবেই হোক, খবরটি অনলাইনে লিঙ্গ বৈষম্য ইস্যুটিকে উস্কে দেয়নি। যদিও অনেক ব্যবহারকারীই এই সীমাবদ্ধতা নিয়ে তাদের হতাশা ব্যক্ত করে চলেছেন। ছেলেদের একচ্ছত্র আধিপত্য থাকা সত্ত্বেও এই অনুপম বিদ্যালয়টি ক্রমাগতভাবে মহাকাশ প্রিয় ইন্টারনেটবাসীদের মনোযোগ আকর্ষণ করে চলেছে।   

শিরোনাম সহ এই পোস্টটি সহ-সম্পাদনা করেছেন এল.ফিঞ্চ

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .