বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

গৃহবন্দী দিবসের ১০০০ তম দিন

Three Green Movement Leaders under House Arrest, source:Rahesabz

গ্রীন মুভমেন্ট আন্দোলনের তিনজন নেতা গৃহবন্দী হয়ে রয়েছে। সুত্রঃ রাহেসাবজ

ইরান বিক্ষোভ যা সারা বিশ্বের মনোযোগ আকর্ষণ করেছিল, যেটিতে লক্ষ লক্ষ নাগরিক রাস্তায় নেমে এসেছিল, সেই বিক্ষোভের তিন নেতৃস্থানীয় ব্যক্তি প্রায় ১০০০ দিনের বেশী সময় ধরে গৃহবন্দী হিসেবে নিজ গৃহে আবদ্ধ হয়ে রয়েছে। ১২ নভেম্বরে ২০১৩ তারিখে মীর হাসান মৌসভী, তার স্ত্রী যাহরা রাহনাইয়ারদ এবং মেহদি কারোবি কোন শুনানি অথবা অভিযোগ ছাড়াই গৃহবন্দী হিসেবে ১০০০ তম দিবস অতিবাহিত করলে।

২০০৯ সালের বিতর্কিত রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের পর গ্রীন মুভমেন্ট নামক আন্দোলন উত্তাল হয়ে ওঠে যে নির্বাচনে মাহমুদ আহমাদিনেজাদ পুনরায় রাষ্ট্রপতি হিসাবে নির্বাচিত হন। ১,০০০ তম দিবসের সপ্তাহটিতে বেশ কয়েকজন ব্লগার, সংবাদ ওয়েবসাইট, এবং একটিভিস্ট সাইট যেমন রাহেসবাজ (ছবি দেখুন) এই তিন নেতাকে স্মরণ করেছে।

নয় কোন শুনানি, নয় কোন তাজা বায়ু

এক ভিডিও বার্তায়, মেহেদি কারোবির স্ত্রী ফাতেমা কারোবি জানাচ্ছেন যে তার স্বামীর স্বাস্থ্যগত সমস্যা রয়েছে যা গৃহবন্দী অবস্থায় আরো খারাপ আকার ধারণ করেছে [তাকে এমন এক ভবনে রাখা হয়েছে যা তার মূল বাসভবন থেকে বিচ্ছিন্ন] এবং তিনি তাজা বাতাস থেকে বঞ্চিত [দৃশ্যত: তার ঘরের সকল জানালা বন্ধ]। ফাতেমা গুরুত্ব প্রদান করেছেন যে এই ক্ষেত্রে কোন শুনানি অনুষ্ঠিত হচ্ছে না।

“আশা, সব শেষে যার মৃত্যু ঘটে”

মারায়াম ঘাসেমি টুইট করেছে:

যদি আপনি ১,০০০ দিন গুনতে শুরু করেন তাহলে একদিন বিরক্ত হয়ে যাবেন। যদি আপনি প্রতিদিন দেওয়ালে লাইন আঁকতে শুরু করেন, তাহলে ১,০০০ দিন পরে দেওয়ালে আর আঁকার জন্য জায়গা খুঁজে পাবেন না।

১,০০০ দিনটিকে চিহ্নিত করে আলী নেমাতি সাহাব একটি টুইট করে আমাদের “ ইতিহাস থেকে শিক্ষা নেবার” বিষয়টি আমাদের স্মরণ করিয়ে দেন:

[আলেকজান্ডার] ডুবচেক [ চেকোস্লোভাকিয়ার সংস্কারপন্থী নেতা] প্রাগের বসন্ত বিপ্লব পুনরায় জাগ্রত হওয়ার জন্য ২০ বছর অপেক্ষা করেছিলেন। তিনি সাধারণ বলতেন “আশা হচ্ছে সর্বশেষ বিষয় যার মৃত্যুবরণ ঘটে”।

আরশা বাহমানি টুইট করেছে:

বিগত ৩৪ বছরে যারা বাধ্যতা পূর্বক ইরান ত্যাগ করেছে [ বিপ্লবের পর থেকে] আসুন আমরা একই সাথে তাদের জন্য #بشمر1000 হ্যাশট্যাগে টুইট করি [ যার অর্থ হচ্ছে ১,০০০ পর্যন্ত গণনা করা]

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .