বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

অনশন ধর্মঘট শুরু করলেন এক কারাবন্দী ব্লগারের মা

Hossein Ronaghi Maleki and his mother Zoleykha

হুসেইন রোনাঘি মালেকি এবং তাঁর মা জুলেখা দুজনই এখন অনশন ধর্মঘট পালন করছেন। ছবিঃ ফেসবুক প্রচারাভিযান পাতা থেকে 

আশাবিহীন একজন মায়ের নাম জুলেখা মুসাভী। ​​কারাবন্দী ইরানী ব্লগার হুসেইন রোনাঘি মালেকির মা তিনি। প্রায় দুই সপ্তাহের জন্য তিনি অনশন শুরু করেছেন। “তার বক্তব্য” অনুযায়ী, মিসেস মুসাভী গত মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৩ তারিখ থাকে তিনি অনশন শুরু করেন।

হুসেইন রোনাঘি মালেকি ১৫ বছরের কারাদণ্ড ভোগ করছেন। তাকে সমর্থন করার জন্য একটি ফেসবুক প্রচারাভিযান চালু করা হয়েছে।

প্রচারাভিযান পাতায় আমরা প্রথম যে জিনিসটি পাই তা হচ্ছেঃ “হুসেইনের জীবন বিপদের মধ্যে আছে, আজ তাকে আমাদের সমর্থন করা উচিৎ। কিন্তু তার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার নায়ক হিসেবে কেউ কথা বলবেন না।”

ফেসবুকে একটি সাম্প্রতিক পোস্ট আমাদের জানিয়েছে, “হুসেইনের মা অনশন শুরু করেছেন। কারণ, কর্তৃপক্ষ তার পুত্রের অনশন এবং অবস্থার প্রতি মনোযোগ দিচ্ছে না।”

পোস্টটি এই পরিস্থিতিতে নীরব না থাকতে কর্মীদের উৎসাহ দেয়।

তাঁর ক্রমশ ভেঙে পড়া স্বাস্থ্য অবস্থা সম্পর্কে অনেক চিন্তাগ্রস্থ। কারণ, হুসেইন ইতোপূর্বে কিডনি ও মুখের সমস্যায় এবং অনেক ব্যথায় ভুগেছেন। গোয়েন্দা মন্ত্রণালয়ের এজেন্ট দ্বারা একজন অভিশংসকের কাছে স্বীকার করতে বাধ্য করার জন্য তিনি কীভাবে নির্যাতনের শিকার হন সে বিষয়ে তিনি একটি চিঠি লিখেন। কিন্তু চিঠিটি বাজেয়াপ্ত করা হয়।

কোন প্রতিহিংসা অথবা প্রতিশোধ নয়

জেল থেকে একবার কিছু দিনের জন্য ছাড়া পাওয়ার পর হুসেইন এই বলে একটি ভিডিও আপলোড করেন যে, যদি আমরা দেশের পরিস্থিতির পরিবর্তন আনতে চাই, তাহলে আমাদের চরম পরিস্থিতিতে যেতে হবে…  কোন প্রতিহিংসা ছাড়াই হাতে হাত দিয়ে এগুতে হবে।আমাদের বিচারবুদ্ধি এবং উদারতার সাথে গড়ে উঠতে হবে। কারণ, ইরানকে সব ধরণের বৈষম্য থেকে মুক্ত রাখা উচিৎ। আমাদের প্রতিটি কাজ ইরানের উপর প্রভাব ফেলতে পারে এবং আমরা সবাই এর জন্য দায়ী।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .