বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

মিশর কভার করতে আসা সাংবাদিকরা গুলি, গ্রেফতার এবং হুমকির শিকার

সরকারি বাহিনী আজ কায়রোয় মুসলিম ব্রাদারহুডের বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। সে হিসেবে মিশরে অবস্থানরত সাংবাদিকরাও আছে দুর্ভোগে।

পরস্পরবিরোধী রিপোর্ট অনুযায়ী, উৎখাত হওয়া প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসির সমর্থকদের দুটি অবস্থান সমাবেশ শক্তি দিয়ে দমিয়ে রাখা হয়েছে। মুরসি ছিলেন মুসলিম ব্রাদারহুডের জ্যৈষ্ঠ সদস্য এবং আগাম নির্বাচন ও পদত্যাগ করার আহ্বান জানিয়ে তার বিরুদ্ধে ব্যাপক বিক্ষোভ শুরু হলে গত ৩ জুলাই তারিখে তার এক বছরের শাসনামল শেষ হয়।

সপ্তাহ ধরে মুরসি এবং মুসলিম ব্রাদারহুডের সমর্থকরা নাসার সিটির রাব্বা আল আদাওয়াতে এবং কায়রো বিশ্ববিদ্যালয় কাছাকাছি আল নাহদা স্কয়ারে তার ফিরে আসার “বৈধতা” চ্যালেঞ্জ জানিয়ে অথবা মিশরের আইনগতভাবে নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট হিসেবে মুরসির পুনর্বহালের দাবি জানিয়ে অবস্থান সমাবেশ করছে।

রয়টার্সের কায়রো প্রতিবেদক টম ফিন পরিস্থিতি দেখার জন্য রাব্বা আল আদাওয়াতে প্রবেশ করার চেষ্টা করেন। তার পরপরই তিনি টুইট করেনঃ

গ্রেপ্তার হয়ে যাচ্ছি।

তিনি আরও লিখেনঃ

সৈন্যরা দুই আলোকচিত্রীর ক্যামেরা নিয়ে যায় এবং তাদের সব ছবি মুছে ফেলে।

সৈন্যরা শান্তভাবে বলে, আমরা আমাদের কাজ করছি। সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ এবং আমাদের দেশকে রক্ষা করছি।

তারা আমাদের ছেড়ে দেয়।

এছাড়াও রাব্বার কাছাকাছি থাকা বেল থ্রিউ টুইট করেছেন:

হেলিকপ্টারগুলো চক্কর দিচ্ছে। রাস্তার সব পার্শ্ব থেকে গুলি করা হচ্ছে। সাংবাদিকরা আটকা পড়েছে এবং তাঁদেরকে গুলি করা হচ্ছে।

খুব শীঘ্রই তিনিও সেরকম পরিস্থিতির সম্মুখীন হনঃ:

রাব্বা অবস্থান সমাবেশে ঢোকার চেষ্টা করলে আমাদের লক্ষ্য করে এই মাত্র গুলি করা হল। গাড়ির পিছনে নত হয়ে আছি। #মিশর 

তিনি আরও বলেছেনঃ

আমাদের উপর পাখির মত গুলি করা হচ্ছে। @লেল্ভেলুক এবং @আলাস্টার_বিচ সামান্য আঘাত পেয়েছে (বাকিরা ভালো আছে)। আমি খুব অল্পের জন্য বিপদ থেকে রক্ষা পাই। একবারে ঠাসা।

ওয়াশিংটন পোস্ট এর প্রতিবেদক আবিগেইল হাউস্লোনার বেশি অগ্রসর হতে পারেননি। তিনি ব্যাখ্যা করেছেন:

পুলিশ উপস্থিত দর্শক ও সাংবাদিকদের লক্ষ্য করে আগুন ও টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করেছে। তারা আমাদের দিকে তাজা গোলাবারুদ ছুঁড়েছে। আমরা আটকা পড়ে গেছি।

এছাড়াও একজন পুলিশ অফিসার তাঁকে হুমকি দিয়েছেন:

শুরুতে পুলিশ কর্মকর্তা আমাকে বলেন, আমি আমার নোটবুকের মধ্যে লিখে তাকে ” জ্বালাতন” করছি। এখন বলছেনঃ “যদি আপনাকে আবার দেখি তাহলে আমি আপনার পায়ে গুলি করব”।

সবচেয়ে ভীতিকর একটি টুইটে ​​তিনি বলেছেন:

আমার আইফোন প্রায় নষ্ট হয়ে গেছে। বিরোধী অভ্যুত্থান জোট থেকে মোহাম্মদ সুলতান এইমাত্র এ যে ই’কে বলল, একজন ক্যামেরাম্যান এখান থেকে সরাসরি সম্প্রচার করছিল বিধায় তাঁকে গুলি করা হয়। #রাব্বা 

কায়রো টেলিগ্রাম সাংবাদিক সামের আল আট্রুশ সরাসরি গুলির মুখে পড়েছিলেন:

আমি চলাফেরা করছিলাম। বন্ধুরা, আমার কাছ থেকে মাত্র ১০ মিটার দূরে গুলি করা হয়।

মিশর সম্পর্কে আরও সংবাদ জানতে আমাদের সাথে থাকুন।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .