বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

বাধ্যতামূলক বিধ্বংসের প্রতিবাদ করায় তাইওয়ানি অধ্যাপক গ্রেফতার

তাইওয়ানের মিয়াওলি কাউন্টিতে ঝুনান বিজ্ঞান পার্ক বর্ধিতকরণের জন্য বাধ্যতামূলকভাবে বাড়ি-ঘর বিধ্বংসের প্রতিবাদে একজন তাইওয়ানি অধ্যাপকসহ কয়েকজন শিক্ষার্থী গ্রেফতার হয়েছে।

গত ২৩ জুলাই, ২০১৩ তারিখে ন্যাশনাল চেঙচি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূমি অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক সু শিহ-ঝুং(徐世榮) যখন চীৎকার করে “আজ তোমরা তাইপু ধ্বংস করেছো, আগামিকাল তোমরা সরকার ধ্বংস করবে” – এই স্লোগান দিচ্ছিলেন, তখন তাইপে পুলিশ কর্মকর্তারা তাঁকে গ্রেফতার করে। তাঁকে স্থানীয় পুলিশ স্টেশনে নিয়ে যাওয়া হয় এবং জনগণকে বিপদগ্রস্ত করার অভিযোগে অভিযুক্ত করে। পরবর্তি দিন তাঁকে মুক্তি প্রদান করা হয় এবং তাঁর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ থেকে মুক্তি প্রদান করা হয় কারন পুলিশ কর্তৃক আনীত অভিযোগের বিষয়ে জুরিরা একমত পোষণ করেন নি।

ঝুনানে ধান ক্ষেত বাজেয়াপ্ত করণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদকারীদের সাথে সমঝোতা সভায় সু একজন অন্যতম প্রতিনিধি ছিলেন এবং ২০১০ সালের আগস্ট মাসে এই প্রতিবাদের ৭২ বছর বয়সী একজন মহিলা আত্মাহুতি দিলে তাইওয়ানের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী উ ডেন-ইয়েহ এর নেতৃত্বে যে এক্জিকিউতিভ ইউয়ান গঠিত হয় তিনি তাঁর প্রতিনিধি ছিলেন। ঐ সভায় সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় যে বিজ্ঞান পার্কের সীমানা সংলগ্ন চারটি পৃথক পরিবারের মালিকানায় যে চারটি বাড়ি রয়েছে তা সংরক্ষণ করা হবে।

যদিও তাইওয়ানের বর্তমান উপ- রাষ্ট্রপতি উ ডেন-ইয়েহ- এর সম্মতিক্রমেই মিয়াওলি কাউন্টির সরকার বাড়ি ভাঙ্গার উদ্দেশ্যে ওই চারটি পরিবারকে ৫ জুলাই ২০১৩ এর আগেই বাড়ি ছাড়ার নির্দেশ দেয়।

Protestors painted a huge mural on the wall of Chang's house. Photo taken by Taiwan Rural Front from.

প্রতিবাদকারীরা চ্যাং- এর বাড়ির দেওয়ালে বড় একটি দেওয়ালচিত্র আঁকেন। ছবি- তাইওয়ান রুরাল ফ্রন্ট ফ্রম-এর সৌজন্যে।

মিয়াওলি সরকারের চুক্তিভঙ্গের কারনে বিক্ষোভ সৃষ্টি হয় এবং দুই সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে বিক্ষোভকারীরা বাড়িগুলোর আশেপাশে অবস্থান নিয়ে ভাঙ্গার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলে। বাড়ি ছাড়তে যে চারটি পরিবার অস্বীকৃতি জানিয়েছে তাঁদের মধ্যে চ্যাং অন্যতম। সেখানে চ্যাং-এর একটা ফার্মেসি আছে। তাঁদের বাড়িগুলি জাস্টিস রোড ও লাভ রোডের মিলনস্থলে অবস্থিত। বর্তমানে এ স্থানটি বিক্ষোভের প্রতীকে পরিণত হয়েছে।

গত ১৮ জুলাই বেশিরভাগ বিক্ষোভকারী যখন তাইপের রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে যায় তখন মিয়াওলি কাউন্টি কমিশনার লিউ চেঙ- হুন বাড়ির সামনে জমায়েত হওয়া বাদবাকী বিক্ষোভকারীদের অপসারণের নির্দেশ দেন এবং কিছু খননকারীকে বাড়িগুলো ভেঙ্গে ফেলার নির্দেশনা দেন। বাড়িগুলো ভেঙ্গে ফেলার পরেও কিছু বিক্ষোভকারী স্থান ত্যাগে অস্বীকৃতি জানান এবং বিক্ষোভ অব্যাহত রাখেন।< ২০১০ সালে অধ্যাপক সু শিহ-ঝুং সালিশ বৈঠকে অংশগ্রহণের পর ১৬ জুলাই তিনি তাঁর ব্লগে ব্যখ্যা করেন যে ঝুনানের ভূমি অধিগ্রহণ তাইওয়ানের সংবিধান পরিপন্থী। তিনি গত ১৮ জুলাই তাইপেতে বিক্ষোভে অংশগ্রহণ করেনঃ

土地是人們溫馨及賴以為生的家園,絕不可隨意予以侵害。那麼,何時才能剝奪?[…]必須是符合《憲法》第23條「促進公共利益」才得以為之。何謂公共利益?吳庚前大法官一針見血的指出[…]「在多元社會須持續的透過公開討論形成共識」才是公共利益,但我國現行相關的計劃體制卻嚴重缺乏這樣的思維與設計,致使基本人權遭致嚴重剝奪。

বাড়িঘর ও পরিবার বিনির্মাণের জন্য জনগণ তাঁদের ভূমির উপর নির্ভরশীল, এ ধরনের অধিকার কখনও লঙ্ঘিত হয় না। এ ধরণের অধিকারের অপব্যবহার তখনই করা যাবে যদি সংবিধানের ২৩ অনুচ্ছেদের সংশ্লিষ্ট অংশ সংশোধন করা যায়ঃ “গণ আকাঙ্ক্ষা বর্ধিতকরণ”। গণ স্বার্থ কি? প্রধান বিচারপতি উ কেং – চিয়েন বলেন […] “বহুমুখী সমাজে গণ বিতর্কের মধ্য দিয়ে যে ঐকমত্য গড়ে উঠে তাই গণ আকাঙ্ক্ষা। যদিও আমাদের নগর পরিকল্পনা এ ধারণার সাথে অভ্যস্ত নয়। আর একারণেই আমাদের মৌলিক মানাবাধিকার ব্যাপকভাবে লঙ্ঘিত হচ্ছে।

我國相關計劃體制對於公共利益之決定,仍然停留於威權時代的委員會專制模式,也就是由少數人所組成的都市計劃委員會、區域計劃委員會、土地徵收審議委員會等來決定。

তাইওয়ানে নগর পরিকল্পনার সংজ্ঞা নগর পরিকল্পনা কমিটির সংখ্যালঘু রাজনৈতিক অভিজাত, স্থানীয় পরিকল্পনা কমিটির কিছু সদস্য, এবং ভূমি অধিগ্রহণ কমিটির কিছু সদস্যের আধিপত্যে সংজ্ঞায়িত হয়। এটা কর্তিত্ববাদী শাসনামলের অবশেষ।

在這些委員中屬「主管業務機關首長或單位主管」及「有關業務機關首長或單位主管或代表」,就幾乎佔了一半[…]因此真正的多數其實是政府行政官僚。首長不僅沒有利益迴避,也幾乎完全掌控議案同意權,這表示公共利益少數人即可掌握生殺大權。

এই কমিটিগুলোর অর্ধেক সদস্যই প্রশাসনিক ইউনিট এবং সংশ্লিষ্ট সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে আগত। […] প্রকৃতপক্ষে বেশিরভাগ সদস্যই সরকারি লোক। এই নেতৃস্থানীয় ক্যাডারেরা স্বার্থের সংঘাতকে এড়িয়ে চলে না। এছাড়া এই নেতৃস্থানীয় ক্যাডারেরা এ ধরনের প্রকল্প পাশের বিষয়ে সবসময় চাপ প্রয়োগ করে। কাজেই তথাকথিত গণ স্বার্থ মুষ্টিমেয় কিছু সদস্যদের দ্বারাই নিয়ন্ত্রিত হয়।

Sit-in protest after the house was torn down. Photo taken by Taiwan Rural Front.

বাড়ি ধ্বংসের পর অবস্থান প্রতিবাদ। ছবি- তাইওয়ান রুরাল ফ্রন্ট-এর সৌজন্যে।

সিটিজেন মিডিয়া আউটলেট তাইওয়ান গুড লাইফ- এর স্বতন্ত্র প্রতিবেদক এবাউটফিশ দেখিয়েছেন যে বিজ্ঞান পার্ক বর্ধিতকরণের সিদ্ধান্ত স্থানীয় সরকারের ঋণকে বাড়িয়ে তুলবে। মিয়াওলি কম্যুনিটির সদস্যরা এ প্রকল্প থেকে লাভবান হবে না। তাছাড়া অধিবাসীদের প্রত্যেককে ৭৩,০০০ নতুন তাইওয়ান ডলার (আনুমানিক প্রায় ২,৩২০ মার্কিন ডলার) এর সরকারি ঋণের বোঝা বহন করতে হবে। মিয়াওলির সরকারি ঋণ ৪১ বিলিয়ন নতুন তাইওয়ান ডলার (১.২৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার)-এ পৌছেছে এবং সম্ভাব্য ঋণ ১০.৩ বিলিয়ন নতুন তাইওয়ান ডলার (৩৩.৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) এ উন্নীত হবে।

এবাউটফিশের প্রতিবেদনের সমর্থনে অধ্যাপক সু স্থানীয় সরকারের ভূমি অধিগ্রহণের আগহকে ব্যখ্যা করেনঃ

政府財政赤字嚴重,所需財源由何而來?政府不僅不敢對政經權勢優位者下手,而且還給予各式各樣的減免與優惠;但面對社會弱勢時,卻是強勢介入,隨意取走他們的土地。透過區段徵收,地方政府約略可取得三分之一的土地,經由這些土地的標售與讓售來彌補財政。再者,地方派系的主要利基乃是土地投機炒作,透過區段徵收也可遂行鞏固及拉攏樁腳的政治目的。

ঘাটতি বাজেট মোকাবেলায় সরকার কিভাবে অর্থ উপার্জন করতে পারে? সম্পদশালী এবং ক্ষমতাবান লোকেদের কাছ থেকে অর্থ আদায়ের বিষয়ে সরকার সাহস করে না বরঞ্চ সরকার তাঁদেরকে মউকুফ করে ও তাঁদের প্রতি পক্ষপাতমূলক আচরণ করে। অপরদিকে সরকার অধিকারবঞ্চিত সংখ্যালঘুদের জীবনে জোরপূর্বক প্রবেশ করে চুক্তির তোয়াক্কা না করে তাঁদের জমি নিয়ে যায়। আংশিক ভূমি অধিগ্রহণের মাধ্যমে স্থানীয় সরকার চাইলে এক তৃতীয়াংশ ভূমি অধিগত করতে পারে। বাজেট ঘাটতি মোকাবেলায় তাঁরা এ ভূমি বিক্রি করে দিতে পারবে। উপরন্তু স্থানীয় স্বার্থান্বেষী মহল সাধারণতঃ রিয়াল এস্টেটে বিনিয়োগ করে টাকা কামাতে চায়।ধাপে ধাপে দখলচ্যুত করার মাধ্যমে স্থানীয় গভর্নর স্থানীয় স্বার্থান্বেষী মহলের সাথে দৃঢ় সম্পর্ক নির্মাণ করতে পারেন এবং তার বিনিময়ে জয়লাভের জন্য রাজনৈতিক সমর্থন নিশ্চিত করতে পারেন।

অধিকৃত ভূমি ফেরত প্রদান, কেলেঙ্কারিগুলো তদন্ত এবং সংশ্লিষ্ট আইন সংশোধনের জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানিয়ে প্রতিবাদ অব্যাহত রয়েছে।

Professor Hsu was yelling: Today you demolished Taipu, Tomorrow we demolish the government, when the police dragged him away. Photo taken by 陳韋綸 from <coolloud.org. Non-commercial use.

পুলিশ অধ্যাপক সু-কে টেনে নিয়ে যাওয়ার সময় চিৎকার করে বলেনঃ “আজ তোমরা তাইপু ধ্বংস করেছো, আগামিকাল তোমরা সরকার ধ্বংস করবে”। ছবি- কুললাঊড.অর্গ এর 陳韋綸 -এর সৌজন্যে। অবাণিজ্যিক ব্যবহারের জন্য।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .