বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

লেবাননে অনলাইনে জুয়া কি প্রবেশযোগ্য নয় ?

গত মাসে ব্লগ বালাদি – তে রিপোর্ট করা হয়েছে যে লেবাননে জুয়ার সাইট বন্ধ করে দেয়া হয়েছে:

লেবাননে জুয়া ও তাস খেলার সাইটগুলোতে যে আর প্রবেশ করা যাচ্ছে না, তা আমার নজরে এসেছে। আমি অনলাইনে একটু খুঁজলাম এবং কিছু ওয়েবসাইট খুলতে চেষ্টা করলাম। এবং নিশ্চিতভাবে সেগুলোতে ঢোকা যাচ্ছিল না। স্পষ্টরূপে আইন মন্ত্রণালয় (…) জুয়ার সাইটগুলো বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়।

এরপর কিছু দিন পর টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী @নিকোলাসসেহনাউই এর কাছে @মোনাজেম টুইটারে ইস্যুটি তোলেনঃ

@মোনাজেমঃ কোন আইনের অধীনে #লেবাননে অনলাইন জুয়া বন্ধ করা হয়েছে? এমনটি করার অধিকার কার আছে? আমরা শুধুমাত্র আপনার @নিকোলাসসেহনাউই কাছেই এর উত্তর চাই।

মন্ত্রী তাঁর উত্তরে বলেছেন, আইনটির সাথে সম্মতি রাখার জন্য এমনটি করা হয়েছে। যদিও তিনি এটাও স্পষ্ট করেছেন যে তিনি এ সিদ্ধান্তে সম্মত নন।

@নিকোলাসসেহনাউইঃ @মোনাজেম আইনটি ক্যাসিনো ডু লিবানকে জুয়ার ক্ষেত্রে একচেটিয়া অধিকার দেয়। উচ্চতম বিচারক এই আদেশটি দিয়েছেন। ১/২

@নিকোলাসসেহনাউইঃ @মোনাজেম আমি সিদ্ধান্তটির বিরুদ্ধে তাকে বোঝানোর চেষ্টা করতে তাঁর কাছে গিয়েছিলাম, কিন্তু তাকে বোঝাতে পারিনি। ২/২

@সিগমা – এর ব্যাখ্যা অনুযায়ী তিনি ১৯৯৫ সালের একটি আইনের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, লেবানিজ সীমান্তের অভ্যন্তরে সকল ধরনের জুয়া কার্যের ক্ষেত্রে একচেটিয়া অধিকার দেয়া হয়েছে ক্যাসিনো ডু লিবানকে (লেবাননের একমাত্র বৈধ ক্যাসিনো):

@সিগমাঃ @মোনাজেম ২৯ জুন ১৯৯৫ সালের ৬৯১৯ ডিক্রির অধীনে “জনগনের নৈতিকতা রক্ষা” করতে ক্যাসিনো ডু লিবানকে সকল ধরনের জুয়া কার্যের জন্য একচেটিয়া অধিকার দেয়া হয়েছে।

মোহাম্মাদ নাজেম লক্ষ্য করেছেন, এটা আরো বেশী করে পাতনের একটি অবাধ্য এবং উদ্বেগজনক চক্রের সূচনা করতে পারে।

@মোনাজেমঃ @সিগমা লেবানিজ ভূখন্ডে থাকবে এবং জেড অনলাইন ক্ষেত্রে থাকবে না। অন্যথা, বিভিন্ন কারনে অন্য ধরনের ওয়েবসাইটগুলোও বন্ধ করা শুরু হবে।

অন্যান্য টুইটার ব্যবহারকারীরা তাঁদের উদ্বেগ শেয়ার করেছেন, যা একটি মজার কথোপকথনে রূপ নিয়েছে।

@ওয়ালাসমার অনলাইন ক্ষেত্রে জাতীয় প্রণীত আইনসমুহ প্রয়োগের বিপদসমুহ সম্পর্কে সকলের চোখের সামনে তুলে ধরেছেনঃ

@ওয়ালাসমারঃ @মোনাজেম @নিকোলাসসেহনাউই ইস্যুটি এই যে তিনি আগামীকাল সব ব্লগগুলো বন্ধ করতে প্রচার মাধ্যম আইন ব্যবহার করতে পারেন, কেননা এটি প্রেস সিন্ডিকেটের কোন অংশ নয়।

এবং @রালফাউন সম্ভাব্য একটি পিচ্ছিল ঢালের বিষয়ে সতর্ক করে দিয়েছেনঃ

@রালফাউনঃ @আবিরঘাত্তাস @ওয়ালাসমার @মোনাজেম এখন বন্ধ হল তাস খেলার সাইটগুলো, পরবর্তিতে প্রাপ্ত বয়স্কদের সূচীগুলো, এরপর ব্লগগুলো, তারপর…

কিছু পরিপ্রেক্ষিতেঃ

@রালফাউনঃ @আবিরঘাত্তাস @ওয়ালাসমার @মোনাজেম ইউরো ইন্টারনেট ফোরামে বিতর্ক একমাত্র যে জিনিসটি বন্ধ করা যেতে পারে তা হচ্ছে শিশু পর্নোগ্রাফি

আলোচনার মাধ্যমে দেখান হয়েছে এই সিদ্ধান্তগুলো (ভার্চুয়াল) বাস্তবতা থেকে কতোটা বিচ্ছিন্ন …

@লেনাজিবঃ @রালফাউন @আবিরঘাত্তাস @ওয়ালাসমার @মোনাজেম এটা শুনতে খুব হাস্যকর যে ইন্টারনেটে বিভিন্ন জিনিস বন্ধ করে দেয়া হয়েছে, যেন এটা সম্ভব এবং অনুমোদনযোগ্য।

@আবিরঘাত্তাসঃ সাদর সম্ভাষণ ভিপিএন @লেনাজিব @রালফাউন @ওয়ালাসমার @মোনাজেম

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .