বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ইন্টারনেট ব্যবহারে আরও কড়াকড়ি আরোপ করল ইরান

Source: Mahmoud Reza Nourbakhsh

সূত্রঃ মোহাম্মদ রেজা নূরবাকশ

বেশ কিছু রিপোর্ট বলছে যে, ইরানী শাসকরা ইতিমধ্যেই ব্যাপকভাবে সেন্সর করা ইন্টারনেট নিয়ন্ত্রণে অন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করছে। আইটিইরানের একটি রিপোর্ট অনুযায়ী [ফার্সী ভাষায়], সাইফন, কেরিও এবং ওপেন ভিপিএন ইত্যাদি ফিল্টারিংভেদী সফ্টওয়্যার ইরানী সরকারের ওয়েবসাইট ব্লক করার ক্রমাগত প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে আর কার্যকর নয়।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, অনেক ওয়েবসাইটে প্রবেশাধিকার সীমাবদ্ধ করা হয়েছে, ইন্টারনেট গতি রুঢ়ভাবে কমে গেছে। কিছু লোক এটিকে একটি ইরানী জাতীয় ইন্টারনেট চালুর প্রতি একটি ধাপ বলে বিবেচনা করছেন। আবার অন্যরা বলছেন, আগামী জুনে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন বলে তারা ইন্টারনেটে তাদের নিয়ন্ত্রণ বাড়াতে চাইছেন।

ইরানী নেটিজেনরা এই দু:খজনক ঘটনায় তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন:

‘ইন্টারনেট ফিল্টারিং এর বিরুদ্ধে যুদ্ধ’ ব্লগটি বলেছে [ফার্সী ভাষায়]:

সমস্যাটি ৪ ঠা মে, শনিবার থেকে শুরু। ফিল্টারিং বিরোধী সফ্টওয়্যার ব্যবহার করলেই আপনি সমস্যার সম্মুখীন হবেন এবং ইন্টারনেট সংযোগ বিঘ্নিত হবে।

@শবারএমজেড টুইট করেছেন [ফার্সী ভাষায়]:

“ঈশ্বরের চেয়েও ফিল্টারিং আপনার কাছাকাছি।” যোগাযোগ মন্ত্রণালয়

কিছু নেটিজেন সরাসরি ইরানী শাসকদের উদ্দেশ্য করে বলেছেন।

@বাবাকারাম টুইট করেছেন [ফার্সী ভাষায়]:

আপনি গর্বিত কারণ, আপনার অন্যতম শক্তিশালী একটি সাইবার সৈন্যবাহিনী রয়েছে যেটি আপনি শুধুমাত্র সীমাবদ্ধতা এবং ফিল্টারিং এর জন্য ব্যবহার করেন।

একই ব্যক্তির অন্য টুইট বলছে, কখনও কখনও কর্তৃপক্ষ বলে অনেক দেশই ফিল্টারিং এর সম্মুখীন হয় এবং এটা একটা স্বাভাবিক ব্যাপার।

@মাহতাব টুইট করেছেনঃ

আমরা যখন বৃদ্ধ হয়ে যাব, তখন নাতি-নাতনিদের আমদের বৃদ্ধ হয়ে যাবার পেছনের গল্প শোনাব। বলব ফিল্টারিংই হচ্ছে এর কারণ।

ব্লগার আন্দারবাবা বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা ইরানিদের রাজনৈতিক মতামত যাই হোক না কোন, ইন্টারনেট ফিল্টারিং এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদের জন্য তাঁদের উৎসাহ দিয়েছেন।

ইরানী ফিল্টারিং শুধুমাত্র ইরানিদের জন্যই উদ্বেগের বিষয় না। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক জন কম্পিউটার গবেষক কলিন ডি অ্যান্ডারসন, ইরানী সেন্সরশীপ বিষয়ে নিয়মিত টুইট করেন। যারা ভার্চুয়াল ইরানের বাস্তব পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে চান তাঁদের সকলের জন্য পরিস্থিতির উপর এটি একটি বাস্তব বাতায়ন।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .