বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ইরানে অপারেশনে এনেসথেশিয়া প্রদানকারীর সংখ্যা আশঙ্কাজনকভাবে কমে গেছে

Firoozeh Mozafari's cartoon for Iranian news website khabaronline, Translation of the words: [Doctor to Patient]: "Sir, please cooperate and get unconscious. We need to do our job!"  source: http://khabaronline.ir/detail/282196/comic/cartoon

ইরানের অনলাইন পত্রিকা খবর অনলাইন-এ প্রকাশিত ফিরোজে মোজাফারি’স–এর কার্টুন। যেখানে লেখা আছে [ডাক্তার রোগীকে বলছে]: “জনাব, দয়া করে সহায়তা করুন এবং অজ্ঞান হয়ে যান। আমাদেরকে আমাদের কাজ করতে হবে!”

ইরানের হাসপাতালগুলোয় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে যখন দেশটির চিকিৎসা বিভাগের কর্মকর্তারা ১৫ মার্চ, ২০১৩ তারিখে এই বিষয়টি নিশ্চিত করেছে যে ইরানে রোগীদের জীবন রক্ষাকারী অপারেশনে জাতীয় পর্যায়ে রোগীকে এনেসথেশিয়া প্রদানকারী ডাক্তারের সংখ্যার আশঙ্কাজনক ভাবে কমে গেছে।
তেহরানের ফার্মাসিস্ট খাইরুল্লাহ ঘোলামির উক্তি যা কিনা সর্বত্র আলোচিত হচ্ছে, যেখানে তিনি বলেন, “যদি এ রকম পরিস্থিতি বজায় থাকে, তাহলে আসলেই আমরা জানি না আমাদের কি করা উচিত। রোগীকে হাতুড়ি দিয়ে অজ্ঞান করা যায় না।”
ইরানের নেট নাগরিক এবং ব্লগাররা এতে তাদের প্রতিক্রিয়ার প্রদর্শন করেছে, একজন প্রখ্যাত ভিন্নমতাবলম্বী মানা নেইয়াস্তানি নীচের এই কার্টুনটা মার্ডোমাক ওয়েবসাইটের জন্য তৈরী করেছে:

মানা নেইয়াস্তানির কার্টুন। যেখানে ডান থেকে বামে লেখা আছে ১) ” সৌন্দর্য্য সৃষ্টিকারীরা তাদের সেরাটা করেছে…” ২) ” একদা এক সিংহ জঙ্গলে বাস করত….” ৩) [রোগী] ” গোল্লায় যাক আপনার বরাদ্দ!” — [সংবাদপত্রে ছাপা শব্দ] ” এনেসথেশিয়া সংস্থার প্রধান: ” এনেসথেশিয়া ডাক্তাররা এখন দুর্লভ। “

ইরানের ব্লগার দারা, সকল দিক থেকে নাগরিকদের সুবিধা প্রদান করতে ব্যর্থ হওয়ায় ইসলামিক প্রজাতন্ত্রের শাসকদের সমালোচনা করেছেন:

সারা দেশে হাসপাতালসমূহে এনেসথেশিয়া ডাক্তারের অভাবে অপারেশন কক্ষগুলো বন্ধ রয়েছে। চীন থেকে আনা ভুয়া পেনিসিলিন দেশবাসীর জীবন হরণ করছে। আমেরিকান ডলারের মূল্য বাড়তে বাড়তে ৩৫,০০০ রিয়ালে এসে দাঁড়িয়েছে, আর জিনিষপত্রের প্রচন্ড মূল্যবৃদ্ধি একটা পর্যায়ে এসে দাড়িয়েছে, তাতে দেখা যাচ্ছে মানুষ সাম্প্রতিক সময়ের মধ্যে এবারের [নওরোজের ] সবচেয়ে কম কেনাকাটা করেছে। আর এ রকম একটা সময়ে কেউ কেউ নির্বাচনে অংশ নেওয়ার কথা বলছে। আসলেই আপনারা আমাদের কাছে কাকে নির্বাচনের আশা করেন, যখন আমাদের নেতারা সকলে ইতোমধ্যে সকল কিছুর যত্ন নিতে শুরু করেছে? […] কাকে আমি ভোট দেব, যখন এমন কি আমি অপারেশন রুমে কোন এনেসথেশিয়ার ডাক্তারকে পাচ্ছি না?

মোহসেন সাজাগারা টুইট করেছে:

তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসা বিভাগের এক উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তার মতে যদি পরিস্থিতি এ রকম অপরিবর্তিত থাকে, তাহলে আমাদের এই সকল অপারেশন রুম বন্ধ করে দিতে বাধ্য হতে হবে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .