বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ডব্লিউসিআইটি জাগরণের ডাকঃ ইন্টারনেট তদারকির জন্য আলোচনা প্রসারের সময়

বিশ্ব নেতৃবৃন্দ ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে দুবাইতে আন্তর্জাতিক টেলিযোগাযোগ সম্মেলনে (ডব্লিউসিআইটি) মিলিত হচ্ছেন, এবং আপনি যে দৃষ্টিকোণ থেকেই এটিকে দেখুন না কেন ইন্টারনেট এর ভবিষ্যৎ এর উপর নির্ভর করছেন।

গত কয়েক মাসের বেশি সময় ধরে, নাগরিক সামাজিক দলের একটি অংশ এই সম্মেলনের সম্ভাব্য ফলাফল সম্পর্কে সতর্ক করেছে করেছে- এবং যথেষ্ট কারণ দেখিয়ে, যেহেতু আন্তর্জাতিক টেলিযোগাযোগ আইনের, কিছু প্রস্তাবনা যেগুলো অনলাইন সেন্সরশিপ ও মানবাধিকার হরণের জন্য পরিচিত বিভিন্ন দেশ কর্তৃক প্রবর্তিত, সেগুলো বিশ্বে ইন্টারনেটকে যথেষ্ট প্রভাবিত করতে পারে যদি এগুলো কার্যকর হয়। মার্কিন সরকার এতে আরো কিছু দেশের নেতাদের সাথে যোগদান করেছে, এবং তারা ইন্টারনেট তদারকির জন্য আইটিইউর কর্তৃত্ব হ্রাসের চেষ্টা চালিয়ে যাবে। যুক্তরাষ্ট্রের জন্য সর্বোত্তম সম্ভাব্য ফলাফল হল এই অবস্থা চালিয়ে নেয়া, যেহেতু মার্কিন প্রতিষ্ঠান এবং কোম্পানিগুলো বর্তমানে ইন্টারনেট তদারকির ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করছে।

কিন্তু দুবাইতে প্রাথমিক আলোচনায় আরেকটি বিষয় ডব্লিউসিআইটিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার এ বিতর্কে পরিষ্কার হয়ে গেছে। অনেক দেশ, বিশেষ করে দক্ষিণাঞ্চলের দেশগুলো যারা ইন্টারনেটকে উন্নয়নের প্রয়োজনীয় অংশ হিসেবে ধারণা করে, তারা বর্তমান ইন্টারনেট তদারকি প্রক্রিয়ায় অখুশি। এটি ধারণা করা যায় যে এই দেশগুলো রাশিয়া, চীন আর ইরানের সমর্থিত, যারা আইটিইউকে ইন্টারনেট নিয়ন্ত্রণের উপযোগী বলে মনে করে, কিন্তু এটি তাদেরকে একত্রিত করার ক্ষেত্রে বাধা হতে পারে।

এটি পরিষ্কার যে পরিবর্তন প্রয়োজন, যদিও এই মতৈক্যে দেখা যাচ্ছে যে আইটিইউ এই পরিবর্তন করার উপযোগী নয় । তারপরও, ডব্লিউসিআইটিতে এই সমাবেশে বাক্যবিনিময়ের সুযোগ রয়েছে। এই সম্মেলনে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী দলগুলোর কর্মকাণ্ড উৎসাহমূলক কিন্তু এটি লজ্জাজনক হবে যদি তা ১৪ ডিসেম্বর বন্ধ হয়ে যায়। দুবাইতে major issues on the table অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আলোচনা চলছে, চলমান ইন্টারনেট তদারকি বিষয়ে কথা হবে না। নাগরিক সমাজ, শিল্প, এবং সরকারের জন্য আরো উন্নত, আরো বহুমুখী কার্য সম্পাদনের এটাই সময় যা শুধু ইন্টারনেটকে রক্ষা করবে না, বরং নতুন উন্নয়ন ই প্রথাকে বহুদূর এগিয়ে নিয়ে যাবে।

ওপেন টেকনোলজি ইন্সটিটিউট এবং গ্লোবাল পার্টনার্সআইটিইউ কি?” এর একটি নতুন সংস্করণে এই বার্তা ছড়িয়ে দিতে একজোট হয়েছে, যা মূলত অ্যাকসেস অ্যান্ড ফাইট ফর দি ফিউচার কর্তৃক নির্মিত।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .