বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

হাঙ্গেরি: রামিল সাফারভের মামলা পরিচালনার ক্ষেত্রে সরকারের সমালোচনা

বিচারের জন্য রামিল সাফারভকে আজারবাইজানের হাতে তুলে দেওয়ায় মনে করা হচ্ছে যে সে  সেখানে যাবজ্জীবন দণ্ড ভোগ করতে পারবে (গত শুক্রবার হাঙ্গেরিয় সরকার তার সরকারি বিবৃতিতে [হাঙ্গেরি ভাষা] এমনটাই দাবি করে)।  আজারবাইজান এ দোষী সাব্যস্ত খুনিকে ক্ষমা করে দেয়। এরপর থেকে আর্মেনিয়া হাঙ্গেরির সাথে কূটনৈতিক সম্পর্কচ্ছেদ করে।

বুদাপেস্টে ন্যাটো কোর্সে অংশগ্রহণকালে ২০০৪ সালে গুরজেন মারগারান নামের একজন আর্মেনীয় নাগরিককে হত্যার দায়ে সাফারভকে গ্রেফতার করা হয়।

এ ঘটনায় হাঙ্গেরি সরকার  বেশ সংবেদনশীল দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েছে। সাফারভ মামলায় হাঙ্গেরীয় ব্লগাররা দেশের এই চরম দুঃখ জনক কূটনৈতিক বিভাজনে তাঁদের হতাশা ব্যক্ত করেছেন। (আর্মেনীয় ও আজারবাইজেনীয় ব্লগারদের একটি জিভি প্রতিবেদন দেখুন এখানে।)

আর্মেনিয়ার রাজধানী ইয়েরেভানে হাঙ্গেরি দূতাবাসের সামনে আয়োজিত বিক্ষোভে রামিল সাফারভের ছবিতে আগুন।

আর্মেনিয়ার রাজধানী ইয়েরেভানে হাঙ্গেরি দূতাবাসের সামনে আয়োজিত বিক্ষোভে রামিল সাফারভের ছবিতে আগুন। ছবি- স্টিভ স্টোরে, স্বত্ব © ডেমোটিক্স (৩১/০৮/২০১২)।

অরুলুঙ্ক, ভিন্সেন্ট? ব্লগ জানায় [হাঙ্গেরি]:

জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের বৈঠকের পর, আর্মেনিয়ার রাষ্ট্রপতি সারজ সারজসিয়ান ঘোষণা করেন যে তিনি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়কে আদেশ দিয়েছেন যাতে আর্মেনীয় সেনাবাহিনীর ইউনিটগুলো বিশেষ সতর্কাবস্থায় থাকে, একই সঙ্গে তিনি ঘোষণা করেন যে হাঙ্গেরির সাথে কূটনৈতিক ও অন্যান্য সম্পর্ক বহাল থাকবে। বাহ হাঙ্গেরির কূটনীতিতে এটা এখন পর্যন্ত বড় ধরণের সাফল্য। আমরা আগে কখনই কোন রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়ি নি। […]

হাঙ্গেরি সরকার কর্তৃক আজারবাইজানের সাথে সাড়ম্বরপূর্ণ অর্থনৈতিক সম্পর্ক উন্নয়ন কে কেট্টোস মার্সে তার ব্লগে ঠাট্টা করে প্রতিক্রিয়া [হাঙ্গেরি ভাষায়] ব্যক্ত করেছেনঃ

[…] কিন্তু মোদ্দা কথা হল আজেরি সরকার প্রতিশ্রুতি প্রদান করে যে ঐ তরুণের যাবত জীবন দণ্ড বহাল থাকবে। আজ আজেরি নিউজ এজেন্সির প্রতিবেদনে জানা যায় যে ঐ তরুণ আজেরি রাষ্ট্রপতির নিকট থেকে দণ্ড মওকুফ পেয়েছে। পূর্ব দুয়ার খোলা রাখার নীতি দীর্ঘজীবী হোক, হাঙ্গেরির সুনাম এবং দাম দিয়ে কেনা সত্য দীর্ঘজীবী হোক।

ভাস্টাগবর  ব্লগ সাইটে বর্তমান পরিস্থিতিতে প্রধান সংবাদের শিরোনাম ছিল “ টাকার জন্য সবকিছু”[হাঙ্গেরি ভাষায়]:

২০০৪: ঝিরিনি মিলকোস জাতীয় প্রতিরক্ষা বিশ্ববিদ্যালয়ের আজেরি ছাত্র রামিল সাফারোভ তার আর্মেনীয় সতীর্থকে কুড়ালের আঘাতে হত্যা করে। তার দেশে সে একজন বীর, কারন তাদের মতে একজন আর্মেনীয়কে হত্যা করা [খাম খেয়ালী] মজার বিষয়।

২০০৬: হাঙ্গেরির আদালত রামিল সাফারভকে যাবজ্জীবন সাজা দিয়েছে। আজারবাইজান ক্রমাগতভাবে তাকে বিচারের জন্য আজারবাইজানে সমর্পণের দাবি জানিয়ে আসছে, কিন্তু হাঙ্গেরি সরকার প্রত্যাখ্যান করছে।

জুলাই ২০১২: ভিক্টর অরবান [হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী] আজারবাইজানে: “কাস্পিয়ান সাগর এলাকায় একান্ত সহযোগিতা”।

জুলাই ২০১২:  বাকুতে দুই দিনের সফরে [হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রীর মুখপাত্র] পিটার জিজার্তো অর্থনৈতিক উন্নয়ন বিষয়ক আজেরি মন্ত্রীর সাথে আলোচনা করেন।

আগস্ট ২৩, ২০১২: ফিগইয়েলো [সাপ্তাহিক] পত্রিকা জাতীয় অর্থনীতি মন্ত্রণালয়ের একটি ঘনিষ্ট সূত্রের বরাতে জানায় যে আজারবাইজান ২ অথবা ৩ বিলিয়ন ইউরো মূল্যমানের ২- অথবা ৩- বছর মেয়াদি হাঙ্গেরীয় বণ্ড কিনতে পারে যা দেশটির এই বছরের জন্য পরিকল্পিত বৈদেশিক মুদ্রায় বন্ড ইস্যুর সিংহভাগ পূরণ করবে।

আগস্ট ২৫,২০১২: আর্মেনীয় এন জি ও গুলো রামিল সাফারভ যিনি আজেরি কুড়াল হত্যাকারী বলে খ্যাত এবং অপরাধের জন্য হাঙ্গেরিতে যার যাবজ্জীবন দণ্ডাদেশ হয়েছে তাকে বিচারের জন্য সম্ভাব্য সমর্পণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছে।

আগস্ট ৩১, ২০১২: আজ [জনপ্রশাসন ও বিচার মন্ত্রণালয়], আজারবাইজানের দাবির প্রতি সম্মতি জানিয়েছে, সাজাপ্রাপ্ত খুনিকে বাকুতে স্থানান্তর করা হবে, যদিও “আজেরি মন্ত্রণালয় জানিয়েছে [জনপ্রশাসন ও বিচার মন্ত্রণালয় কে] যে তাঁরা সাফারভের শাস্তি পরিবর্তন করবে না, কিন্তু সরাসরি হাঙ্গেরির দণ্ড বিধান অনুযায়ী সাজা ভোগ করবে।

আর্মেনিয়ার সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থগিত করার বিষয়ে এখন পর্যন্ত হাঙ্গেরির পক্ষ থেকে কোন সরকারি বিবৃতি পাওয়া যায় নি, হাঙ্গেরির সামাজিক প্রচার মাধ্যম ব্যবহারকারীরা বন্দী বিনিময়ের নিন্দা জানিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিবৃতি প্রচার করছে।

হাঙ্গেরি সরকারের সমালোচনা করে ইংরেজি ভাষায় মন্তব্যের বন্যার কারণে প্রধান মন্ত্রী ভিক্টর অরবানের আনুষ্ঠানিক ফেসবুক পাতায় মন্তব্য করা কে নিষ্ক্রিয় করে রাখা হয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হাঙ্গেরি দূতাবাসের  ফেসবুক পাতাতেও কঠোর মন্তব্য করা হয়েছে।

ওয়াশিংটন ডিসিতে অবস্থিত হাঙ্গেরি দূতাবাসের সামনে আরসেন খারাতান নামের একজন প্রতিবাদকারী পোস্টার হাতে ধরা নিজের ছবি শেয়ার করেছেন, পোস্টারে লেখা ছিল, “ ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বিনিময়ে হাঙ্গেরির বিচার কিনুন।”

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .