বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ক্যামেরুন: অলিম্পিক গেমস থেকে পলায়ন- এর জন্য পদ্ধতিকে দায়ী করুন, খেলোয়াড়দের নয়

এই প্রবন্ধটি লন্ডন অলিম্পিক-২০১২ নিয়ে করা আমাদের বিশেষ কাভারেজের অংশ।

[উল্লেখ ছাড়া সকল প্রবন্ধের লিঙ্ক ফরাসী ভাষার]

২৭ জুলাই, ২০১২-এ শুরু হওয়া লন্ডন অলিম্পিক যখন পুরোদমে চলছে, এমনকি তখন ক্যামেরুনের কোন খেলোয়াড় কোন পদক না পাওয়া সত্ত্বেও, তারা বেশ আলোচনার বিষয়ে পরিণত হয়। এর কারণ হচ্ছে, তারা এমন একটা বিষয়ে অসাধারণত্ব প্রদর্শন করেছে যাকে ইতোমধ্যে ইউরোপ্যাথালন (প্রতিযোগিতা চলাকালীন সময় লন্ডনের অলিম্পিক ভিলেজ থেকে প্রতিযোগীদের পালিয়ে যাওয়া) হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে।

ক্যামেরুন অলিম্পিক দলের ৩৩ জন সদস্যর মাঝ থেকে সাত জনের ক্রীড়াবিদের পালিয়ে যাওয়ার ঘটনা আর্ন্তজাতিক প্রচার মাধ্যমের খবরের খোরাকে পরিণত হয়। এমনকি সিএনএন এবং দি নিউ ইয়র্ক টাইমস [ ইংরেজী ভাষায়] এই ঘটনার উপর সংবাদ প্রদান করেছে। ইউরোপীয় প্রচার মাধ্যমের বেশীর ভাগ অংশ এই রকম পলায়নের পেছনে অর্থনৈতিক উদ্দেশ্যকে মূল কারণ হিসেবে বিবেচনা করছে, যা ক্যামেরুনের সাংবাদিক ইদ্রিস লিঙ্গেও, তার ওয়েবসাইট ‘জার্নাল দু ক্যামেরুনে’ এই বিষয়টিকে সমর্থন করেছেন:

Certains médias britanniques ont relevé le fait que ces défections pourraient trouver une justification dans la volonté de s’insérer en Europe, un environnement économiquement plus viable que leur pays. Citant une source camerounaise, l’agence Associated Press (AP) pour appuyer cette hypothèse a rappelé que le Cameroun selon les données du FMI (Fonds Monétaire International), est un pays où de nombreuses personnes vivent avec moins de 700 FCFA par jour.

বৃটিশ কয়েকটি প্রচার মাধ্যম উল্লেখ করেছে ইউরোপে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করার ইচ্ছের মধ্যে দিয়ে তাদের এই পলায়নের যৌক্তিকতা খুঁজে পাওয়া যেতে পারে, যে ইউরোপের পরিবেশ অর্থনৈতিক ভাবে তাদের স্বদেশের চেয়ে বেশী গ্রহণযোগ্য। অ্যাসোসিয়েট প্রেস এই বিষয়টিকে পুনরায় স্মরণ করেছে যে আইএমএফ-এর ( ইন্টারন্যাশনাল মনিটরি ফান্ড) সূত্রানুসারে ক্যামেরুন হচ্ছে এমন একটি দেশে দেশটির অনেক নাগরিক ৭০০ সেন্ট্রাল আফ্রিকান ফ্রাঙ্কের কমে দৈনন্দিন জীবন নির্বাহ করে থাকে।

আর কেবলমাত্র তারাই এই ব্যাখ্যা চিন্তা করেনি।

ক্যামেরুনের একটি পরিত্যাক্ত স্টেডিয়াম। ছবি ফ্লিকারের “১০বি ট্রাভেলিং”-এর (সিসি-লাইসেন্স বাই-এনসি)।

এই পলায়ন খুব সাধারণভাবে এমন এক অস্থিরতা তুলে ধরছে ক্যামেরুনের সকল তরুণকে আক্রান্ত করছে। আর এ কারণে ক্যামেরুনের ব্লগার ফ্লোরিন নাগউম্বিস-এর মতে এই ঘটনায় এই সমস্ত ক্রীড়াবিদদের নয়, বরঞ্চ পুরো ব্যবস্থাকে অভিযুক্ত উচিত। তিনি লিখেছেন:

C’est assez triste néanmoins de voir que notre pays est devenu une prison dont tout le monde veut s’échapper à tout prix. Que peut-on reprocher à ces jeunes gens ? De n’avoir pas osé ? Ils se sont tout de même retrouvés aux JO, au prix d’une qualification. Ce sont des athlètes. Des gens qui ont pris leur destin en main et se sont spécialisés dans la pratique du sport de haut niveau. Mais voilà, le sein sensé les nourrir s’est révélé empoisonné. L’un d’eux Edingue est un nageur et chaque jour, je me demande comment ce jeune homme est parvenu à aller aux jeux. J’ai beau chercher dans mon esprit, je ne vois aucune piscine olympique dans ce pays. Idem pour le gros du contingent, les boxeurs. Je ne sais pas si vous connaissez le camp de l’unité, le temple de la boxe à Yaoundé. Une vieille bâtisse sale, croulante, obscure. Un antre glauque que quelques passionnés maintiennent à flot tant bien que mal en formant sans moyens ni matériel une jeunesse qui n’a que l’envie comme motivation. Mais malgré ça, deux des boxeurs étaient médaillés des derniers jeux africains, dont un en or !

বরঞ্চ বিষয়টি বেদনাদায়ক, যে আমাদের রাষ্ট্র একটি কারাগারে পরিণত হয়েছে, যেখান থেকে যে কোন মূল্যে সকলে পালাতে চাইছে। কোন অপরাধে আমরা এই সমস্ত তরুণদের অভিযুক্ত করব? যে তারা যথেষ্ট চেষ্টা করেনি? যে তারা অলিম্পিকে অংশগ্রহণরত অবস্থায় ছিল? সর্বোপরি, তারা তাদের যোগ্যতায় সেখানে গিয়েছে। তারা ক্রীড়াবিদ। তারা সেই সমস্ত নাগরিক যারা নিজেদের ভাগ্যকে নিজের হাতে বয়ে বেড়ায় এবং যে সমস্ত খেলায়-সবচেয়ে ভালো ফলাফল প্রদর্শন করতে হয় সে সবের অনুশীলনে এই সমস্ত খেলোয়াড়রা বিশেষজ্ঞ। কিন্তু এখন এক ভাবে মনে হচ্ছে যে সমস্ত আহার মুখে দিয়ে তারা বেড়ে উঠেছে, প্রমাণিত হয়েছে যে তা বিষাক্ত ছিল। এদের মধ্যে একজন হচ্ছে এডিনগুয়ে, যে এক সাতারু এবং প্রতিদিন আমি বিস্ময়ের সাথে ভাবি যে, কি ভাবে এই ব্যক্তি এই প্রতিযোগিতায় যেতে সক্ষম হল। আমি স্মরণ করার আপ্রাণ চেষ্টা করি, কিন্তু আমি মনে করতে পারি না যে আমাদের দেশে আমি অলিম্পিকে যে সমস্ত সুইমিং পুল থাকে তার সমান কোন সুইমিং পুল আমাদের দেশে দেখেছি কিনা। অলিম্পিক ক্রীড়া দলের সবচেয়ে বৃহৎ অংশ মুষ্টিযোদ্ধাদের সম্বন্ধেও একই কথা বলা যায়। আমি জানি না, আপনারা ইউনিটি ক্যাম্পের কথা শুনেছেন কিনা, যা হচ্ছে ইওয়োন্ডের একটি মুষ্টিযোদ্ধা প্রশিক্ষণ কেন্দ্র। এটি একটি পূরোনো, নোংরা ভবন, অন্ধকারাচ্ছন্ন এবং প্রায় ভেঙ্গে পড়ার উপক্রম। গা ছমছমে কাঠামো, যেখানে কয়েকজন ক্রীড়া উদ্যমী কোন ভাবে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে, যাদের কাছে না আছে কোন আর্থিক সঙ্গতি, না আছে কোন সরঞ্জামাদি। যার ফলে তরুণদের তৈরি করা, যাদের উদীপ্ত করার জন্য আছে কেবল ঈর্ষা। কিন্তু তা সত্ত্বেও, এই সমস্ত মুষ্টিযোদ্ধাদের দুজন অল আফ্রিকা গেমস-এ পদক অর্জন করেছে, যার মধ্যে একটি ছিল স্বর্ণপদক!

তাদের এই পলায়নের যৌক্তিক প্রমাণ করতে যেন সে এতে আরো যোগ করেছে:

Comment leur en vouloir ? Partir devient une nécessité, un devoir. Partir ou mourir. Partir ou voir son talent s’étioler jusqu’à ne devenir qu’un vague souvenir peuplant les soirées alcoolisées dans un bar pourri… ! Ce n’est pas la honte du Cameroun, ni celle de la majorité de notre peuple. Les responsables sont là. Tapis dans l’ombre mais pourtant connus. Ces vautours, ces vampires qui ponctionnent lentement mais sûrement le sang de la jeunesse, ses espoirs, ses rêves. Laissons les sportifs. Combien de jeunes gens profitent d’une bourse d’étude et ne reviennent jamais ? Combien de médecins s’en vont faire des stages et constatent que le bistouri est plus maniable en Europe qu’au Cameroun ?

কি ভাবে আমরা তাদের অভিযুক্ত করতে পারি? দেশত্যাগ এখন প্রয়োজনীয় বাস্তবতায়, এক দায়িত্বে পরিণত হয়েছে, হয় দেশত্যাগ কর, অথবা মারা যাও, কিংবা একজনের প্রতিভা ক্রমশ বিবর্ণ হওয়ার মত ঘটনাকে দেখতে হবে, যা কিনা এক সময় ছায়াবৃত এক পানশালায় পান করার সময় দূরের এক স্মৃতি বলে প্রতীয়মান হবে। এটা ক্যামেরুনের দোষ নয়, এটা আমাদের দেশের বেশীরভাগ মানুষেরও দোষ নয়। যারা এর জন্য দায়ী, তারা এখনো সে সব জায়গায় রয়ে গেছে। তারা ছায়াতে ঘুরে বেড়াচ্ছে। কিন্তু আমরা জানি তারা আসলে কারা। এই সমস্ত শকুন, রক্তচোষা, যারা ধীরে ধীরে কিন্তু নিশ্চিতভাবে তরুণদের রক্ত শুষে নিচ্ছে, তাদের আশা, তাদের স্বপ্নকে। এই সমস্ত খেলোয়াড়দের নিজেদের নিজেদের হাতে ছেড়ে দিন। কত জন তরুণ বৃত্তির সুবিধা নিতে পারে, এবং আর কখনো দেশে ফেরে না? কতজন ডাক্তার ইন্টার্নী করার জন্য ইউরোপে যায় এবং তাদের শল্য চিকিৎসার ছুরিকে ক্যামেরুনের চেয়ে বেশী সেখানে গ্রহণযোগ্য হিসেবে আবিস্কার করে?

সে ক্ষেত্রে অভিযুক্ত হবে কে? ?

এই ভিডিও যা ইউটিউবে ব্যবহারকারী আফ্রিকাপ্লে২০১২ উঠিয়ে দিয়েছে, সেখানে অলিম্পিক ভিলেজ থেকে পালিয়ে যাওয়া অন্যতম এক মুষ্টিযোদ্ধা থমাস এসাম্বো, অলিম্পিক প্রতিযোগিতা শুরু হবার আগে তার এই বিষয়ে প্রাপ্ত প্রশিক্ষনের অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেছে।

এই ঘটনা ক্যামেরুনের ভাবমূর্তিকে ক্ষতগ্রস্ত করুক বা না করুক, ক্যামেরুনের অনেক নাগরিক এই সমস্ত ক্রীড়াবিদদের সমর্থন করেছে। খেলোয়াড়দের এই ভাবে দেশ ছেড়ে যাওয়ার ঘটনাকে দেশের প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা হিসেবে নেওয়া ঠিক হবে না, যারা কিনা দেশের করদাতাদের টাকায় লন্ডন গিয়েছিল। বরঞ্চ তাদের এই পলায়নের ঘটনাকে এক ভিন্ন আলোকে দেখা উচিত। এর জন্য ক্রীড়াবিদদের অভিযুক্ত করা উচিত নয়, অন্তত ক্যামেরুনে এই বিষয়ে নেওয়া ব্যবস্থার চেয়ে বেশী নয়, যে ব্যবস্থা দেশের তরুণদের যে কোন মূল্যে ইউরোপে অভিবাসী হতে বাধ্য করে অথবা ইউরোপে প্রতিদিন তাদের যতই বিপদের মুখোমুখি হতে হোক না কেন, সেখানে তাদের থেকে যাওয়ার ইচ্ছাকে যৌক্তিক করে তোলে।

ফেসবুকে প্রকাশিত এক মন্তব্যে জোসু জ্য রেনে মাম্বো মোউসা ২, একই গল্প বলছে। সে বিশ্বাস করে যে এই সমস্ত ক্রিড়াবিদেরা ক্যামেরুনের ভাবমূর্তিকে ধুলায় লুটিয়ে দেয়নি, অন্তত যে ভাবমূর্তি তার আগে থেকে রয়েছে:

Mais quelle image notre pays lui-même se donne aux yeux du monde??? A choisir de vivre en Europe sans papiers avec l'espoir des lendemains meilleurs ou de vivre en Afrique où il n'y a aucun espoir, mon choix est vite fait… il y a misère et misère … on n'a pas le droit de juger les gens qui essayent désespérément de se sortir d'un quotidien incertains quelque soient les moyens, c'est une question de vie ou de mort et moi je suis fier de ces gens qui ont pu avoir le choix et qui ont choisi une vie hypothétique qu'une mort certaine.

কিন্তু বিশ্বের চোখে আমাদের দেশ তার নিজের ভাবমূর্তি কি ভাবে তুলে ধরে? ইউরোপে বৈধভাবে বাস করা , এক সুন্দর আগামীর আশায় অথবা আফ্রিকায় বাস করা, যেখানে কোন আশা নেই? আমি দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি… এখানে দরিদ্র এবং দুর্দশা… প্রতিদিনের জীবনে যে সমস্ত অনিশ্চিয়তা তার থেকে যারা প্রবল ভাবে পালানোর চেষ্টা করছে তাদের বিচার করার কোন অধিকার আমাদের নেই। এটা জীবন মৃত্যুর বিষয় আর আমি সেই সমস্ত নাগরিকদের জন্য গর্ব বোধ করি, যাদের সামনে এই বেছে নেওয়ার সুযোগ ছিল এবং যারা জীবনের সম্ভাবনার বনাম নিশ্চিত জীবনের ক্ষেত্রে জীবনকে বেছে নিয়েছে।

তবে এই ধরনের ঘটনা নতুন নয়, ক্যামেরুন অনলাইন ফোরামের এক ইন্টারনেট ব্যবহারকারী, যে কিনা ফরাসী সংবাদপত্র লে ফিগারোয় প্রকাশিত এক প্রবন্ধের উক্তি প্রদান করেছে, উক্ত ব্যাক্তির সূত্রানুসারে:

La disparition d'athlètes à l'occasion de compétitions internationales est une tradition de longue date. Pendant la guerre froide, ces défections étaient favorablement accueillies par les pays occidentaux. Aux JO de 1956 à Melbourne, 45 sportifs hongrois avaient profité de la compétition pour demander l'asile, avec le soutien des États-Unis. Mais les pays riches ne sont plus aussi hospitaliers et voient désormais d'un mauvais œil ce phénomène récurrent.

আর্ন্তজাতিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা থেকে ক্রীড়াবিদদের পালিয়ে যাওয়ার ঘটনা দীর্ঘ সময় ধরে এক প্রথায় পরিণত হয়েছে। শীতল যুদ্ধের সময়, ক্রীড়াবিদদের এইভাবে পালিয়ে যাবার বিষয়টিকে পশ্চিমা রাষ্ট্র স্বাগত জানাত। ১৯৫৬ সালে অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন অলিম্পিকে প্রতিযোগিতায় অংশ নেবার সুবিধা গ্রহণ করে হাঙ্গেরির ৪৫ জন ক্রীড়াবিদ যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থনে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করে। কিন্তু ধনী দেশগুলো এই সমস্ত খেলোয়াড়দের ক্ষেত্রে এখন আর আগের মত অতিথিপরায়ণ নয় বন এই ধরনের ঘটনাকে তারা খানিকটা বাঁকা চোখে দেখে।

তবে রাজনৈতিক কারনেও আফ্রিকার খেলোয়াড়রা কখনো কখনো এই ধরনের আসর থেকে পালিয়ে যায়, আর এই ঘটনার ক্ষেত্রে কেবল ক্যামেরুন একমাত্র দল নয়, যাদের খেলোয়াড়রা এই ধরনের কাজ করেছে।
এই প্রবন্ধটি লন্ডন অলিম্পিক-২০১২ নিয়ে করা আমাদের বিশেষ কাভারেজের অংশ।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .