বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

আর্জেন্টিনা: ফকল্যান্ডস অলিম্পিক ভিডিও নিয়ে বিতর্ক

এই পোস্টটি আমাদের লন্ডন অলিম্পিক ২০১২ সংক্রান্ত বিশেষ কভারেজের অংশ

অন্যান্য কারণ ছাড়াও ফকল্যান্ড যুদ্ধে নিহতদের স্মৃতি বিজড়িত রাজনৈতিক প্রচ্ছায়ার কারণে লন্ডন অলিম্পিক ২০১২-এর শারীরীক ক্রীড়ার খেলাগুলো আর্জেন্টিনার জন্যে গুরুত্বপূর্ণ। ২রা এপ্রিল, ২০১২ তারিখ ছিল মালভিনাস নামে পরিচিত ফকল্যান্ড দ্বীপপুঞ্জে আর্জেন্টিনার সৈন্য অবতরণের ৩০তম বার্ষিকী। আসন্ন অলিম্পিক গেমসের শুরু উপলক্ষ্যে আর্জেন্টিনার রাস্ট্রপতির দপ্তর তাদের ইউটিউব চ্যানেলের [স্প্যানিশ ভাষায়] মাধ্যমে একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে:

আর্জেন্টিনার রাষ্ট্রপতির দপ্তরের [স্প্যানিশ ভাষায়] তৈরী এবং দ্বীপটিতে চিত্রায়িত ভিডিওটিতে আর্জেন্টিনার একজন ক্রীড়াবিদকে ব্রিটিশ বৈদেশিক রাজ্য (উপনিবেশ) ফকল্যান্ড দ্বীপপুঞ্জে লন্ডন অলিম্পিকের জন্যে প্রশিক্ষণরত দেখানো হয়েছে। বিতর্কের সূত্রপাত করেছে সর্বশেষ বাক্যটি: “ইংরেজদের মাটিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্যে আমরা আর্জেন্টাইন মাটিতে প্রশিক্ষণ নিচ্ছি।” ভিডিওটির নায়ক আর্জেন্টিনার হকি দলের খেলোয়াড় ফার্ণান্দো জিলবারবার্গ প্রকৃতপক্ষে ২০১২ সালের অলিম্পিকে অংশগ্রহণ করছেন না।

অলিম্পিক কমিটির প্রতিক্রিয়া ছিল তাৎক্ষণিক। এসএসকিউএইচ  [স্প্যানিশ ভাষায়] ওয়েবসাইট এই প্রতিক্রিয়াটি পোস্ট করেছে:

“Los Juegos Olímpicos no deben ser un foro para tratar temas políticos, y el COI lamenta cualquier uso de la plataforma de los Juegos para esos fines”, señaló la entidad en un comunicado enviado a la agencias de noticias AP. “Estamos en contacto con el (Comité Olímpico) Argentino… y en varias ocasiones nos han asegurado que el comité olímpico nacional no tratará de usar los Juegos como una plataforma política, y respetará la Carta Olímpica”, agregó el COI.

অলিম্পিক গেমস রাজনৈতিক বিষয়াবলী নিয়ে আলোচনা করার কোন ফোরাম হওয়া উচিৎ নয় এবং আইওসি গেমসের মঞ্চটির এরকম উদ্দেশ্যে ব্যবহারের জন্যে দুঃখ প্রকাশ করে, [অলিম্পিক কমিটি] এপি সংবাদ সংস্থার কাছে একটি বিবৃতিতে একথা বলেছে। “আমাদের সঙ্গে আর্জেন্টিনার (অলিম্পিক কমিটি) যোগাযোগ রয়েছে… যারা বারবার আমাদের আশ্বস্ত করেছে যে জাতীয় অলিম্পিক কমিটি গেমসটিকে একটি রাজনৈতিক মঞ্চ হিসেবে ব্যবহার করার চেষ্টা করবে না এবং অলিম্পিক সনদকে সম্মান দেখাবে,” আইওসি যোগ করেছে।

এছাড়াও ব্লগ সোপিতাস [স্প্যানিশ ভাষায়] বিতর্কটি নিয়ে মন্তব্য করেছে:

A 30 años de la guerra entre Argentina y Gran Bretaña por estas islas, y ante la proximidad de los Juegos Olímpicos, este spot parece una provocación que ya está causando polémica.

Ian Hansen, legislador de las Malvinas dijo estar decepcionado por este video, el cual “intenta politizar los Juegos Olímpicos en servicio de las ambiciones territoriales argentinas”.

আর্জেন্টিনা ও ব্রিটেনের মধ্যে এই দ্বীপটি নিয়ে যুদ্ধের ৩০বছর পর এবং অলিম্পিক শুরুর এত কাছাকাছি সময়ে এই বিজ্ঞাপনটি একটি উস্কানির মতো মনে হচ্ছে যা ইতোমধ্যে বিতর্ক সৃষ্টি করেছে।

ফকল্যান্ডের আইনপ্রণেতা ইয়ান হ্যানসেন বলেন তিনি এই ভিডিওটি নিয়ে হতাশ, যা “আর্জেন্টিনার রাজ্যগত উচ্চাকাঙ্ক্ষা পূরণে অলিম্পিক গেমসকে রাজনৈতিকীকরণের উদ্দেশ্য প্রণোদিত।”

ফকল্যান্ড দ্বীপপুঞ্জ থেকে প্রকাশিত সংবাদপত্র পেঙ্গুইন সংবাদ ভিডিওটিকে অবমননাকর বিবেচনা করেছে:

দুঃখজনকভাবে আর্জেন্টিনার কর্তৃপক্ষ আমাদের দেশ এবং জনগণের প্রতি অশ্রদ্ধা প্রদর্শন করেছে। অবাক হওয়ার কিছু নেই এই ভিডিওটি  কোনো স্তরেই ফকল্যান্ড দ্বীপপুঞ্জবাসীর প্রতিনিধিত্ব করে না –   যা ফকল্যান্ড দ্বীপপুঞ্জের জনগণের অস্তিত্ব স্বীকার করার ভান করা আর্জেন্টিনার নীতির সুস্পষ্ট প্রতিফলন মাত্র।

তবে ইউটিউবে প্রদর্শিত মন্তব্যগুলো [স্প্যানিশ ভাষায়] অনুসারে অনেক আর্জেন্টিনাবাসীর কাছে এই ভিডিওটি ফকল্যান্ড দ্বীপপুঞ্জ যে আর্জেন্টিনার অংশ তাদের সেই দাবির অবস্থানকে আবারো জোরালো করে।

এই পোস্টটি আমাদের লন্ডন অলিম্পিক ২০১২ সংক্রান্ত বিশেষ কভারেজের অংশ

এই পোস্টটির উপ-সম্পাদনা করেছেন জেন এলিস

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .