বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ইজরায়েল: সামরিক বাজেট বনাম সামাজিক ন্যায়বিচার

আমাদের এই পোস্ট আন্তর্জাতিক সম্পর্ক এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিশেষ কভারেজ এর অংশ।

গত বছর ইজরায়েলে সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা নিয়ে তুমুল আন্দোলন হয়। সে সময়ে রাষ্ট্রের বাজেটে কোন খাত প্রাধান্য পাবে তা নিয়ে নতুন করে বিতর্ক উঠেছিল। সামাজিক ন্যায়বিচার আন্দোলনে (এটি #জে১৪ নামেও পরিচিত) ইজরায়েলের সম্পদ বন্টনে সমতা আনার জোর দাবি জানানো হয়। সেখানে জনগণের কল্যাণ খাতে যেমন, বাড়িভাড়ায় ভর্তুকি, বিনামূল্যে শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবায় বাজেটের বেশি অংশ বরাদ্দ চাওয়া হয়। বর্তমান বাজেটে সামরিক খাত প্রাধান্য পেয়েছে। এবং সবসময় এই খাতে বরাদ্দ বাড়ছে।

ব্লগার তমার ইজরায়েলি [হিব্রু ভাষায়] অনেক #জে১৪ প্রতিবাদকারীদের সাথে যুক্তির ব্যাখ্যা শেয়ার করেন:

רק אם נוכל להקטין באמת נתח זה נוכל להגדיל במקומות אחרים. אחרת נמשיך להסתובב סביב הזנב של עצמנו ונמשיך למשוך מצד לצד את השמיכה הקצרה. האם יש לנו דעה בנוגע לתקציב? כי אם אין לנו דעה הרי שאין לנו כיוון משמעותי ודרך לשינוי סדרי העדיפויות במדינה.
আমরা যদি সামরিক খাতে বাজেট বাজেট কমাই, তাহলে অন্যান্য খাতে বরাদ্দ বাড়াতে পারবো। তা না হলে, আমাদের লেজ গুটিয়ে পালাতে হবে এবং বরাদ্দের পরিমাণও আস্তে আস্তে কমে যাবে। বাজেট নিয়ে আমাদের কি কোনো মতামত আছে? আমরা যদি কোনো মতামত না দিই, তাহলে বুঝতে হবে দেশের বাজেটের প্রাধান্য পরিবর্তনে আমরা সঠিক পথে নেই।

জনগণ যেখানে তাদের চাহিদা মেটাতেই হিমশিম খাচ্ছে, প্রতিদিনই ঘাটতি বেড়ে যাচ্ছে, আবার যথাযথ সেবাও পাচ্ছে না সেখানে বর্তমান সরকার তাদের ওপর উচ্চ কর ধার্য করেছে। সরকারের উচ্চ কর হারের তীব্র সমালোচনা করে ব্লগার জিভ টার্নার [হিব্রু ভাষায়] বলেন:

תקציב הביטחון השוטף זה הבלוף בהא הידיעה של האמא של הבלופים בישראל. צבא עשיר ומנופח, עם מכפלות של זרועות ומטות מלחמה, ודל בחשיבה לטווח ארוך. לא נשארו לנו אויבים מסביבנו שיכולים להביא אותנו לקיצינו, שמאיימים על קיומנו. נשארנו עם נסראללה ואיראן. בשביל זה לא צריך כזה צבא מנופח.
ইজরায়েলের সবচেয়ে বড় মিথ্যা হচ্ছে সামরিক বাজেট। বহু অস্ত্রশস্ত্র আর কমান্ডার নিয়ে একটি সমৃদ্ধ ও গর্বিত সেনাবাহিনী আছে ইজরায়েলের। কিন্তু এটা আছে কোনো দীর্ঘমেয়াদি চিন্তা ছাড়াই। আমাদের অস্তিত্ব ধ্বংস করতে পারে এমন কোনো শত্রু আমাদের চারপাশে নেই। আমাদের নসরুল্লাহ এবং ইরানের কাতারে ফেলে দেয়া হয়। তবে এজন্য আমাদের এতো সমৃদ্ধ সেনাবাহিনীর দরকার নেই।
The Defense Budget by Amitai Sandy

সামরিক বাজেটের কার্টুন। এঁকেছেন আমিতাই স্যান্ডি। অনুমতি নিয়ে ব্যবহার করা হয়েছে। লেখা ডানে থেকে বামে। এ- আপনি, বি-আমাকে, সি- পরবর্তী যুদ্ধ।

টিমনা অ্যাক্সেল +৯৭২ ম্যাগাজিনের একটি ব্লগে সামরিক বাজেট এবং প্যালেস্টাইন অঞ্চল দখল ইজরায়েলের সামাজিক বৈষম্যের ওপর কী রকম প্রভাব ফেলছে, তা নিয়ে আলোচনা করেছেন:

এরপর সেখানে বাজেটে সামাজিক খাতের ব্যয়সমূহ ব্যাপকভাবে কমানো হয়। দ্বিতীয় ইন্তিফাদার সময় এটা ছিল ইজরায়েলি টাকায় ৬৫ বিলিয়ন। একই সময়ে সামরিক বাজেট বৃদ্ধি পেয়েছিল ইজরায়েলি টাকায় ১৫ বিলিয়ন। সন্তান ভাতা, দারিদ্র্যের দোহাই দিয়ে বেকার ভাতা কেটে নেয় সরকার। একই সঙ্গে সরকারের আয় দিয়ে যুদ্ধের খরচ জোগানো হয়, যা দরিদ্র জনগোষ্ঠীর ওপর তীব্র আঘাত হানে। ১৯৮০ সালেও তারা এটা করেছিল। অর্থনীতিবিদ মমি দাহান একটি রিপোর্টের উদ্ধৃতি দিয়ে লিখেছেন, “অন্যান্য উন্নত দেশের চেয়ে ইজরায়েলের দরিদ্র মানুষের সংখ্যা বেশি হওয়ার কারণ গভীরভাবে বিশ্লেষণ করে দেখলে জিডিপির ৭ শতাংশ সামরিক খাতে ব্যয়ের বিষয়টি কোনোভাবেই এড়িয়ে যাওয়া যাবে না। অথচ অন্যান্য উন্নত দেশে এই ব্যয়ের পরিমাণ গড়ে ১.৫ শতাংশ।”

অন্যদিকে ব্লগার ইউভাল রন [হিব্রু ভাষায়] প্যালেস্টাইনের অধিকৃত ভূমি সমস্যার নিষ্পত্তির সাথে সামরিক বাজেট কমার একটি রাস্তা দেখতে পেয়েছেন। তিনি লিখেছেন:

חלקו הגדול של תקציב המדינה הוא תקציב הביטחון. תקציב ביטחון כה גדול מעכב ומונע פעילויות חשובות בתחומים חיוניים אחרים. הגנת גבולות המדינה על ידי הצבא בלבד ללא התיישבות היתה מטילה על המערכת הצבאית עול כבד ביותר הן מבחינת עומס כוח האדם והן מבחינה כלכלית. קיומם של ישובים בקו הגבול מקל על הצבא את הפעילות ההגנתית וחוסך למדינה כוח אדם וסכומי כסף ניכרים.
রাষ্ট্রীয় বাজেটের একটি বড় অংশ সামরিক খাতে বরাদ্দ রয়েছে। সামরিক বাজেট বড়ো হওয়ায় সরকার প্রয়োজনীয় ইস্যুগুলোতে সিদ্ধান্ত নিতে পারছেন না, অথবা সিদ্ধান্ত নিতে দেরি করে ফেলছেন। সেনাবাহিনী একাই সীমান্ত পাহারা দিয়ে আসছে। কোনো ধরনের মিমাংসা ছাড়া সেখানে থাকা সেনাবাহিনীর ওপর একটা বোঝাস্বরূপ। এটা মানবসম্পদ এবং টাকা উভয় অর্থেই। সীমানা বিরোধ মিটলে সেখানে সেনাবাহিনীর কার্যক্রম অনেক সহজ হয়ে যাবে। এতে করে রাষ্ট্রের মানবসম্পদ এবং টাকাপয়সা বাঁচবে।
ISN logoআন্তর্জাতিক সম্পর্ক এবং নিরাপত্তা ইস্যুতে বিশ্ববাসী নাগরিক কণ্ঠস্বর খোঁজার অভিপ্রায়ে ইন্টারন্যাশনাল সিকিউরিটি কাউন্সিল (আইএসসি) এই পোস্ট এবং স্প্যানিশ, আরবি এবং ফরাসি ভাষায় এর অনুবাদ অনুমোদন দিয়েছে। এই পোস্ট প্রথম প্রকাশিত হয় আইএসএন ব্লগে। এ ধরনের আরো লেখা দেখুন এখানে

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .