বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

প্যারাগুয়ে: আচে আদিবাসী সম্প্রদায়ের অন্দরে এক নজর

ইতিহাসের বেশিরভাগ সময় ধরেই প্যারাগুয়ের আচে আদিবাসী জনগণ তাদের এলাকা সংরক্ষণের সংগ্রামে লিপ্ত। বর্তমানে আচে’রা তাদের ভাষা এবং তাদের সংস্কৃতি সংরক্ষণে নাগরিক মিডিয়া ব্যবহার করছে। আচে যাউ [স্প্যানিশ] (“আচে শব্দ”) ব্লগ এবং কয়েকটি টুইটার একাউন্ট [স্প্যানিশ] ছয়টি আচে আদিবাসী সম্প্রদায়ের ভিতরের একটু ঝলক দেখিয়েছে।

একটি গণহত্যার পর তাদের জনসংখ্যা হ্রাস পেয়ে বিংশ শতাব্দীতে ৩৫০জন হলেও, আচে’রা ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পেয়ে উত্তর এবং পূর্ব প্যারাগুয়েতে ছয়টি সম্প্রদায়ে তাদের সদস্যসংখ্যা প্রায় ১,৫০০ হয়ে গিয়েছে।

এবছর আচে যাউ (“আচে শব্দ”) প্রকল্পটি সবচেয়ে নতুন রাইজিং ভয়েসেস অনুদানগ্রহিতা হিসেবে নির্বাচিত হয়েছে। রাইজিং ভয়েসেস পরিচালক এদুয়ার্দো আভিলা ব্যাখ্যা করেছেন:

প্রকল্পটির উদ্দেশ্য হলো তাদের ভাষা ও সংস্কৃতিকে সংরক্ষণ এবং উন্নীত করার একটি উপায়ে হিসেবে ব্লগ, ডিজিটাল ফটোগ্রাফি এবং ভিডিও’র পাশাপাশি সামাজিক নেটওয়ার্কিং ব্যবহারে নিবিড় দক্ষতা-তৈরীর কর্মশালায় অংশ গ্রহণের জন্যে ছয়টি আচে সম্প্রদায়ের প্রতিটি থেকে বেশ কিছু অল্পবয়সী ছেলেমেয়েদের বাছাই করা।

নিচের ভিডিওটিতে আচে চুপা পোউ সম্প্রদায়ের মার্সিয়ানো চেভুগি নেটনাগরিকদের ব্লগটি দেখার এবং টুইটার সম্প্রদায়টিকে অনুসরণ করার আমন্ত্রণ জানাচ্ছেন। এছাড়াও চেভুগি তাদের সংস্কৃতি উদ্ধার এবং রক্ষায় তাদের সমর্থনের জন্যে সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। (উল্লেখ্য: চেভুগি একটি সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে আচে বলতে আরম্ভ করে তারপর স্প্যানীয় ভাষায় কথা বলে। ভিডিওটির স্প্যানীয় অংশের ইংরেজী সাব-টাইটেল করেছেন এদুয়ার্দো আভিলা)

এই ব্লগটি এসব আচে সম্প্রদায়ের ইতিহাসের দলিল তৈরীতে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ২৯শে এপ্রিল, ২০১২ তারিখ থেকে একটি পোস্ট [স্প্যানিশ] চুপা পোউয়ের আচে সম্প্রদায়ের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস বলছে। পোস্টটিতে চেভুগি ব্যাখ্যা করেছেন যে ৯ই মে, ১৯৭৯ তারিখে একদল আচে এবং একদল স্বর্গীয় বিশ্ব মিশনারী সম্প্রদায়টিকে প্রতিষ্ঠিত করেছিল। চেভুগি আরো লিখেছেন যে বর্তমানে এই সম্প্রদায়ের কানিন্দেইউ  বিভাগে ঘেঘুই গুয়াজাউ নদী বরাবর ৮,৬০০ হেক্টর প্রাকৃতিক বন রয়েছে:

[…] hoy la comunidad tiene 120 familias, en total 600 habitantes, cuenta con escuela y colegio; 220 alumnos en total, hoy una nueva construcción de puesto de salud dentro de la comunidad que sera equipada de primeros auxilios, también esta dentro de la liga de fútbol de Ygatimi, con el club 20 de enero. En el agricultura cada familia hace para su auto consumo y renta, la comunidad cuenta con pequeña parcela de 25 hectáreas mecanizada para ingreso de la comunidad.

[…] আজ সম্প্রদায়টি ১২০টি পরিবারের মোট ৬০০ অধিবাসী নিয়ে গেড়ে উঠেছে। এতে মোট ২২০ ছাত্র-ছাত্রীর জন্যে একটি স্কুল রয়েছে  এবং সম্প্রদায়ের ভিতরে একটি নতুন স্বাস্থ্য কেন্দ্র রয়েছে যা প্রাথমিক চিকিৎসা [সরবরাহ] সুবিধায় সজ্জিত করা হবে। এছাড়াও সম্প্রদায়টি ‘২০ দে এনেরো’ (২০শে জানুয়ারী) দলের সঙ্গে ইয়গাতিমি ফুটবল লীগের অংশ। কৃষিক্ষেত্রে প্রতিটি পরিবার তাদের নিজেদের ভোগের জন্যে উৎপাদন করে। সম্প্রদায়টির আয় সৃষ্টির জন্যে উন্নত ২৫ হেক্টরের ছোট জমি একটি রয়েছে।

এই ব্লগটিতে এসব সম্প্রদায়ের বিভিন্ন সদস্যের ব্যক্তিগত গল্প তুলে ধরা হয়। উদাহরণস্বরূপ, “চো ম্বিওয়াঙ্গি” [স্প্যানিশ] পোস্টটি গুরুত্বপূর্ণ একজন মহিলা সম্প্রদায় নেত্রীর সংক্ষিপ্ত আত্মপরিচয়:

Me llamo Margarita Mbywangi vivo en la comumidad Kuetuvy, trabajo en área de salud. Soy líder de la comunidad, me gusta mucho rescatar la cultura Aché, hacer el parto y jugar con los niños y escuchar la historia y la vida de la gente.

আমার নাম মার্গারিতা ম্বিওয়াঙ্গি। আমি কুয়েতুভি সম্প্রদায়ে বাস করি [এবং]স্বাস্থ্য নিয়ে কাজ করি। আমি সম্প্রদায়ের একজন নেত্রী, [এবং] আমি আচে সংস্কৃতি উদ্ধার করতে, জন্মদানে মহিলাদের সাহায্য করতে, শিশুদের সঙ্গে খেলা করতে এবং মানুষের ইতিহাস ও জীবন সম্পর্কে শুনতে চাই।

২০০৮ সালে মার্গারিতা ম্বিওয়াঙ্গি প্রথম আদিবাসী ব্যক্তি হিসেবে প্যারাগুয়ের আদিবাসী বিষয়ক মন্ত্রী হয়েছিলেন।

এছাড়াও কিছু আদিবাসী অংশগ্রহণকারী আলোকচিত্রের মাধ্যমে তাদের সম্প্রদায়ের জীবন ও ঐতিহ্যকে ধারণ করার আগের একটি প্রকল্পে যোগ দিয়েছিল। ফ্রান্সিসকো কান্দেগির তোলা নিচের আলোকচিত্রটিতে একটি “ঐতিহ্যবাহী আচে খেলা” দেখানো হয়েছে:

ছবি: ফ্রান্সিসকো কান্দেগি, পুয়ের্তো বারা।

আচে যাউয়ের ফ্লিকার একাউন্ট-এ আপনি আরো ছবি দেখতে পাবেন।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .