বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ফিলিপিন্সঃ বিবাহ বিচ্ছেদ আইন নিয়ে বিতর্ক

প্রজনন স্বাস্থ্যসেবা আইন নিয়ে ওঠা তীব্র বিতর্কের ঠিক আগে, ফিলিপিনোরা আরো একবার একে অপরের সঙ্গে আরেকটি বিতর্কিত বিবেচিত আইন নিয়ে বিরোধে লিপ্ত হয়েছে: আইনটি হল বিবাহ বিচ্ছেদ আইন।

কিছুদিন আগে মাল্টায় গণভোটে বিবাহবিচ্ছেদের পক্ষে রায়ের একটি খবর ফিলিপিন্সে এসে পৌঁছানোর পর বিবাহবিচ্ছেদ বৈধকরণ নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়। দেশটি যেন মাল্টার পদক্ষেপে অনুসরণ করে এবং সংখ্যাগরিষ্ঠ ক্যাথলিক জাতির এই রাষ্ট্রে বিবাহবিচ্ছেদ-কে যেন বৈধ করে সে বিষয়ে দেশটির প্রগতিশীল গোষ্ঠী রাষ্ট্রকে দ্রুত এক সাহসিকতাপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়ার আহবান জানায়।

বিবাহ বিচ্ছেদ নিয়ে বিতর্ক এখানে নতুন কিছু নয়, গত বছর এই বিষয় নিয়ে এ্যাটিএ্যাটওয়ার্ক-এর একটি বহুল আলোচিত আলোচনা এখানে দেখুন

মাল্টায় কিভাবে এই বিতর্কের নিষ্পত্তি করা হয়েছিল এবং কিভাবে গণভোট বিষয়টিকে উন্মোচিত করে, সে বিষয়ে ফিলিপিনো চিন্তাবিদগণ  দারুণ এক সার সংকলন তৈরী করেছেন। এখানে আরও উল্লেখযোগ্য যে, এটি ফিলিপিন্স ও মাল্টার মধ্যে এই বিষয় সংক্রান্ত তুলনার খুঁটিনাটি তুলে ধরেছেঃ

একটি সুখী পরিসমাপ্তি ছাড়াও, মাল্টার এই ঘটনার মধ্যে দিয়ে ফিলিপিন্সকে বিশ্বের একমাত্র বিবাহবিচ্ছেদ মুক্ত দেশে পরিণত হল। মাল্টার বিবাহবিচ্ছেদের গণভোটের কাহিনীর সাথে আমাদের প্রজনন স্বাস্থ্য (আর এইচ) নিয়ে ওঠা বিতর্কের মাঝে মিল রয়েছে:

উভয় রাষ্ট্র হচ্ছে ক্যাথলিকতাবাদের শেষ দূর্গ: ইউরোপের মাল্টা, এশিয়ার ফিলিপিন্স; উভয় রাষ্ট্র প্রধানত ক্যাথলিক ধর্মাবলম্বী: মাল্টায় ৯৫ %, ফিলিপিন্সে ৮০ % নাগরিক ক্যাথলিক; এবং উভয় রাষ্ট্রে প্রাথমিকভাবে প্রগতিশীল ক্যাথলিকদের এবং রক্ষণশীল বিশপদের মধ্যে যুদ্ধ বিরাজমান এবং উভয় ক্ষেত্রে, রক্ষণশীল বিশপেরা তাদের এক লাইনে রাখার জন্যে ভয়ের পসরা ব্যবহার করেন।

বিবাহ বিচ্ছেদ, সম্পর্কের ইতি টানা এবং আইনগত ভাবে আলাদা হয়ে যাওয়ার মধ্যে পার্থক্য সম্বন্ধে দ্রুত জানার জন্য, লাইল আর. স্যান্টোস সাধারণ ভাষায় ধারনা দিচ্ছে

মাল্টার বিবাহবিচ্ছেদ অনুমোদনের সাথে সাথে বর্তমান বিশ্বে ফিলিপিন্স হল একমাত্র দেশ যেখানে বিবাহবিচ্ছেদ নিষিদ্ধ হয়েই রইল। ব্লু ডেলা কানলুরান এর মতে,শুধুমাত্র এই ঘটনার ভিত্তিতে বিবাহবিচ্ছেদ বিতর্ক নিয়ে আলোচনা ঠিক হবে না :

যেমনটা আমি আগেই বলেছি আমার অবস্থান বিবাহবিচ্ছেদের বিরুদ্ধে, যদিও আমি একটি সার্বভৌম জাতির সিদ্ধান্ত গ্রহণের অধিকারের উপর রুঢ় হব না –কারন তাঁদের অধিকার আছে দেশ এবং নিজেদের জন্যে সেরাটা বেছে নেওয়ার, এখানে মাল্টা যেমনটা প্রদর্শন করেছে। (দেখুন, এটি হচ্ছে চার্চ এবং রাষ্ট্রের পৃথকীকরণের একটি উদাহরন)।

বিশ্বের একমাত্র বিবাহবিচ্ছেদহীন রাষ্ট্র ফিলিপিন্সের নাগরিকদের কলংকের বিষয়টিতে কি প্রভাব ফেলবে তা ভেবে আমি অবাক হচ্ছি।

কেবল গির্জার অনধিকার চর্চার কারণে নয়, উপরে উল্লেখিত নিন্দার কারণটিও এর সাথে যুক্ত হওয়ার কারনে ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি এটি ভবিষ্যতে শুধুমাত্র আরো কঠিন প্রাক- বিবাহবিচ্ছেদ- আইনই প্রণয়ন করবে (আইন কি ভাবে যুক্তি প্রদান করে বিষয়টি তা নয়।)।

কোকয়, বিষয়টিকে প্রজনন স্বাস্থ্যের প্রায়-অনুমোদন এবং বর্তমানে বিবাহবিচ্ছেদ আইন ফিলিপিন্সের জন্য পুনরায় শুরু করা (Reboot) হিসেবে বিবেচনা করছেন, ফিলিপিন্স শক্তিশালী এক ধর্মীয় রাষ্ট্র থেকে ধর্মণিরপেক্ষতার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে:

যদি প্রজনন স্বাস্থ্য বিষয়টি যদি একটি আইনে পরিণত হয়,এবং এর পরেই যদি বিবাহবিচ্ছেদ সংক্রান্ত একটি বিল তৈরী করা হয়? তাহলে তা ফিলিপিন্সে নতুন করে শুরু করার একটি ধারাবাহিকতার সৃষ্টি করবে। এটি ইঙ্গিত প্রদান করে যে জাতি ধীরে ধীরে ধর্মনিরপেক্ষতার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে এবং ভ্যাটিকানের আধিপত্য কমে আসছে।

একজন ক্যাথলিক হিসেবে,আমার জন্যে, চার্চ আমাকে আধ্যাত্মিক বিষয়ে মনোযোগ প্রদানে সুযোগ করে দেয়। আমি চাই হিতোপদেশ ও দিকনির্দেশনা, যা আমাকে একজন ভাল মানুষ হিসেবে গড়ে তোলে। সরকারের কি ভুল হচ্ছে তা বলার জন্য আমার চার্চের প্রয়োজন নেই। সর্বত্র ফিলিপিনোরা জানে যে জাতির সমস্যা কি। ইতিহাসে এখন এইসব ত্রুটি দুর করার সময়। আমার চার্চের প্রয়োজন যাতে সবসময় স্বামী দ্বারা নির্যাতিত দরিদ্র গৃহ পরিচারিকাকে নির্দেশনা দিতে পারি। আমি একটি চার্চ চাই যাতে পথশিশুদের পথ থেকে দূরে থাকতে এবং শিক্ষার দিকে নিয়ে যাবার ক্ষেত্রে তাদের আমি নির্দেশনা দিতে পারি। আমি চাই চার্চ জীবনের সাথে প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠুক।

ড্রিমওয়াকার পুলকিত এই কারণে যে এই প্রস্তাবিত আইন তা যত বিভক্তি পূর্ণ এবং বিতর্কিত হোক না কেন, সমাজের মাঝে বিতর্কের স্ফুলিঙ্গ তৈরী করে, তা সকলকে জাতীয় বিষয়ে আলোচনায় অংশ নিতে আগ্রহী করে তোলে।

আমি ক্রমাগত অবাক হচ্ছি, মনে হচ্ছে যে তাদের দেশে ঘটে যাওয়া ঘটনার বিষয়ে ফিলিপিনোদের আরও সচেতন মনে হচ্ছে এবং আমাদের প্রস্তাবিত ও বিদ্যমান উভয় আইনগুলো সম্বন্ধে আমরা জানতে আগ্রহী। আমার মতে,শুধুমাত্র এটি আরও ভালোর দিকে ধাবিত করে।

মাজু একটি যৌক্তিক বিষয়কে সামনে নিয়ে এসেছে যে আমাদের আইনপ্রণেতাদের উচিত সূক্ষ্ম দৃষ্টিতে বিবাহবিচ্ছেদ আইনকে গ্রহণ করা:

বিদ্যমান বিবাহবিচ্ছেদ আইনগুলো কতখানি ভাল অথবা খারাপ তা আমাদের বিবেচনায় আনা উচিত। উল্লেখ্য যে অনেক দেশে,  বিশেষত যারা শরিয়াহ অনুযায়ী পরিচালিত হয় , সে সব দেশে নারী ও পুরুষের বিবাহবিচ্ছেদ-এর অধিকার এক নয়।

সবশেষে,একজন আইনজীবী কনি ভেনেরাচিওন-এর একটি ভাল আলোচনা এখানে তুলে ধরা হয়েছে। এই আলোচনা সম্পর্কের ইতিটানা, ফিলিপিন্সের বিদ্যমান আইনের অধীনে আইনগত বিচ্ছেদ এবং কিভাবে বিবাহবিচ্ছেদ বর্তমান পারিবারিক কোডের জটিলতা নিরসন করতে পারে সে বিষয়ে এখানে আলোচনা করা হয়েছে।

পরবর্তী কালে,যদিও এটি পরিষ্কার হয় যে অতি সামান্য বিচ্যুতি সত্বেও মানসিক অক্ষমতার কারণে অনুমতিপ্রাপ্ত বিচ্ছেদের ক্ষেত্রে, আইনের মাঝে বিশাল ফাঁক আছে। বাতিলকরণ অনেক ব্যয়সাপেক্ষ, যার আইনী প্রক্রিয়ার খরচ সংখ্যাগরিষ্ঠও ফিলিপিনোদের আর্থিক ক্ষমতার বাইরে। বস্তিতে বসবাসকারী ধোপানী, যারা মাতাল কর্মহীন স্বামীর দ্বারা শারীরিকভাবে নির্যাতিত,তাদের জন্যে এটি সামর্থের বাইরে। উপরন্তু, কিছু করার প্রক্রিয়া ছিল অধিক সময়সাপেক্ষ ও বিরক্তিকর। ঘটনাচক্রে,বিবাহবিচ্ছেদ আইনজীবীরা পুনরায় শোরগোল শুরু করে। যেমনটা আশা করা হয়েছিলো,ক্যাথলিক চার্চ আরও কল্পনাপ্রবণ হচ্ছে বিবাহবিচ্ছেদের বিরুদ্ধে যুক্তি প্রদর্শনের জন্যে।

এটি দুঃখজনক যে অধিকাংশ ফিলিপিনো তাঁদের বিয়েকে ধর্মীয় প্রেক্ষাপট থেকে বিচ্ছিন্ন করে ভাবতে পারে না। এটি আরও বেদনাদায়ক যে অধিকাংশ ফিলিপিনোরা নিজেদের বৈধভাবে বিবাহিত ভাবেন না,যতক্ষণ না তাঁরা চার্চে গিয়ে বিয়ে করেন। এটা খুবই দুঃখজনক।

বিবাহবিচ্ছেদ আইন কি বিশেষ করে ফ্যামিলি কোডের একটি ত্রুটি হিসেবে দেখা দেবে? এটি  নির্ভর করে যে আইন কি রূপে বিবাহবিচ্ছেদকে বৈধ হিসেবে অনুমতি দেবে এবং পদ্ধতিটি যথাযথ হবে কিনা তার উপর। অতীতে কোন কিছু প্রশমনের জন্য একটি আইন পাশ করা হয়েছে। কংগ্রেস একটি “বিবাহবিচ্ছেদ” আইন পাস করতে পারে যা এর ভিত্তিকে সংকীর্ণ এবং প্রক্রিয়াকে জটিল করে ফেলতে পারে যার ফলে তা বিবাহবিচ্ছেদের উদ্দেশ্যকে ব্যহত করবে। আপনি জানেন,এটা বলা যেতে পারে যে যে বিবাহবিচ্ছেদ আইন পাস করা হয়েছে। আমার সন্দেহ তা প্রগতিশীল এবং বিবাহবিচ্ছেদের আইনজীবীদের সন্তুষ্ট করতে সক্ষম হবে কিনা।

জেকারট জিওয়াপনামের ফ্লিকার পৃষ্ঠা থেকে থাম্বনেল ব্যবহার করা হয়েছে। সি সি লাইসেন্স আট্রিবিউশন ২.০ জেনেরিক ( সি সি বাই ২.০)

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .