বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

মালাউয়ি: মুথারিকার মৃত্যুতে অনলাইনে প্রতিক্রিয়া

মালাউয়ি এবং মালাউয়ির বাইরের প্রচার মাধ্যম সংবাদ প্রদান করেছে, যে মালাউয়ির রাষ্ট্রপতি বিঙ্গু ওয়া মুথারিকা মারা গেছেন। এই লেখা প্রকাশের সময়েও এই বিষয়ে সরকারি কোন সংবাদ ভাষ্য প্রদান করা হয়নি, আনুষ্ঠানিক ঘোষণা প্রদান করার ক্ষেত্রে দেরি হবার কারণে, অনেকে বিশ্বাস করেছে যে আরো খারাপ কিছু ঘটেছে। [*নীচে এই বিষয়ের উপর প্রদান করা তাজা সংবাদ দেখুন]।

রাষ্ট্রীয় বেতার সংস্থা, রেডিও মালাউয়ি ব্রডকাস্ট কর্পোরেশন বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঘোষণা প্রদান করে যে,(সংবাদে জানা গেছে রাষ্ট্রপতির বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর) সকালে হৃদরোগে আক্রান্ত হবার কারণে, মুথারিকাকে দক্ষিণ আফ্রিকায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

মালাউয়ির রাজনৈতিক এবং সামাজিক পরিস্থিতির উন্নতি ঘটানোর জন্য স্থানীয় এবং আন্তর্জাতিক পর্যায় থেকে তার উপর প্রচণ্ড চাপ ছিল।

এদিকে এই ঘটনার পরেও মালাউয়ির শহরগুলো কাজকর্ম স্বাভাবিক ছিল, সামাজিক প্রচার মাধ্যমে ব্লগার এবং নেটনাগরিকরা মিশ্র অনুভূতির সাথে এই সংবাদ গ্রহণ করে।

মালাউয়ি ফুয়েল ওয়াচ নামক ফেসবুকের একটি গ্রুপের পাতায়, এক নেটনাগরিক লিখেছে:

লোল, রাষ্ট্রপতিও গেল আর এখন পেট্রল পাওয়া যাচ্ছে!

২০১০ সাল থেকে মালাউয়ির নাগরিকদের জ্বালানী তেলের জন্য ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়।

এদিকে অন্য আরেকজন লিখেছে :

পিটার মুথারিকা [রাষ্ট্রপতির ভাই], যদি এভাবে দেশ চলতে থাকে তাহলে জয়েসকে [উপ রাষ্ট্রপতি] উক্ত পদে থাকতে দিন, আমাদের এখন জ্বালানী তেলের প্রয়োজন…

নিউ ইয়র্কের মেট্রোপলিটন জাদুঘরে-এ বিঙ্গু ওয়া মুথারিকা। হোয়াইট হাউজের জন্য সরকারি ভাবে লরেন্স জ্যাকসনের তোলা ছবি যা পাবলিক ডোমেইনে প্রকাশ করা হয়েছে।

মালাউয়ির সাংবাদিক এবং ব্লগার রেবেক্কা চিমিজেকা সংবাদ প্রদান করেছে যে বিঙ্গুর মরদেহ শীঘ্রই মালাউয়িতে ফিরিয়ে আনা হবে। ভদ্রমহিলা বলেন যে মালাউয়ির জনগণ আশা করছে যে উপ রাষ্ট্রপতি জয়েস বান্দা সাংবাদিকবদের সাথে কথা বলবে। রেবেক্কা তার ব্লগে মুথারিকার মৃত্যু সংক্রান্ত তাজা সংবাদ প্রদান করে যাচ্ছে।

আরেকজন সাংবাদিক কোনডাওয়ানি মুনথালি, এর বিপরীত এক সংবাদে জানাচ্ছে যে মুথারিকাকে দক্ষিণ আফ্রিকার মিলপার্ক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে:

মালাউয়ি এখন এক বিভ্রান্ত অবস্থায় আছে। যদিও জানা গেছে যে বিঙ্গু মুথারিকা মিল পার্ক হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে, কিন্তু সরকার কখনোই তা স্বীকার করেনি।

চিকিৎসক, ডিপিপি, পরিবার এবং অন্য সকল সূত্র সকল কিছু, নির্দেশ করছে যে গতকাল বেদনাদায়ক ভাবে রাষ্ট্রপতি দেহত্যাগ করেছে এবং দক্ষিণ আফ্রিকার এক শব রাখার স্থানে তার মৃতদেহ রাখা হয়েছে।

মিলপার্ক হাসপাতালের তথ্যে জানা যাচ্ছে যে আজ সকাল পর্যন্ত সেখানে ১৬ জন রোগী ইনটেনসিভ কেয়ার বিভাগে ভর্তি ছিল, আর তাদের মধ্যে রাষ্ট্রপতি মুথারিকার নাম নেই।

তিনি এই আশায় মালাউয়ির জন্য প্রার্থনা করছেন যে, দেশটিতে সংবিধান সম্মত ভাবে সবকিছু ঘটবে:

এই ধরনের সংবাদ পাওয়া যাচ্ছে যে, শাসক দলের কেউ কেউ সংসদকে, সংবিধান পরিবর্তনে প্রভাবিত এবং বাধ্য করার চেষ্টা করছে যাতে উপ রাষ্ট্রপতি ক্ষমতায় যেতে না পারে।

তার ব্লগে এই প্রার্থনা করা হয়েছে, যেন সংবিধানকে বিরাজমান রাখা হয় এবং রাষ্ট্রপতির উত্তরাধিকারী, সম্মান এবং মর্যাদাকে, শান্তিপূর্ণ এবং সংবিধান সম্মতভাবে প্রদান করা হয়।

ফেব্রুয়ারি মাসে নাইজেরিয়ান টিবি জোশুয়ার করা, আফ্রিকার একজন রাষ্ট্রপতির মৃত্যু বিষয়ক ভবিষ্যদ্বাণী মালাউয়ির নাগরিকদের মাঝে ভীতির সঞ্চার করেছে এবং অনেক বিশ্বাসীর মনে হচ্ছে সৃষ্টিকর্তা এই পরিস্থিতিতে হস্তক্ষেপ করেছে।

*তাজা সংবাদ: মালাউয়ির উপ রাষ্ট্রপতি জয়েস বান্দা নিশ্চিত করেছেন যে রাষ্ট্রপতি বিঙ্গু ওয়া মুথারিকা মারা গেছেন এবং তিনি এই রাষ্ট্রপতির মৃত্যুতে ১০ দিনের শোক ঘোষণা করেছেন। তবে সরকারি মুখপাত্র বলেছেন যে, তিনি মুথারিকার উত্তরাধিকারী হতে পারবেন না, কারণ তিনি শাসক দলের সদস্য নন। ২০১০ সালে মুথারিকার সাথে রাষ্ট্রপতির উত্তরাধিকার দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়ে জয়েস ক্ষমতাসীন দল থেকে বহিস্কৃত হয়েছেন। মুথারিকা রাষ্ট্রপতি পদের উত্তরাধিকার হিসেবে তার ভাইয়ের মনোনয়নের জন্য প্রচেষ্টা চালাচ্ছিল।

মালাউয়ি ভয়েসেস সংবাদ প্রদান করেছে যে সামরিক বাহিনী প্রধান জয়েস বান্দাকে সমর্থন করে সংবিধানকে অনুসরণ করতে রাজী হয়েছে:

মালাউয়ির সামরিক বাহিনী এই ঘটনায় এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করল। সভাপতি হিসেবে জেনারেল ওদিলো সামরিক বাহিনীর প্রধানদের সাথে এক আলোচনায় বসে এবং সংবিধানকে অনুসরণ করার ব্যাপারে সকলে একমত হয়। জেনারেল, জয়েস বান্দা, পিটার মুথারিকা এবং গুডঅল গোন্ডাউয়িকে জানান যে, সামরিক বাহিনী সংবিধানের প্রতি আস্থাশীল, এবং অসাংবিধানিক কোন কিছুকে স্বাগত জানানো হবে না। কামুজু সেনানিবাসের সেনারা এই পরিস্থিতিতে প্রস্তুত অবস্থায় ছিল এবং অন্য কয়েকজন সেনা উপরাষ্ট্রপতির বাসভবন পাহারা দিয়েছে। এর সাথে পিটার মুথারিকার উপর ছিল যুক্তরাষ্ট্র সরকারের সরাসরি চাপ, যার ফলে “পিটার ও গুডঅল-এর পরিকল্পনা’ সফল হয়নি।

শুক্রবার রাতে সরকারে বেশ কয়েকজন মন্ত্রী এক সংবাদ সম্মেলনে হাজির হয়ে ঘোষণা প্রদান করে যে উপ রাষ্ট্রপতি জয়েস বান্দা, রাষ্ট্রপতি বিঙ্গু ওয়া মুথারিকার উত্তরসূরী হতে পারেন না।

এই প্রথম মালাউয়ির নাগরিকরা ক্ষমতাসীন অবস্থায় মৃত এক রাষ্ট্রপতির দেহ দাফন করতে যাচ্ছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .