বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

সৌদি আরবঃ আল বাজাদির অনশন ধর্মঘট নিয়ে টুইট করা

গতরাতে সৌদি নেট নাগরিকরা সম্মিলিত ভাবে ৩৪ বছর বয়স্ক সৌদি একটিভিস্ট মোহাম্মদ বাজাদির দুর্দশার কথা তুলে ধরার জন্য টুইট করা শুরু করে। কোন ধরনের অভিযোগ গঠন এবং কোন ধরনের নিরপেক্ষ শুনানী ছাড়াই তাকে এক বছর ধরে কারাগারে আটক রাখা হয়েছে এবং এই আটকাদেশের বিরুদ্ধে তিনি প্রায় গত দুই সপ্তাহ ধরে অনশন ধর্মঘট চালিয়ে যাচ্ছেন।

গত সপ্তাহে বাহরাইনের নেট নাগরিকরা আরব ও আন্তর্জাতিক টুইটার ব্যবহারকারীদের সহায়তায় অনলাইনে এই উদ্যোগ গ্রহণ করে। রাজবন্দী, মূলত উল্লেখযোগ্য মানবাধিকার কর্মী এবং একটিভিস্ট আবদুল্লাহ খোয়াজার সমর্থনে তৈরি #হাংরি৪(ফর)বিএইচ নামক হ্যাশট্যাগটিকে বিশ্বজুড়ে আলোচিত এক বিষয়ে পরিণত করেছে। কারাবন্দী আবদুল্লাহ খোয়াজা গত তিন সপ্তাহ ধরে অনশন ধর্মঘট পালন করে আসছে।

সমর্থকরা আল বাজাদির–এর সম্বন্ধে নীচের তথ্য প্রদান করেছেঃ

২০ মার্চ ২০১১-এ, #আলবাজাদি, সৌদি আরবে অবৈধ ভাবে আটককৃতদের পরিবারের প্রতি সমর্থন প্রদান করার জন্য কাসেম থেকে রিয়াদের উদ্দেশ্য রওনা দেন।
যদিও #আলবাজাদির কোন আত্মীয় সেখানে আটক ছিল না, তারপরেও তিনি সকল গ্রেফতারকৃতদের সমর্থনে প্রতিবাদ এবং টুইট করেছেন:
প্রতিবাদের সময় #আলবাজাদি টুইট করেছিল যে, এক কর্মকর্তা তাকে জিজ্ঞেস করেছিল, তার কোন আত্মীয় কি বন্দী আছে নাকি, তখন সে উত্তর দিয়েছিল বন্দী সকলে আমার পরিবারের একজন।
২১ মার্চ ২০১১-এ, যখন #আলবাজাদিকে গ্রেফতার করা হয়, তখন থেকে এখন পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ গঠন করা হয়নি বা তার মামলার শুনানী শুরু হয়নি। এমওআই আদালতে এখনো পুরো বিষয়টি অন্ধকারে রয়েছে, তার পায়ে সেকল পরানো।
১২ ফ্রেব্রুয়ারি ২০১২-এ #আলবাজাদি, এই বিচার বহির্ভুত গ্রেফতার/আটকাদেশ-এর বিরুদ্ধে অনশশন ধর্মঘট (#আলবাজাদিহাঙ্গারস্টাইক) আরাম্ভ করেন এবং এখন পর্যন্ত তিনি কোন কিছু খাননি

এখানে বেশ কিছু টুইট পোস্ট করা হয়েছে যা একটিভিস্ট, সাংবাদিক এবং টুইটার ব্যবহারকারীরা #আলবাজাদিহাঙ্গারস্ট্রাইক- হ্যাশট্যাগ-এর অধীনে করা হয়েছে। আল জাজিরার ল্যাটিন আমেরিকা অফিসের প্রধান দিমা খাতিব লিখেছেন:

@দিমা_খাতিব:মোহাম্মদ আলবাজাদি সৌদি আরবের কারাগারে আটক কারাবন্দীদের অধিকার রক্ষার জন্য লড়ে গেছে, যতক্ষণ না সে নিজেই তাদের একজনে পরিণত হয়েছে। এখন সে অনশন ধর্মঘট পালন করছে।

সৌদি আরবের একটিভিস্ট ওয়ালেদ আবু খায়ের,কয়েক মাস আগে যার নামে একটা মামলা হয়েছিল, তিনি এই টুইট সহ বেশ কয়েকটি টুইট পোস্ট করেছেন [ আরবী ভাষায়]:

من أوائل من دافعوا عن البجادي هو الغالي عبدالهادي خواجة إبان عمله في فرونت لاين فرّج الله عنهما ‎
@@ আবুআলখায়ের : বর্তমানে আরেক কারাবন্দী আবদুল্লাহ আল খাওয়াজা, কারাগারে আটক আলবাজাদির মুক্তির দাবীতে সোচ্চার ছিলেন। যখন তিনি ফ্রন্ট লাইন নামক প্রতিষ্ঠানে কাজ করতেন তখন তিনি এই দাবী জানান। পরম করুণাময় তাদের উভয়ের মঙ্গল করুন।

আনার ৩য়ারাবিয়া ছদ্মনামের এক সৌদি তরুণী আল বাজাদি এবং অন্য সব কারাদণ্ড প্রাপ্ত নাগরিকদের মধ্যে সম্পর্কের বিষয়টি তৈরি করেছেন:

@আনা ৩আরবিয়া :অনলাইনে একজনের উপর মনোযোগ প্রদান করে প্রচারণা, এই বিষয়ে মনোযোগ আকর্ষণের এক কার্যকর উপায়। এটা অন্য সব কারাবন্দীদের অবস্থান অস্বীকার বা উপেক্ষা করার বিষয় নয়।

দাস প্রথা বিরোধী মৌরিতানিয়ার একটিভিস্ট নাসের ওয়েড্ড্যাডি বেশ কয়েকটি টুইটের মাধ্যমে এতে অংশগ্রহণ করেছেন:

@ওয়েড্ডাডি: #আলাবাজদিহাঙ্গারস, আরেকটি মাইলফলক স্থাপন করল। এটি কর্তব্যপরায়ণ নুব্জ্য শাসক শ্রেণী বনাম তরুণ সংস্কারপন্থীদের মধ্যে লড়াই

জাফর আলসফর সৌদি আরবের অন্যতম এক টুইটারকারী যিনি সৌদি আরবের দক্ষিনের শহর কাতিফ-এর প্রতিবাদ নিয়ে মূলত টুইট করেছেন, তিনি উল্লেখ করেন:

@ জেসাফার : আমি খুব কমই আমার স্বদেশী সৌদি নাগরিকদেরএ রকম এক হতে দেখেছি …এবং কি এক কারণে তারা এক হয়েছে :’)

গালফ সেন্টার ফর হিউম্যান রাইটস –এর খালিদ ইব্রাহিম টুইট করেছে:

@ খালিদইব্রাহিম : ১২ সৌদি আরবের মানবাধিকার কর্মী আলবাজাদির মুক্তি চাই। এক বছরের অবৈধ কারাবাসের মাঝে ১৩ দিন ধরে সে অনশন ধর্মঘট পালন করে যাচ্ছে।

বাহরাইনের একটিভিস্ট আবদুল্লাহ আল খাওয়াজার নির্বাসিত জীবন যাপন কন্যা মরিয়ম আল খাওয়াজা, বাজাদির সমর্থনে টুইট করেছেন:

@ মারিয়ামআলখাওয়াজা: #আলবাজাদি, অনশন ধর্মঘট পালন করছে, কারণ আমরা যে কেউ গ্রেফতার হতে পারি, কথা বলা, প্রতিবাদ করা অথবা অস্তিত্ব নিয়ে থাকার কারণে যে কোন সময় গ্রেফতার হতে পারি

এবং তিউনিশিয়ার নাগরিক তোউনিশিয়া হুররা, আলবাজাদি এবং খাদের আদনান –এর মধ্যে এক সম্পর্ক তৈরি করেছেন। খাদের আদনান হচ্ছেন এক প্যালেস্টাইনি একটিভিস্ট যে কিনা বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে ধর্মঘট পালন করে আসছে [ আরবী ভাষায়]:

من ساند خضر عدنان فلن ينسى محمد البجادي ,الاثنان اعتقلا دون تهم ودون محاكمة مع فارق بسيط واحد من المحتل والثاني من نظامه
@ তোউনিশিয়াহুররা :যারা খাদের আদনানকে সমর্থন করছেন, তারা যেন আলাবাজাদিকে ভুলে না যান। কোন অভিযোগ ছাড়া, কোন বিচার ছাড়াই উভয়ে গ্রেফতার করে রাখা হয়েছে। তবে উভয়ের মধ্যে পার্থক্য হচ্ছে, একজনকে দখলদার বাহিনী বন্দী করেছে, আর আরেক জনকে বন্দী করেছে তার নিজ দেশের শাসক।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .