বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

সৌদি আরব: সাংবাদিক হামজা কাশগারির ভাগ্য ঝুলছে

সৌদি সাংবাদিক হামজা কাশগারি গত সপ্তাহে নবী মোহাম্মদের সাথে একটি কাল্পনিক কথোপকথন টুইট করে সামাজিক প্রচার মাধ্যমে বিস্ফোরণ সৃষ্টি করেন। ইতোমধ্যে মুছে ফেলা তার টুইটে তিনি নবীর কাছে লিখেছিলেন: “আমি আপনার মধ্যেকার বিদ্রোহীকে পছন্দ করি” কিন্তু “আমি আপনাকে ঘিরে থাকা ধর্মীয় দ্যুতিটিকে পছন্দ করি না। আমি আপনার জন্য প্রার্থনা করবো না।” তিনি আরো লিখেছিলেন,”আমি সম অবস্থান থেকে [আপনার কর মর্দন করবো] হাত মেলাব। … আমি আপনার সাথে কথা বলবো একজন বন্ধুর মতো, তার বেশি নয়।”

টুইট প্রকাশ করতে না করতেই, কাশগারি মৃত্যুর হুমকি পেতে শুরু করেছেন। একটি সামাজিক প্রচার মাধ্যম সাইটে তার ঠিকানা পোস্ট করে ধর্মীয় নেতারা তাকে ফাঁসি দেয়ার জন্যে অথবা ধর্মত্যাগের জন্যে তার বিচার করার আহ্বান জানান। ৮ ফেব্রুয়ারী তিনি নিউজিল্যান্ডের উদ্দেশ্যে দেশত্যাগ করেন। … কিন্তু মালয়েশিয়ায় ট্রানজিটের সময় স্থানীয় কর্তৃপক্ষ তাকে আটক করে; তার অল্পকাল পরেই খবর বেরোয় যে সৌদি আরব একটি নির্বাসন আদেশ জারি করেছে। মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী হাশিমুদ্দিন হুসেনকে উদ্ধৃত করে বলা হয়েছে যে মালয়েশিয়া কাশগারিকে সৌদি আরবে প্রত্যাবাসন করবে। কাশগারির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে মাত্র মধ্যসপ্তাহে আবির্ভূত ফেসবুকের একটি পৃষ্ঠার বর্তমান সদস্যসংখ্যা দেড় হাজারেরও বেশি।

প্রকাশিত হওয়ার সময়ের মতো কাশগারির প্রত্যাবাসন থেকে মালয়েশীয় কর্তৃপক্ষকে বিরত রাখতে একটি অন্তবর্তী আদেশ জারি করা হয়েছে:

@ফাদিয়ানাদওয়া:বিচারপতি রোহানা ইউসুফ জেযেড #হামজকাশগারি সৌদি আরবে প্রত্যাবাসন বন্ধ করতে সরকারের প্রতি একটি অন্তবর্তী আদেশ জারি করেছে। পুলিশকে দেয়ার জন্যে আদালতের আদেশটি আমাদের পথেই রয়েছে।

আবার কাশগারিকে নির্বাসিত করার অসমর্থিত সংবাদও পাওয়া গেছে
একটি মতামত যুদ্ধ

কাশগারির বিচারের যুক্তিতে সামাজিক নেটওয়ার্কে তার স্বদেশী সৌদি নাগরিকদের মধ্যে একটি মতামত যুদ্ধ শুরু হয়েছে। সৌদি আরব ও মালয়েশিয়ার নাগরিকসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সদস্যদের কাশগারিকে মালয়েশিয়া থেকে নির্বাসন না দেয়ার আহ্বানের সংখ্যা তাদের বিচারের আহ্বানের সংখ্যাকে হার মানিয়েছে বলে মনে হচ্ছে ।

সৌদি ব্লগার আহমেদ আল ওমরান বিশ্বাস করেন যে মামলাটিতে চোখে দেখার চেয়ে বেশি কিছু আছে:

নবীকে স্পর্শ করে এমন কিছুকে মুসলমানেরা কিভাবে নিবে তা আমি বুঝতে পারলেও, এটা পুরো গল্পের ব্যাখ্যা নয়। হ্যাঁ, অনেকে এসংক্রান্ত বিষয়গুলোকে শক্তভাবেই দেখবেন এবং সেই অনুসারে তারা প্রতিক্রিয়াও ব্যক্ত করবেন। তবুও এটা স্পষ্ট যে ডানপন্থী অনেকেইে ঘটনাটি থেকে সুবিধা নেয়ার এবং রাজনৈতিক ফায়দা লুটার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এটা খুব কাছে ঝুলে থাকা একটি ফল।

কেউ কেউ হয়তো ধর্মীয় রক্ষণশীলদের নবীর সম্মান রক্ষার বিষয়টিকে নিছক ধার্মিকভাবে দেখতে পারেন, অন্যরা বলছে আরো কিছু রয়েছে এর পিছনে – আসলে এটি একটি দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার অংশ।

আরব নিউজের লেখিকা মারিয়াম সম্ভাব্য অভিযোগের ব্যাপারে আতংকিত:

@ওনলিমাইটুইটস্:ঈশ্বর মানবজাতিকে বিচারের অধিকার দিয়েছেন একথা বলা কোন আয়াত বা হাদীস আমার জানা নেই। অথবা শুধু আমাকে? #হামজকাশগারি @সালমানতাসীর

স্বঘোষিত সৌদি আমেরিকান কবি বিনতে তালাল, কাশগারির নিরাপত্তা জন্য তার উদ্বেগ টুইট করছেন। ভদ্রমহিলা টুইট করেছেন:

@মাজদা৭২:আমি ঘুমাতে যেতে চাই, তবে আমি #হামজাকাশগারির জন্যে ভয় পাচ্ছি। আমি সারাক্ষণ টুইটারে নজর রাখছি এবং খারাপটাই আশংকা করছি।

সামাজিক প্রচার মাধ্যমের প্রতিক্রিয়ায় রাগান্বিত @আরফাতানি টুইট করছেন:

@আরফাতানি:হাজার হাজার টুইটে #হামজাকাশগারির মাথা ফেলে দিতে বলছে! ‘ঘৃণা উদ্দীপক’ আইন আছে এমন দেশগুলোতে তাদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা উচিৎ।

হুমকির সাজাটি যে অপরাধের সাথে সঙ্গতিপুর্ণ নয়, সেই ব্যাপকবিস্তৃত অনুভূতিটিই প্রতিফলিত হয়েছে লেখক খালেদ আলমাঈনার টুইটগুলোতে:

@khaledalmaeena: ان الله غفور رحيم ولو كان حبيبنا سيدنا محمد صلى الله عليه وسلم بيننا وسمع اعتداره وشهادته لسامحه ‎#hamzakashgari‏ ‎#saudi‏ ‎#ksa

@খালেদআলমাঈনা: ঈশ্বর ক্ষমাশীল এবং মোহাম্মদ (সাঃ) জীবিত থাকলে তিনি তার কৈফিয়ৎ শুনে তাকে হয়তো ক্ষমা করে দিতেন।”

কাশগারিকে হয়তো ফেরৎ পাঠানো হতে পারে – সৌদি আরবে একথা শুনতে আগ্রহীদের মধ্যে অন্যতম @আবোতামেন টুইট করেন:

@আবোতামেন:@এনসারেন্ড্রানএন আমাদের ভাই হামজা তার বাড়ির পথে … সে আপনার আইনের অধীন নয়!! #হামজাকাশগারি

@এমকাবএমআর, মনে করেন কাশগারি বেশি বেশি করে ফেলেছেন:

@এমকাবএমআর:মুহাম্মদ (সাঃ)কে ব্যক্তিগতভাবে ব্যঙ্গকারী যে কোন ব্যক্তিই #হামজকাশগারির মতো একজন অনাস্থাভাজন ব্যক্তি ।

কিন্তু টুইটারের সাধারণ অনুভূতির সাথে বেশি মিল আছে @আরবরেভুলুশান-এর টুইটটিতে:

@আরবরেভুলুশান: শুধু একথাই বলতে চাই, আমি বা অন্যান্য লাখো মুসলমানের কেউই # হামজাকাশগারি নিয়ে সৌদিদের সিদ্ধান্তের সাথে একমত নই।#ফ্রিহামজাক

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .