বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

যুক্তরাষ্ট্র: কিংবদন্তির কম্পিউটার বিজ্ঞানী ডেনিস রিচি মারা গেছেন

কম্পিউটার বিজ্ঞানের কিংবদন্তী ডেনিস রিচি ৭০ বছর বয়সে নিউ জার্সির তার বাসায় গত অক্টোবর ৮, ২০১১ তারিখে মারা গেছেন, পিছনে রেখে গেছেন বিশ্ব উন্নয়নের বিশাল এক প্রভাব। রিচি সি প্রোগ্রামিং ভাষার উদ্ভাবক ছিলেন, যা সব থেকে বেশী ব্যবহৃত প্রোগ্রামিং ভাষা।

বুয়িংবুয়িং এর জেনি জারদিন অনুসারে গত ১২ই অক্টোবর প্রথম এই সংবাদ গুগুল+ এর মাধ্যমে জনসমক্ষে জানান কানাডিয় সফটওয়ার প্রকৌশলী রব পাইক। রিচির মতো তিনিও বেল ল্যাবসে তার কাজের জন্য পরিচিত।

তিনি লিখেছেন (টুইটার থেকে একটা সি প্রোগ্রামিং নিয়ে কৌতুক এর উক্তি তুলে ধরে):

ডেনিস রিচির  (১৯৪১-২০১১) খুব বিরল একটি ছবি

ডেনিস রিচির (১৯৪১-২০১১) খুব বিরল একটি ছবি। সূত্র উইকিপিডিয়া (উন্মুক্ত ডোমেইন)

তিনি সি প্রোগ্রামিং ভাষার মূল উন্নয়নকারী আর ডিজাইনার ছিলেন, আর ইউনিক্স এর উন্নয়নের মূল চালক। তিনি বেল ল্যাবসে তার অধিকাংশ সময় কাটিয়েছেন। ১৯৮৩ সালে তাকে তুরিং পুরষ্কার আর ১৯৯৯ সালে প্রযুক্তির জন্য জাতীয় মেডেল দেয়া হয়।

“রিচির প্রভাব (স্টিভ) জবসের সাথে প্রতিপক্ষ হিসাবে কাজ করে, কেবলমাত্র এটা কম দেখা যায়,” টুইটারে জেমেস গ্রিমেল্ম্যান জানিয়েছেন। “ তার পয়ন্টার শূন্যতে ছেড়ে দেয়া হয়েছে, তার প্রসেসকে থামিয়ে দেয়া হয়েছে এক্সিট কোড ০ দিয়ে।“

ট্যাকজেডোর অফিসিয়াল ব্লগ (ওয়েব এপ্লিকেশন শব্দের ক্লাউড তৈরির জন্য) রিচির সেমিনাল পাঠ্যবই ‘দ্যা সি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ’ থেকে শব্দ ব্যবহার করেছে শ্রদ্ধাঞ্জলী হিসাবে একটা শব্দের ক্লাউড তৈরি করতে, আর লিখেছে:

আজকে আমরা প্রযুক্তির একজন বিশাল লোককে হারিয়েছি। ডেনিস ম্যাকঅ্যালিস্টার রিচি, ইউনিক্স আর সি প্রোগ্রামিং ভাষার কেন থম্পসনের সাথে সহ- সৃষ্টিকারী, ৭০ বছর বয়সে মারা গেছেন। কম্পিউটার শিল্পে রিচি অনেক বড় অবদান রেখেছেন, যা সরাসরি বা পরোক্ষভাবে বিশ্বব্যাপী মানুষের জীবন (উন্নত করতে) প্রভাব ফেলেছে, আপনি তা জানেন বা না জানেন।

ওভারক্লক.নেট নামে বিজ্ঞান আর প্রযুক্তির সংবাদ ফোরামে এন্ডিগোয়াপ নামে একজন মন্তব্যকারী তাকে স্যার আইজ্যাক নিউটনের সাথেও তুলনা করেছেন, যিনি ইতিহাসের একজন বিশিষ্ট পদার্থবিদ আর গণিতবিদ।

আইজাক নিঊটন একবার বলেছিলেন তিনি দৈত্যের কাঁধে দাঁড়িয়ে আছেন। রিচি একজন দৈত্য ছিলেন যার কাঁধে ভর দিয়ে স্টিভ জবস এর মতো মানুষ দাঁড়িয়ে ছিল।

আপনি তাকে চেনেন না? তিনি সি ল্যাঙ্গুয়েজ এর পিতা, তাকে ছাড়া (উইন্ডোজ, এ্যাপেল) অপারেটিং সিস্টেম থাকতো না; খেলা, প্রোগ্রাম, আপনার এ্যাপেলের অ্যাপস, এন্ড্রয়েড থাকতো না। অনেকে তাকে কম্পিউটার বিজ্ঞানের পিতা বলেন। তার অনেক প্রাপ্তি আছে…

যদি কেউ বেসিক প্রোগ্রামিং না পড়ে থাকেন (যার মধ্যে সংশ্লিষ্ট প্রোগ্রামিং ভাষা হিসাবে সি এর কোন সংস্করণ) তারা হয়তো এমন একজন সংযত আর অন্তর্মূখী মানুষের গুরুত্ব বুঝবেন না। রিচি না কখনো তার প্রাপ্তি দেখিয়ে বেড়িয়েছেন না কোন ব্যবসায়িক আইকনে পরিণত হয়েছেন।

সব থেকে আধুনিক কম্পিউটার অপারেটিং সিস্টেম যেমন জিএনইউ/ লিনাক্স আর এপেলের ম্যাক ওএস সরাসরি ইউনিক্স থেকে আসে। যে সকল কম্পিউটারে ইউনিক্স বা জিএনইউ/লিনাক্স চলছে তারা মূলত ইন্টারনেটের ভিত্তি প্রদান করে, সার্ভার বা রুটার হিসাবে, বা প্লাটফর্ম হিসাবে যেখানে গুগুল ওয়েব সার্চের মতো অ্যাপ্লিকেশন চালানো যায়।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .