বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ইরানঃ নির্যাতিত ভালুক শাবকের বিতর্কিত ভিডিও প্রচার

ইরানিয়ান প্রাণী নিষ্ঠুরতা প্রতিরোধ সংগঠন কর্তৃক ইসফাহান প্রদেশের সামিরমে একটি বাদামি ভালুক হত্যা ও তার শাবকদের উপর ‘শিকারীদের’ খেলা সদৃশ নির্যাতনের একটি ভিডিও প্রকাশের পর থেকেই ঘটনার শুরু। তারা একটি শাবকের পেট চিরে ফেলেছিল এবং যতক্ষণ পর্যন্ত সেটি জীবিত ছিল, এবং তাকে ছুঁড়ে ফেলেছিল।

এই ভিডিও চিত্রটি ইরানিয়ানদের মধ্যে বিতর্ক ও বেদনার ঢেউ তুলেছে, এবং ঐ শিকারিদেরকে শাস্তি দেয়ার জন্য ইরানিয়ান কর্তৃপক্ষকে আহবান জানিয়ে একটি ফেসবুক পাতা খোলা হয়েছে, ১৯০০রও বেশি মানুষ অংশ নিয়েছে। ঐ পাতায় প্রকাশিত সামিরমের সংসদ সদস্য বেহরুজ জাফরির একটি প্রতিক্রিয়া প্রকাশিত হয়েছে যেখানে তিনি এ ঘটনাকে ‘ইসলামিক প্রজাতন্ত্রের পরিবেশের উপর একটি নেতিবাচক চিত্র’ বলে আখ্যায়িত করেছেন। ফেসবুক গ্রুপটির সমর্থকদের প্রশ্ন:

“কেন আপনি আপনার দায়িত্ব থেকে সরে আসতে চাচ্ছেন এবং সবকিছু রাজনৈতিকভাবে নেয়ার চেষ্টা করেন?”

খবরের প্রতিবেদন অনুসারে ‘শিকারিদের’ মধ্যে দু’জন গ্রেফতার হয়েছে। একজনের নাম হামজা আলি আনসারি, সে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে কাজ করে এবং সামিরমের সাংসদের সাথে তার ব্যক্তিগত পরিচয় আছে।

Pashmak লিখেছে:

এই তথ্যচিত্রটি প্রাণীদের প্রতি মানুষের সীমাহীন নিষ্ঠুরতা দেখিয়েছে…তারা ভালুকটিকে হত্যা করেছে ও শাবকগুলোর উদর চিরে ফেলেছে এবং নিজেরাই ভিডিও ধারণ করেছে…ভাল যে তারা চিত্রটি ধারণ করেছে কারণ সেটি তাদের গ্রেপ্তারে সহায়তা করেছে…হামজা আলি আনসারি, একজন শিক্ষক, যে মূল অপরাধী এবং ইতোমধ্যে ১০০ বারেরও বেশি আইন লংঘন করেছে কিন্তু তার সাথে সামিরমের সাংসদ বেহরুজ জাফরির সুসম্পর্ক আছে।

ইরানিয়ান ব্লগার কামালিয়া ভালুকগুলোর ব্যাপারে একটি প্রতিবেদনে জিজ্ঞেস করেন, “তাদের কী অপরাধ ছিল এভাবে শিকার হওয়ার জন্য?” এই ব্লগারও একজন ‘শিকারির’ রাজনৈতিক পরিচয় উল্লেখ করেন।

অপর এক ব্লগার, জুশ লিখেছেন:

৩২ বছর ধরে ইসলামিক প্রজাতন্ত্রের বর্বরতায় বসবাসের পর, ইরানিয়ান জাতি এখন মৃত্যুর দিকে ধাবিত হচ্ছে…এখন তা ভাল ও মন্দের পার্থক্য বুঝতে পারছে না…আজ আমি ইরানিয়ান হয়ে লজ্জিত।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .