বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

৯/১১ নামক ঘটনার পর্যালোচনা: একটি প্রজন্মের জন্ম

এই প্রবন্ধটি গ্লোবাল ভয়েসেস এর-৯/১১ নামক ঘটনার পর্যালোচনার উপর করা বিশেষ প্রবন্ধের একটি অংশ

 Some rights reserved by PeterJBellis

পিটারজেবেলিস-এর কিছু অধিকার সংরক্ষণ সাপেক্ষে প্রকাশিত

নিউ ইয়র্কের ৯/১১ জাদুঘর সিসি বাই পিটারজেবেলিস


মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উপর আল কায়েদার ৯/১১ নামক সম্মিলিত হামলার দশ বছর অতিক্রান্ত হয়েছে। এটি ছিল এমন এক ঘটনা যার মধ্যে দিয়ে মধ্যপ্রাচ্যের নাগরিকদের প্রতি পশ্চিমের মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি পাল্টে গেছে, তাদের দৃষ্টিভঙ্গি পাল্টে গেছে ইসলাম ধর্মের প্রতি এবং এর ফলে তারা ভ্রমণ এবং সীমান্ত পারাপারের বিষয়ে নতুন ধরনের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। সংক্ষিপ্ত কিছু ধারাবাহিক ভিডিওর মাধ্যমে সারা বিশ্বের কিছু তরুণ, যারা ৯/১১ নামক ঘটনা পরবর্তী সময়ে তারুণ্যে উপনীত হয়েছে, তারা তাদের দৃষ্টিভঙ্গির বিষয়ে আলোচনা করেছে।

যখন এই হামলা চালানো হয় তখন সালমা এল শানসোরি টেক্সাসে বাস করতেন। আমেরিকান একজন মুসলমান হিসেবে তিনি অনুভব করেছেন, এই ঘটনার পর মুসলমানদের ক্ষেত্রে উপেক্ষা এবং সমর্থন উভয়ের মাধ্যমে এক নেতিবাচক গতানুগতিক ধারণা তৈরি জন্ম হয়েছে, এই সম্প্রদায়ের মহানুভবতা এবং বিনম্রতার কারণে এই হামলার ঘটনার পর অজানা লোকেরা এই সম্প্রদায়ের সাহায্য এগিয়ে এসেছে। তিনি ভাবতে চান যে তাঁর প্রজন্ম এমন হবে এমন এক প্রজন্ম, যারা অচেনা লোকেদের পাশে এসে দাঁড়ানোর শিক্ষা লাভ করবে, যে অচেনা একজনের মুখে অনিশ্চয়তা রয়েছে এবং সবাই এক ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে তাদের প্রতিক্রিয়া প্রদর্শন করবে।

মরোক্কোর হিশাম আলমিরাত [ঘোষণা: হিশাম গ্লোবাল ভয়েসেস-এর এক সহযোগী কর্মী] অনুভব করেছেন যে, একজন মুসলমান এবং আরব হিসেবে ভুলভাবে উপস্থাপিত হচ্ছেন: কেবল সরকারের কাছে নয়, যে সরকার সবাইকে জানাতে ব্যর্থ হয়েছে যে এমন অনেক মানুষ রয়েছে যারা এই হামলাকে সমর্থন করেনি, কিন্তু একই সাথে প্রচার মাধ্যমও এবং আক্রমণকারীরা নিজেরাও তা জানাতে ব্যর্থ হয়েছে, যারা ঘোষণা প্রদান করে যে, আরবদের পক্ষ হয়ে তারা এই কাজ করেছে। এই ঘটনার ১০ বছর পরে, তিনি দেখছেন যে আরবের একনায়ক শাসকদের জনপ্রিয়তায়, উন্মাদনা এবং উগ্রবাদ হ্রাস পাচ্ছে, আর তার সাথে জনপ্রিয় গণজাগরণ দেখা দিচ্ছে, যে গণ জাগরণ লড়াইয়ের মধ্যমে এই সমস্ত শাসকদের উৎখাত করে, তার বদলে সেখানে অনেক বেশী এক সাম্যবাদী সমাজ স্থাপন করেছে।

প্রজন্ম৯/১১: হিসাম আলমিরাত (মরোক্কো), ভিমিও-তে, ব্রিটিশ কাউন্সিল ইউএসএ-এর ভিডিও

হাঙ্গেরির ক্রিজষ্টিয়ান গাল এই বিষয়টির উপর দৃষ্টি প্রদান করেছে যে, যদিও ভৌগোলিকভাবে তাদের দেশ থেকে অনেক দূরে এই ঘটনা ঘটেছে, তারপরেও এই ঘটনায় যারা নিহত হয়েছেন, তাঁর দেশের অগ্নিনির্বাপক কর্মী এবং স্কুলের বাচ্চার তাদের স্মরণে কিছু কর্মকাণ্ড পালন করে থাকে। যে বিষয়টি তিনি অনুভব করেছেন সেটি হচ্ছে এই ঘটনা একজন বহিরাগত এক ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি প্রদান করে যে সেখানে আসলে কি ঘটছে, এবং বিষয়টি ভিন্ন ভিন্ন সংস্কৃতি এবং জাতীর সাথে যুক্ত হওয়ার মাধ্যমে বিশ্ব রাজনীতি এবং আন্তর্জাতিক সম্পর্ককে আরো ভালো ভাবে উপলব্ধি করা যায়। তিনি তার কাজ এবং জীবনের ক্ষেত্রে এক নতুন অন্তর্দৃষ্টি যুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

প্রজন্ম৯/১১: ক্রিজষ্টিয়ান গাল (হাঙ্গেরী), ভিমিও-তে, ব্রিটিশ কাউন্সিল ইউএসএ-এর ভিডিও

ক্রিস্টিয়ান বালির বাস যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে, কি ভাবে এই ঘটনার মধ্যে দিয়ে তাঁর সম্প্রদায়ের মধ্যে ভয় ছড়িয়ে পড়েছে এবং এর ফলে সীমান্তকে বিপদের এক ক্ষেত্রে হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এই ঘটনার পর অভিবাসীদের ভয়ের চোখে দেখা হয় এবং এর ফলে এখন আমরা বনাম তারা নামক এক এক ঘটনার সৃষ্টি হয়েছে, এমনকি যদিও আক্রমণকারীরা মেক্সিকো-যুক্তরাষ্ট্র সীমান্ত দিয়ে প্রবেশ করেনি এবং এখানকার সম্প্রদায়ের এই হামলার সাথে কোন সম্পৃক্ততা ছিল না। এক সময় যে অরক্ষিত সীমান্ত প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে সংস্কৃতি বিনিময়ের একটা অংশ ছিল, এখন তা একটা দেওয়ালে পরিণত হয়েছে এবং ভদ্রমহিলা বলছেন যে এটা সমগ্র গতিশীলতার উপর প্রভাব ফেলছে এবং তার শহরের জীবনযাত্রাকে পাল্টে ফেলেছে।

প্রজন্ম৯/১১: ক্রিস্টিয়ান বালি (যুক্তরাষ্ট্র), ভিমিও-তে, ব্রিটিশ কাউন্সিল ইউএসএ-এর ভিডিও

প্রজন্ম ৯/১১ ভিডিও প্রজেক্টে-এর সাইটে আপনার আরো ভিডিও দেখতে পাবেন। এটি ব্রটিশ কাউন্সিলের আওয়ার শেয়ারড ফিচার এবং ট্রান্সলান্টিক নেটওয়ার্ক ২০২০ নামক প্রকল্পের এক যৌথ উদ্যোগ।

এই প্রবন্ধটি গ্লোবাল ভয়েসেস এর-৯/১১ নামক ঘটনার পর্যালোচনার উপর করা বিশেষ প্রবন্ধের একটি অংশ

থাম্বনেইল ছবি “ডাব্লিউটিসি-এর আলোর মাধ্যমে শ্রদ্ধা” ১১ সেপ্টেম্বর,২০০৮-এর বিষয়টি প্রদর্শন করছে। ছবি ফ্লিকার ব্যবহারকারীমিল্কমিট-এর (সিসি বাই-এনসি-এনডি২.০)।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .