বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

লিবিয়াঃ রমজান মাসে মানবিক পরিস্থিতি ক্রমেই খারাপের দিকে গড়াচ্ছে

এই প্রবন্ধটি লিবিয়ার গণজাগরণ ২০১১-এর উপর করা আমাদের বিশেষ কাভারেজের অংশ

লিবীয় নাগরিকরা ক্রমশ জীবন ধারনের প্রয়োজনীয় উপাদানের তীব্র সঙ্কটে ভুগছে, বিশেষ করে রমজান মাসে যখন যুদ্ধ তীব্র আকার ধারণ করেছে। দেশটিতে এখন খাদ্য থেকে পানি এবং জ্বালানী তেল থেকে বিদ্যুৎ-সবকিছুর তীব্র সঙ্কট দেখা দিয়েছে। মৃত মানুষদের করব দিতে তাদের অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে এবং দেশটিতে কি ঘটছে সে ব্যাপারে তারা বিশ্বাসযোগ্য কোন তথ্য পাচ্ছে না। যার ফলে এই রমজান মাসে রোজা রাখার বিষয়টি তাদের জন্য আরো কঠিন হয়ে দাঁড়াচ্ছে।

লিবিয়ায় মোমবাতির আলোয় ইফতার করা।

ফেসবুকে, চেঞ্জইনলিবিয়া নীচের ছবিটি প্রদর্শন করছে, যে ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে লিবীয় একটি পরিবার এই রমজানে অন্ধকারে ইফতার করছে। রমজান মাসে মুসলমানরা দিনের বেলায় পানাহার থেকে বিরত থাকে।

@চেঞ্জইনলিবিয়া: ত্রিপলি এখন অন্ধকারে ডুবে আছে…মানুষজন বিদ্যুৎ ছাড়া রান্না এবং ইফতার করার চেষ্টা করছে # লিবিয়া http://fb.me/1clc8E4RH

লিবিইইয়া নিশ্চিত করেছে:

@ লিবিইইয়া :আল সারাজ-এ পরপর তিন দিন ধরে বিদ্যুৎ নেই। আরটি @লিভ২ ত্রিপলি:# ত্রিপলি: কখনো কখনো আট ঘণ্টা ধরে বিদ্যুৎ থাকছে না এবং প্রায়শ এই ঘটনা ঘটছে।

মোহাম্মদ শরিফ আরউক টুইট করেছে (আরবী ভাষায়):

اهل طرابلس يعيشون وضع مأساوي لا كهرباء ولا ماء(المنازل التي تستعمل المضخات) ولاهواتف ولا بنزين ولا ديزل والأخبار… http://fb.me/15OqHJQZD
@ মোহাম্মদশরিফআরউক: ত্রিপলির জনতা এখন এক বিপর্যস্ত পরিবেশে বাস করেছে: বিদ্যুৎ নেই, পানি নেই, (বাড়ীতে যারা পানির পাম্প ব্যবহার করে), ফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন, জ্বালানী তেল নেই, ডিজেল নেই, কোন সংবাদ নেই।

বিনতেবেনগাজি (বেনগাজির কন্যা) এর সাথে যোগ করেছে:

@ বিনতেবেনগাজি: লিবিয়ার জাউইয়ায় এলাকায় পানি এবং বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছে #জাউইয়া, #লিবিয়া# ফেব১৭#গাদ্দাফিক্রাইম

ত্রিপলিতে অবস্থিত সিএনএন-এর সাংবাদিক ইভান ওয়াটসন টুইট করেছে:

@ইভানসিএনএন: #ত্রিপলির কেন্দ্রস্থল ও তার আশেপাশের এলাকায় বিদ্যুৎ নেই, এবং পুরো এলাকা ঘন অন্ধকারে ডুবে আছে। নাগরিকরা মোমবাতির আলোয় ইফতার, রাতের আহার সারছে। স্পোকই #লিবিয়া।


@ইভানসিএনএন
: #রিক্সস হোটেল বিদ্যুৎ নেই, #ত্রিপলিতে আসা বিদেশী সাংবাদিকদের যে হোটেলে অবস্থান করা অনেকটা বাধ্যতামূলক [ হোটেলের বাইরে পা রাখতে গেলে অনুমতির প্রয়োজন]। এই প্রথমবারের মত এই ঘটনা ঘটল।

এদিকে, দি লিবিয়ান ওয়ান আমাদের স্মরণ করিয়ে দিচ্ছেন:

@দিলিবিয়ান১: লোকজন তাদের ট্যাঙ্ক ( তেল দিয়ে ) ভর্তি করতে পারে না, তার মানে এই নয় যে গাদ্দাফি তার ট্যাঙ্ক পূর্ণ করতে পারে না।

এবং বিনতে_তারহোন্না প্রশ্ন করেছে:

@ বিনতে_তারহোন্না : তার মানে গাদ্দাফি বিদেশে জ্বালানী তেল বিক্রি করছে, যখন ত্রিপলিতে বাস করা আমার পরিবারের লোকজন গত সপ্তাহে দিনে ৩ ঘন্টা বিদ্যুৎ ছাড়া কাটাচ্ছে#লিবিয়া

যদি বিদ্যুৎ না থাকা এবং পানি ও জ্বালানী তেল না পাওয়ার বিষয়টি যথেষ্ট বলে বিবেচিত না হয়, তাহলে এই রমজান মাসে বাসাগুলোর উপর বোমা ফেলা হবে।

১৭০২২০০১১ লিবিয়া ইউটিউবে প্রদর্শীত নীচের এই ভিডিওটি জালুর কিছু ক্ষতিগ্রস্থ ভবনের দৃশ্য তুলে ধরছে, অভিযোগ রয়েছে যে এই সব বাড়ীর উপর গাদ্দাফির সেনার বোমা বর্ষণ করেছে:

ডিসপ্লেসড লিবিয়ান তার দেশে যুদ্ধ শুরু হবার পর থেকে তাকে যে সব বেদনাদায়ক ঘটনার মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে তার কিছু আমাদের শোনাচ্ছেন। তিনি লিখেছেন:

@ডিসপ্লেসডলিবিয়ান :#লিবিয়ার গৃহযুদ্ধ শুরু হবার পর ৬ মাস পার হয়ে গেছে এবং আমি আমার পরিবারে ৪ জন সদস্য, আর শত শত প্রতিবেশীকে হারিয়েছি। জেলে যারা বন্দী আছে তাদের এখনো হিসেবের মধ্যে আনিনি।

@ডিসপ্লেসডলিবিয়ান : #লিবিয়ার গৃহযুদ্ধ শুরু হবার ৬ মাস পার হয়ে গেছে এবং আমাকে তিনটি শহরে উদ্বাস্তু হিসেবে আশ্রয় নিতে হয়েছে

@ডিসপ্লেসডলিবিয়ান : #লিবিয়ার গৃহযুদ্ধ শুরু হবার ৬ মাস পার হয়ে গেছে এবং ফেসবুকে বন্ধু বিবেচনা করা যায় এমন কিছু নাগরিক সংবেদনশীল প্রশ্ন করতে উৎসাহ প্রদান করে আপনার জীবন বিপন্ন করে তুলছে।

দানিয়া বি মাহমুদ বিস্মিত:

@সিইওদানিয়া: বিস্মিত এই কারণে যে, কতজন মা তার সন্তানকে, কতজন বোন তার ভাইকে এবং কতজন স্ত্রী তার স্বামীকে হারিয়েছে। # গাদ্দাফিক্রাইম

এবং সর্বশেষ কাহিনী, কিন্তু অন্যগুলোর মত সমান গুরুত্বপুর্ণ, ইয়েমেন থেকে নুন আরাবিয়া, লিবিয়া এবং সিরিয়া উভয় রাষ্ট্রের নাগরিকের জন্য এক প্রার্থনা করেছে.

@নুনআরাবিয়া: ঈশ্বর লিবীয় নাগরিকদের রক্ষা করুন যারা সম্মুখ সমরে লড়ছে #লিবিয়া এবং #সিরিয়ার সেই সব সিরীয় নাগরিকদের রক্ষা করুন, যারা #রমজানে আতঙ্কের মধ্যে আছেন এবং রোজা রেখেছেন।

এই প্রবন্ধটি লিবিয়ার গণজাগরণ ২০১১-এর উপর করা আমাদের বিশেষ কাভারেজের অংশ

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .