বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ভিডিওঃ টরটিলা, চাপাতি, পাউরুটি এবং বিশ্বের এ রকম আরো কিছু খাবার

Puto, steamed rice cakes from the Philippines. Image by highlimitzz on Flickr (CC-BY-2.0)

পুটো, ফিলিপাইনের চালের তৈরি এক ভাঁপানো পিঠা। ছবি ফ্লিকারে হাইলাইমটিজের (সিসি-বাই-২.০)

বিশ্বের বেশীর ভাগ সংস্কৃতি তাদের খাবারের টেবিলে শস্যের দানা থেকে আসা খাবার রাখে; বিশ্বের অনেক জায়গায় পাউরুটি, পাতলা রুটি এবং ভাঁপানো পিঠা পাওয়া যায়। আজ আমরা রন্ধণশিল্প এবং রান্নার কারণে সারা বিশ্ব ভ্রমণ করব এই বিষয়টি দেখার জন্য যে, কি ভাবে রন্ধণশিল্পীরা সেই সমস্ত খাবার বানায়, যা তারা নিজেদের এবং পরিবারের সদস্যদের খাওয়ানোর জন্য তৈরি করে থাকে।

প্রথমে আমরা ফ্রান্স যাব। যেখানে একজন বেকারীর খাদ্য তৈরিকারক ভিনসেন্ট তাল্লু একই ময়দার তাল দিয়ে ক্রোয়িসান্ট (ময়দা দিয়ে বানানো বিশেষ পিঠা), চকোলেটের রুটি এবং এ রকম আরো কিছু খাদ্য তৈরি করছে:

 

ভারতে পাতলা রুটি (ফ্লাটব্রেড) সাধারণত রোটি (রুটি), চাপাতি অথবা পরোটা নামে পরিচিত। এখানকার বেশীর ভাগ খাবারের তালিকায় রুটি নামক উপাদানটি দেখতে পাওয়া এবং এর তৈরি করার প্রক্রিয়া বেশ দর্শনযোগ্য। এখানে আমরা দেখতে পাচ্ছি এক মহিলা তার রান্না ঘরে চাপাতি রুটি তৈরি করেছে। তিনি প্রথমে বেলনা দিয়ে কাঠের পিঁড়িতে ময়দার তালকে পাতলা করছে, তারপর সেগুলোকে তাওয়ার উপর রাখছে, আগুনের আঁচে সেগুলো বেলুনের মত ফুলে যাচ্ছে, আর এটাই হল রুটি বানানো:

পরবর্তী ভিডিওগুলোতে দেখা যাচ্ছে বিভিন্ন ধরনের চাপাতি নির্মাতাদের, যারা বিভিন্ন ধরনের পাতলা রুটি বানানোর প্রক্রিয়া তুলে ধরছে: এর বানানোর গতি এবং ক্ষিপ্রতা, রুটিকে পাতলা করা এবং হাতের মাঝে ঘুরিয়ে তাকে বিশেষ আকারে নিয়ে আসা দেখার মত এক বিষয়। এই আকারে নিয়ে আসার কারণ, যাতে মাটির তৈরি গর্তের মত একটা চুলার ভেতরে এই রুটিকে ভাজা যায়। একটি স্টোভের মধ্যে রাখার আগে পরোটাকে কিছুক্ষণ বাতাসে ঘুরানো হয় :

http://youtu.be/1AbsFDVeQHc

সারা মধ্য আমেরিকা জুড়ে অনেকের কাছে ভুট্টা দিয়ে তৈরি কর্ণ টরটিলা হচ্ছে প্রধান খাদ্য; যদি আপনারা বাজারে সদ্য বানানো তাজা টরটিলা কিনতে পারবেন, তারপরেও অনেকে তাকে ঐতিহ্যবাহী পদ্ধতিতে রান্না করতে ভালোবাসে। মেক্সিকোর হিডালগো অঞ্চলের জাকুয়ালতিপানের একটি একটি শতবর্ষের পুরোনো রান্নাঘরে এক পাথরের শিলপাটায় ভুট্টা চুর্ণ করা হয় এবং ময়দার তাল (মূলত ভূট্টা বা ময়দার মণ্ড) তৈরি করা হয়। তার পর হাতের তালুতে তাদের গোল করা হয় এবং কাঠের এক চুলায় ভাজা হয়:

এই মহিলাটি টরটিলাকে চওড়া করছে, আর এ কাজের জন্য টেবিলের উপর একটি প্লাস্টিকের ব্যাগ ব্যবহার করা হয়েছে, যাতে টরটিলাকে তার আকার প্রদান করার জন্য খানিকক্ষণ ঘুরানো সম্ভব হয়:

তুরস্কে, পাতলা যে রুটি সবার পছন্দ তার নাম ইয়ুফকা পরবর্তী এই ভিডিও দেখাচ্ছে যে একজন ব্যক্তি এক বিশাল এক কাগজের বেলনা দিয়ে ময়দাকে ডলছে :

ফিলিপাইনে এক ভাঁপানো পিঠা তৈরি করা হয় যাকে বলা হয় পুটো । এটি এক ঐতিহ্যবাহী খাবার এবং অনেকে এমনি এমনি এই খাবারটি খেয়ে থাকে। অনেকে মিষ্টি কিংবা সুগন্ধি কোন উপাদান দিয়ে পুটো খেয়ে থাকে। এখানে পুটো তৈরিতে নারকেলের দুধ এবং চালের আটা ব্যবহার করা হয়েছে:

এই বিশেষ ধরনের পুটো তৈরিতে সাধারণ ময়দা ব্যবহার করা হয়েছে, যার ফলে তা দেখতে অনেকটা মাখনে বানানো প্যানকেকের মত লাগছে, তবে একে ভাঁপানো প্রক্রিয়ায় তৈরি করা হয়েছে:

http://youtu.be/eKl10kOahi4

কলম্বিয়া এবং ভেনিজুয়েলায় ভুট্টার দ্বারা তৈরি এক ময়দার দলা দিয়ে আরেপা নামক খাবার তৈরি করা হয়। এটি টরটিলার চেয়ে পাতলা এবং এগুলো বিভিন্ন প্রকার এবং আকারের হয়ে থাকে। পর বর্তী এই ভিডিটিও কলম্বিয়ার কালি নামক এলাকার এক আরেপা বিক্রেতার, যা সে ইন্টারনেটে তুলে দিয়েছে, যে কিনা বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে ঘুরে এই খাবার বিক্রি করে। পনিরযুক্ত এই আরেপা সারা দিন ধরে কোন কোন স্থানে পাওয়া যাবে, তার উল্লেখ করে নেটে পোস্ট দেওয়া হয়। রাস্তায় খাওয়ার জন্য বিক্রি করা এই সব আরেপা কখনো কখনো মাখন এবং কনডেনসেড মিল্ক সহযোগে খাওয়া হয়:

শেফ জন [পাচক জন ]খাদ্য নিয়ে ব্লগিং করে। সে ফুডউইশেশ.কমে ব্লগিং করে থাকে। সে ভেনিজুয়েলার আরেপা তৈরি করার চেষ্টা করছে, যা সে শুকরের মাংসের সাথে মিশিয়ে তার নিজস্ব এক পদ্ধতি বানিয়ে থাকে, যাকে ভেনিজুয়েলায় বলা হয়ে থাকে “লোমশ” আরেপা:

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .