বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ফ্রান্স: ডিএসকে কেলেঙ্কারির বিষয়ে ফরাসী নারী ব্লগাররা

ফরাসী নারীবাদী ব্লগার এবং যে সব মহিলা ব্লগার, নারী বিষয়ে লিখে থাকে, তারা দমিনিক স্ত্রস কান (ডিএসকে) বিষয়ক কেলেঙ্কারির পর ফ্রান্সে এক বিশাল শ্রোতা এবং শ্রদ্ধা লাভ করেছে। তারা ছিল প্রথম এবং সেই সামান্য কয়েকটি কণ্ঠস্বর, যারা আমাদের স্মরণ করিয়ে দিয়েছে যে এই ঘটনার সাথে এক নারীও জড়িত ছিল, সম্ভবত যে ছিল এই ঘটনার শিকার, এবং এই সব ব্লগাররা পক্ষপাতদুষ্ট এবং যৌনতা মিশিয়ে সংবাদ প্রকাশ করার কারণে ফরাসী সংবাদপত্রের মনোযোগ আকর্ষণ করে।

আসুন এ রকম কয়েকজন ফরাসী নারীবাদী ব্লগারের সাথে পরিচিত হই, যারা ভিন্ন ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি থেকে ব্লগিং করেছে, কিন্তু অনলাইনে সকলেই শ্রম দিয়েছে যৌন হয়রানির এবং অপরাধের ক্ষেত্রে সংস্কার এবং ফরাসী দৃষ্টিভঙ্গির বিরুদ্ধে।

ক্লেমেন্তে অঁত

Clementine Autain


ক্লেমেন্তে অঁত


ক্লেমেন্তে অঁত এই সপ্তাহে ফ্রান্সে নতুন নতুন অনুসারী লাভ করে প্রথম উল্লেখযোগ্য ফরাসী ব্লগার এবং রাজনীতিবীদ, যিনি সে দিনের ছড়িয়ে পড়া ডিএসকে-পন্থীদের প্রচার করা সংবাদের মাঝে এর বিরুদ্ধে তার কণ্ঠ তুলে ধরেন। চেম্বারমেইড-এর জন্য এক চিন্তা” নামক ব্লগ পোস্টে তিনি তার এই বক্তব্য তুলে ধরেন।[ফরাসী ভাষায়]:

Qui a une pensée pour la femme de chambre ? Pas grand monde, et cela me scandalise.[…] Je veux dire l’omerta qui pèse sur les violences faites aux femmes,

চেম্বারমেইডের জন্য কে তার চিন্তা ব্যক্ত করেছে? খুব বেশি মানুষ নয়, এবং এই বিষয়টি আমাকে বিস্মিত করেছে। […] আমি আইনের সেই নীরবতার কথা বলতে চাই, যা নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতাকে উসকে দেয়।

২০০৬ সালে তিনি তার প্রথম দিককার এক ব্লগ পোস্টে “ কেন আমি এক নারীবাদী [ফরাসী ভাষায়]-তে ক্লেমন্তে অঁত তার নিজের ২২ বছর বয়সে নিজের ধর্ষনের শিকার হওয়ার কথা এবং কি ভাবে তাকে রাজনীতি ও নারীবাদ-এর পথে ঠেলে দেয়, তা প্রকাশ্যে তুলে ধরেন। তিনি এক ধর্ষনের মামালা করেন এবং এর ফলে তার ধর্ষককে বিচারে কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হয় এবং বিচারে উক্ত ধর্ষক দণ্ডিত হয়।

অলিম্পে এত লা প্লাফেন্দ দে ভেররে

Olympe et le plafond de verre

অলিম্পে এত লা প্লাফেন্দ দে ভেররে

নিজের অভিজ্ঞতার কারণে অলিম্পে কর্মক্ষেত্রে লিঙ্গীয় বৈষ্যমের বিষয়ে নিজের ব্লগ সৃষ্টি করেন [ফরাসী ভাষায়], যা কর্মক্ষেত্রে, ব্যবসায় এবং রাজনীতিতে এক দেওয়াল তুলে দেয়।
নারীরা প্রতিদিন, কর্মক্ষেত্র, রাজনীতি অথবা প্রচার মাধ্যমে যে সব ছোট বড় আক্রমণের শিকার হয় তার ব্লগ সেই সব সব ঘটনার ডায়রি। তিনি এই চেম্বারমেইড সম্বন্ধে ফরাসী প্রচার মাধ্যম যে সব অবজ্ঞাসূচক মন্তব্য করেছে তার লিঙ্কের এক তালিকা করেছেন [ফরাসী ভাষায়] এবং লিখেছেন:

যদি আপনি ধর্ষনের অভিযোগ করেন, তাহলে আপনি এটাই আশা করতে পারেন [ সকল লিঙ্ক ফরাসী ভাষায়]:

- তারা আপনাকে জিজ্ঞেস করবে কেন আপনাকে ধর্ষণ করল, কারণ আপনি তো তেমন আকর্ষণীয় নন।“ দৃশ্যত আইনজীবী আদালতের শুনানির সময় বিস্মিত হয়েছিল, কারণ এই তরুণী মোটেও তেমন আকর্ষণীয় ছিল না“।[ জাতীয় ফরাসী রেডিও চ্যানেল আরএমসির বর্ণনায়]

- অথবা, ঠিক তার বিপরীতে বলা যায় আপনার নারীত্ব সকল কিছুর ব্যাখ্যা করবে। এই চেম্বারমেইড ৩০ বছরের এক সুন্দরী, যার দেহ বল্লরী খুব চমৎকার । [ ফরাসী জাতীয় দৈনিক লে প্যারিসিয়-তে প্রকাশিত এক উদ্ধৃতি]

-অথবা তুমি এক নির্বোধ; সে দাবী করতে পারে মেয়েটি ভুল বুঝেছে। সে আসলে মেয়েটিকে মুগ্ধ করার (ফষ্টিনষ্টি করার) চেষ্টা করছিল এবং মেয়েটা তা মোটেও বুঝতে পারেনি। [ জাতীয় দৈনিক লে ফিগারোতে প্রকাশিত]

-কিন্তু আদতে, কেউ তো নিহত হয়নি(ইল নে পা মখত দে’অম ) -জ্যাক লঙ্গের মন্তব্য [ ফ্রান্সের প্রাক্তন শিক্ষা এবং সংস্কৃতি মন্ত্রী] ধর্ষণের ব্যাপারে তার ধারণাকে তুলে ধরে [ ফ্রান্সের জতীয় চ্যানেল ফ্রান্স ২-এর ভিডিও]

এই ধর্ষিতার সেরা পুরষ্কার এসেছে জ্যঁ ফ্রাশোয়া কানের কাছ থেকে। ফ্রশোয়া-কান, বিখ্যাত এক সম্পাদক, যিনি ডিএসকে-এর প্রতি আনা এই যৌন হয়রানির অভিযোগ যদি প্রমাণিত হয় তবে সেটিকে একজন চেম্বারমেইকে ফুসলানোর সাথে তুলনা করতে ইচ্ছুক” [ জাতীয় রেডিও ফ্রান্স কালচার-এ]।

অজে লে ফেমিনিজমে

অজে লে ফেমিনিজমে [ফরাসী ভাষায়] একটি ওয়েবসাইট এবং সংগঠন যা নারীবাদী আন্দোলনকে ফ্রান্সের মাঠ পর্যায়ে ছড়িয়ে দিতে চায়। যখন ফরাসী ধারাবর্ণনাকারীদের বাজে বাজে মন্তব্যে সব জায়গায় ভরে যায়, তখন এই সাইট এক আবেদন প্রকাশ করে যা, একবারে তুলে ধরা হল [ফরাসী ভাষায়]: [fr]: 

এখানে বাদী যে সাক্ষ্য প্রদান করেছে তা অতীব গুরুতর এবং বিপজ্জনক। গুরুতর এ কারণে যে, এটি এই নারীর উপর এক বোঝা হয়ে দাঁড়াবে, বিপজ্জনক এ কারণে যে এরপর তার প্রতি নির্দেশ করা হবে যে সে এক ধর্ষণের শিকার, বর্তমানে এবং ভবিষ্যৎ-এ, এখানে বিষষটি হচ্ছে, এ ক্ষেত্রে কোন অভিযোগ দায়ের করলে তা আপনাকে এক ঝুঁকির মুখে ঠেলে দেবে। অজে লে ফেমিনিজমে আপনাকে স্মরণ করিয়ে দিচ্ছে যে প্রতি বছর গড়ে ফ্রান্সে ৭৫,০০০ জন নারী ধর্ষণের শিকার হয়। যাদের মধ্যে মাত্র ১০ শতাংশ নারী অভিযোগ দায়ের করে।

লে আভান্তে দ’ইউথ্রপে

Les aventures d'Eutherpe

Les aventures d'Eutherpe

হেলেনের ব্লগ লে আভান্তে দ’ইউথ্রপে [ফরাসী ভাষায়], “যে সমস্ত নারীরা স্থান-সময়ের ধারাবাহিকতায় হারিয়ে যায়, তাদের অনুসন্ধানে নিবেদিত”।

ভদ্রমহিলা প্রায়শ নারীবাদী এবং ক্রীড়াসুলভ ভঙ্গিতে ইতিহাসে পুনরায় পরিভ্রমণ করে থাকেন। যেমন অষ্টম হেনরির সময়ের ধারাবাহিক খুনির পুর্নবাসন নামক পোস্ট [ফরাসী ভাষায়], ব্রিটিশ টিভি সিরিজ দি টিউডোর-এর ভিত্তিতে লেখা। তার পোস্ট ওমের্তা ইন ফ্রান্স [ফ্রান্স] (ফ্রান্সের নীরবতার আইন, যা ডিএসকে নামক কেলেঙ্কারিকে তৈরি করেছে),-এ
তিনি লিখেছেন:

L'information s'arrête toujours à la porte de la chambre à coucher. Très bien, mais…même si derrière cette porte quelqu'un.e est en train de hurler au viol ?

বেডরুমে দরজায় এসে সব তথ্য থেমে থমকে দাড়ায়। বেশ, কিন্তু… দরজার পেছনে কি ঘটছে, কেউ একজন চিৎকার করছে, কারণ সে এর মধ্যে আছে।

কজেত্তে

'Causette' magazine cover

'Causette' magazine cover

সবশেষে, ফ্রান্সের নারীরা কজেত্তের পাতা উল্টাতে পারে [ফরাসী ভাষায়], এটি একটি সফল এবং তরতাজা ম্যাগাজিন যা নারীদের সমর্থন করে থাকে। ২০০৯ সালে এর যাত্রা শুরু হয়।

ফ্লোচা, কজেত্তের অনলাইনের পাঠক পাতায় [ফরাসী ভাষায়], ডিএসকে বিষয়ক কেলেঙ্কারি ক্ষেত্রে তার ম্যাগাজিনের মন্তব্যের জন্য অপেক্ষা করছে:

কিছুদিনের মধ্যে, আমরা শুনতে পাব যে এ ক্ষেত্রে তার সম্মতি ছিল, মেয়েটা তার পোশাক দিয়ে তাকে উত্তেজিত করেছে, অথবা বলে হবে যে সে মিথ্যা বলেছে! এটা তীব্র দুর্গন্ধযুক্ত! অথবা এটা কেবল আমি? আমি নিশ্চিত নই যে আমি নই! আমি কেবল এক সহযোগী লাভ করেছি!!! কজেত্তে দয়া করে কিছু বল!!!

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .