বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ভিডিওঃ সলেস্টিস উদযাপন

লণ্ঠন, নাচ, ফুল এবং আগুন জ্বলানো হচ্ছে এমন কিছু কর্মকাণ্ড, যার মাধ্যমে সারা বিশ্বে গ্রীষ্ম এবং শীতকালীন সলেস্টিসের (গ্রীষ্ম বা শীতের যে সময়টিতে পৃথিবী সূর্যের সবচেয়ে কাছে হেলে থাকে সেই সময়টিকে সলেস্টিস বলে অভিহিত করা হয়) আগমনের সময়টি পালন করা হয়।

এই ঘটনাটির ক্ষেত্রে কেমন করে বিভিন্ন ধরনের উৎসব পালন করা হয় তা দেখার জন্য চলুন সারা বিশ্ব ঘুরে আসি: স্টোনহেঞ্জ, স্পেনের সেন্ট জনের বহ্নুৎসবের ভোজন, পেরুর ইন্তি রায়মির উৎসব দেখার সাথে সাথে আমরা চিলির উই ট্রিপান্টু-উৎসবে ঘুরে আসব, আর এর সাথে আমরা দেখব রাশিয়ার কুপালা ডে, কিংবা পোল্যান্ডের মিডসামার-এর (গ্রীষ্মকালের ঠিক মাঝামাঝি সময়ের) রাতটিকে।

Solstice dawn over Stonehenge, UK. Image by Flickr user Taro Taylor (CCBY).

যুক্তরাষ্ট্রে স্টোনহেঞ্জের উপর সলেস্টিস-এর আগমন, ছবি ফ্লিকার ব্যবহারকারী টারো টাইলাররে (সিসিবাই).

ইংল্যান্ডের স্টোনহেঞ্জ নামক এলাকায় লোকজন পাথরের পাশে একটা মেঘের নীচে জড়ো হয় বছরের সবচেয়ে বড় দিনটিকে গ্রহণ করার জন্য, তারা অনিশ্চিত ভাবে উল্লাস ধ্বনি প্রকাশ করে, কারণ সেখানে এটা বলা খুব কঠিন যে, কখন সেখানে সূর্য মেঘের আড়াল থেকে উঁকি দেবে। যেমনটা জানাচ্ছে এ৩(থ্রি)হেডেড মাঙ্কি, যে কিনা এই ভিডিওটি আপলোড করেছে। সে হাস্যরসের সাথে বলছে: ” সেই পুরোনো উত্তম এক বৃটিশ গ্রীষ্মকাল, যে কিনা তার সেরা সময়ে অবস্থান করছে”!

স্পেনের কারুনিয়ায়, এক বহ্নুৎসবের আয়োজন করা হয়। বনের মাঝে আগুন জ্বালানো, পান করা এবং প্যারেড করার মধ্যে দিয়ে সেন্ট জনের এই বহ্নুৎসব পালন করা হয়। এই উৎসবের ঐতিহ্য হচ্ছে এতে কিশোর এবং শিশুরা লাফিয়ে আগুনের কুণ্ডলী পার হয়। সৌভাগ্যের প্রতীক হিসেবে তারা একটা নিদিষ্ট সংখ্যক সময় লাফ দিয়ে আগুনের শিখা অতিক্রম করে:
দুঃখজনক ঘটনা হচ্ছে, এ বছর দুজন লোকের মৃত্যুর কারণে এই উৎসব পণ্ড হয়ে গেছে, এদের মধ্যে একজনের মৃত্যু ঘটে তখন, যখন সে বড় আগুনের শিখা লাফিয়ে অতিক্রম করার চেষ্টা করে। এতে সে ব্যর্থ হয়ে ঠিক আগুনের মাঝে পড়ে যায় এবং সেখানে উপস্থিত দর্শকদের তাকে উদ্ধারের প্রচেষ্টা বিফলে যায়।

http://youtu.be/pC4avU3W5bU

পেরুর কুজকায় অবস্থিত সাকসায়হুয়ামান মন্দিরের সামনে প্রতি বছর ঐতিহ্যবাহী ইন্তি রায়মি নামক উৎসব উদযাপনের বিষয়টির পুনরায় চালু করা হয়েছে। ইনকা বছর শুরুর প্রতীক হিসেবে এই উৎসব উদযাপন করা হয়। ইনকারা ১৫৩৫ সালে শেষবারের মত ইন্তি রায়মি নামক উৎসব উদযাপন করেছিল। এরপর ক্যাথলিক চার্চ এবং বিজয়ী স্পেনের শাসকরা এই উৎসব পালন বন্ধ করে দেয়। ১৯৪৪ সালের আগে পর্যন্ত তা বন্ধ ছিল। ১৯৪৪ সালে ইনকা ইতিহাসবিদ গারসিলাসো ডে লা ভেগার বর্ণনায় এই উৎসব আবার ফিরে আসে।

ইউটিউব ব্যবহারকারী গাজোরকা কুজকোর উৎসবের অনেক সংস্কৃতিক নাচ এবং অনুষ্ঠানের ভিডিও ধারণ করেছে, যা কিনা তার চ্যানেলে দেখা যাবে, এর মধ্যে নীচের দুটি ভিডিও এ বছরের ইন্তি রায়মি উৎসবের ভিডিও। এই দু’টি ভিডিওর প্রথমটায় প্রদর্শন করছে ইনকাদের প্রবেশের দৃশ্য এবং এর পরেরটায় রয়েছে তার স্ত্রী কোলার প্রবেশের দৃশ্য:

উই ট্রিপান্টু [ স্প্যানিশ ভাষায়] হচ্ছে মাপুচে ইন্ডিয়ান গোষ্ঠীর এক উদযাপন, যা শীতকালীন সলেস্টিস-এর সময় এক নতুন বছর শুরুর চিহ্ন হিসেবে পালন করা হয়। পরবর্তী ভিডিওটি চিলির কিছু স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের নৃত্য প্রদর্শন তুলে ধরছে, যারা আদিবাসী প্রথায় শীতকালীন সলেস্টিস উৎসব উদযাপন করছে:

রাশিয়ার মলায়াইয়ারোস্লাভেতস নামক শহরে, শহরবাসীরা ইভান কুপালা নামক দিবস পালন করে থাকে, এবং গ্রীষ্মের ঠিক মাঝামাঝি সময়ে এই উৎসব উদযাপন করা হয়। এখানে এখনো কিছু নিজস্ব ঐতিহ্য জীবিত আছে, যে ঐতিহ্য অনুসারে এই সময়ে মেয়েরা তাদের চুলে ফুল গুঁজে রাখে, আগুন জ্বালায় এবং নাচে:

এবং সবশেষে অন্যগুলোর সমান গুরুত্বপুর্ণ একটা উৎসবের কথা আপনাদের জানাচ্ছি, সেটি পোল্যান্ডের রেকর্ড ভেঙ্গে ফেলা এক উৎসব উদযাপন। এই উদযাপনে হাজার হাজার কাগজের লণ্ঠন জ্বালানো হয় এবং রাতের আকাশে সেগুলোকে ভাসিয়ে দেওয়া হয়। যাদুকরী এই ভিডিও তাদের পক্ষে কথা বলছে (এটি পাওয়া গেছে নিটোরামা-এর মাধ্যমে):

আপনারা কি সলেস্টিস উদযাপন করেন? কি ভাবে তা পালন করেন, তা মন্তব্যের মাধ্যমে আমাদের জানান!

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .