বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

কুয়েতঃ প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ

সংসদের কাছে প্রতিবাদের দৃশ্য। ভয়েস অফ কুয়েতি ব্লগ এই ছবিটি পোস্ট করেছে।

২০০৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে কুয়েতের প্রধানমন্ত্রী শেখ নাসের আল-মাহমোদ আল-সাবাহ বিরামহীন ভাবে সংসদের ভেতের আক্রমণ এবং বাইরে অবস্থান ধর্মঘটের মুখোমুখি হচ্ছেন। এ বছরের ৮ মার্চ থেকে কুয়েতের নাগরিকরা ক্রমাগত তার অপসারণের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করে আসছে, এর জন্য আরব (বিপ্লবের) বসন্তকালকে ধন্যবাদ। প্রধানমন্ত্রী সম্প্রতি তার অষ্টম মন্ত্রীসভা গঠন করেছে। ২৭ মে শুক্রবার-এ কুয়েতের বিরোধী দলগুলো একই উদ্দেশ্য আরেকটি বিক্ষোভের আয়োজন করে, যাকে তারা শুক্রবারের ক্ষোভ নামে অভিহিত করেছে।

বিগত কয়েকদিন ধরে বেশ কিছু বিভ্রান্তি ছড়িয়ে পড়েছে। বিক্ষোভকারীরা সাফাত স্কোয়ারে যাবার জন্য সবাইকে উত্সাহ প্রদান করে অন্যদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বিক্ষোভকারীদের সেখানে যাবার ক্ষেত্রে সবাইকে সতর্ক করে দেন, যার ফলে এই বিষয়ে বিরোদী দল সমূহের মতামত দুটি ভাবে বিভক্ত হয়ে যায়; একদল সাফাত স্কোয়ারে যাবার জন্য উত্সাহ প্রদান করে, যাতে এক পরিষ্কার বিবৃতি প্রদান করা যায় এবং অন্যরা ইরাদা স্কোয়ারে বিক্ষোভের স্থান পরিবর্তন করতে বলে যাতে নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে সংর্ঘষ এড়ানো যায়।

তবে শেষ পর্যন্ত বিক্ষোভ এক জায়গায় শুরু হয়ে আরেক জায়গায় শেষ হয়। এটি নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে কোন ধরনের বিক্ষোভের সংবাদ ছাড়াই শেষ হয়েছে। তারা বিক্ষোভকারীদের সাথে কোন ধরনের সংর্ঘষে যেতে চায়নি। সংসদের যারা যারা প্রধানমন্ত্রীকে সমর্থন করছে বিক্ষোভকারী তাদের ছবি পুড়িয়ে দিয়েছে। এদিকে মুবাশ্বর টিভি যে বিক্ষোভের সরাসরি সংবাদ প্রদান করছিল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তা বন্ধ করে দেন।

কুয়েতের টুইটারকারী আব্দুল্লাহ আল সাত্তি তরুণদের প্রতিবাদ করার বিষয়ে প্রশংসা করেছে, সে বলছে:

بين ساحة الارادة وساحة الصفاة تجمع الشباب بإراده قوية ونفس صافية. هدفهم التغيير للافضل. البعض يسال الى متى ستستمر جمعة الغضب؟
@আব্দুল্লাহাআহমেদ৮১: ইরাদা এবং সাফাত স্কোয়ারের মাঝে তরুণরা এক দৃঢ় ইচ্ছা এবং পবিত্র আত্মা নিয়ে এক উন্নত আগামী গড়ার লক্ষ্যে জড়ো হয়েছে। কয়েকজন মানুষ বিস্ময় প্রকাশ করেছে, কখন আবার শুক্রবারের এই বিক্ষোভ শুরু হবে?

কুয়েতের আরেকজন টুইটারকারী নাসের আলমুতারি প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে একটা প্রশ্ন করেছে, সে বলছে:

هل ينتظر ناصر المحمد أن يقوم كل الشعب الكويتي بالتظاهر والإعتصام في ساحة الصفاة أو ساحة الإرادة حتي يقدم إستقالته لمصلحة الكويت
@কিউ৮৭আর :নাসের আল মোহাম্মদ কি অপেক্ষায় রয়েছে যে কুয়েতের কারণে কুয়েতের সকল জনগণ বিক্ষোভ এবং সাফাত এবং ইরাদ স্কোয়ারে গিয়ে অবস্থান ধর্মঘট শুরু করবে?

অন্য দিকে কুয়েতের টুইটারকারী যার ডাক নাম আলাদলি যে সমস্ত তরুণ এই বিক্ষোভে অংশগ্রহণ করেছে তাদের সমালোচনা করেছে, সে বলছে:

شباب راقي يريد أن يرسم المستقبل السياسي للبلد فاقد أبسط لغة الحوار ضاع فكره بين الصفاة والإراده
@আলাদলি : সভ্য তরুণ, যারা দেশটির রাজনৈতিক ভবিষ্যত নির্ধারণ করবে, তাদের ভেতর নূন্যতম আলোচনার বোধ দেখা যাচ্ছে না এবং তারা ইরাদ এবং সাফাত স্কোয়ারের মাঝে হারিয়ে গেছে।

আরেকজন টুইটারকারী যার নাম আকিল আল-কালাফ, তিনি ওয়ালেদ আল তাবতাবি নামের এক সালাফি সংসদের সমালোচনা করছে যে কিনা এ্যাংরি ফ্রাইডেতে অংশ গ্রহণ করেছিল, আকিল আল-কালাফ:

وليد الطبطبائي الذي يصر على التجمهر في ساحة الصفاة هو نفسه يستنكر هذا التصرف عام ٢٠٠٦ بسؤال موجه للحكومة !

!

@আকিলভ: ওয়ালেদ আল-তাবতাবি, যে কিনা সাফাত স্কোয়ারে বিক্ষোভ করতে উৎসাহ প্রদান করে, সে ২০০৬ সালে সরকারে এক প্রশ্নোত্তর পর্বে এ ধরনের আচরণের প্রতি আপত্তি জানিয়েছিল!

আইনজীবী মোহাম্মেদ ফাহাদ আল-আজমি প্রধানমন্ত্রীর অপসারণের দাবী জানিয়ে একটা টুইট লিখেছে:

كثيرة هي الساحات في بلدي.. الصفاة الإرادة التحرير الحرية العلم التغيير المجلس.. سبع ساحات وسبع حكومات.. تعددت الساحات والهدف واحد.. ارحل
@ডঃআলআজামি: আমাদের দেশে অনেক স্কোয়ার আছে; সাফাত, ইরাদা, তাহরির, হোরিয়া, আল-আলম, তাঘিয়ের, মাজলেশ… সাতটি স্কোয়ার এবং সাতটি মন্ত্রীসভা… এখানে অনেক স্কোয়ার, কিন্তু যাত্রা পথ একটাই, প্রস্থান…

ফ্রাইডে অফ এ্যাঙ্গার নামক বিক্ষোভের তরুণ টুইটারকারী আব্দুলরাহমান আলসাইবানি তার মন্তব্য লিখেছে, সে বলছে :

ساحة الصفاة: هي ساحة الشباب – ساحة التظاهر السلمي – ساحة التعبير عن الرأي – ساحة الأنتصار للدستور وقت لا يكون للدستور هيبه – ساحة الشهداء
@এ-আলসাইবানি: সাফাত স্কোয়ার হচ্ছে তারুণ্যের স্কোয়ার- শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভের স্থান- মত প্রকাশের স্বাধীনতার স্থান-সংবিধান স্কোয়ার- এবং শহীদদের স্কোয়ার।

কুয়েতি ব্লগার হামাদ বিক্ষোভকারীদের প্রতি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর মনোভাবের মুল্যায়ন করে একটি পোস্ট করেছে। সাফাত স্কোয়ারে বিক্ষোভকারীরা প্রবেশ করা সত্বেও তাদের সাথে সংঘর্ষ না যাওয়ার সিদ্ধান্তে অনেকেই মন্ত্রীর প্রশংসা করেছে। তবে এরপরেও হামাদ বলছে যে সে মন্ত্রীর সিদ্ধান্তের সত্যিকারের কারণ কি সে সম্পর্কে আমাদের সঠিক জানতে পারছে না।

أن ما حدث في ساحه الصفاة لا يعد امرا جديا وبالتالي لايمكن ان يقرأ موقف وزير الداخلية كقراءة نهائية لموقفه من التظاهرات!
সাফাত স্কোয়ারে যা ঘটেছিল তা আসলে খুব গুরুত্বপুর্ণ বিষয় ছিল না, যার ফলে আমরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর যে বিক্ষোভকারীদের আচরণ তা ঠিকমত পাঠ করতে পারিনি।

কুয়েতি ব্লগার মোহাম্মেদ আলহুজাইলায়ান একটি পোস্ট লিখেছে। যারা প্রতিবাদকারী তরুণদের দেশপ্রেমিক নয় হিসেবে অভিহিত করেছে, তারা পোস্টে তিনি সেই সব তরুণদের রক্ষা করার চেষ্টা করেছেন:

أجدر بكم يا من تهاجمونهم أن تدعموهم بكلمة أو موقف.. فإن لم تستطيعوا ولن تستطيعوا فاسكتوا واتركوهم ينقذون البلد التي لم تستطيعوا أن تنقذوها أنتم… فهم أفضل منكم.
প্রতিবাদকারীদের আক্রমণ করার বদলে তারা তাদের পক্ষে কথা বলে বা অবস্থান গ্রহণ করা উচিত। যদি আপনি তা না পারেন, আপনি তা পারবেন না, তাহলে আপনার চুপ করে থাকা উচিত এবং তরুণদের দেশ রক্ষা করতে দেওয়া উচিত। আপনি দেশকে রক্ষা করে পারেন না, কারণ তারা আপনার চেয়ে উত্তম।

৩আজল নামের আরেকজন ব্লগার বিক্ষোভ কোন স্থানে হতে পারে এই বিষয়ে একটি পোস্ট লিখেছে:

ساحة الصفاة مصيدة، وساحة الإرادة حجة عليهم لا عليكم، وطالما أن الهدف هو التعبير عن غضبكم فالمكان أي مكان يكفي

সাফাত স্কোয়ার একটা ফাঁদ। ইরাদা স্কোয়ার আপনাদের জন্য এক সুবিধাজনক স্থান, যা আপনাদের বিপক্ষে যাবে না এবং যতক্ষণ আপনি আপনার ক্ষোভ প্রকাশ করার লক্ষ্য স্থির করেছেন, তখন কোন স্থানে তা হচ্ছে সেটি কোন বিষয় নয়।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .