বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

স্লোভাকিয়াঃ রোমা নামক জনগোষ্ঠী এক “প্রান্তিক অবস্থায় বাস করছে”

মধ্য ইউরোপের অন্যতম এক ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী হচ্ছে জিপসি/রোমা/রোমানি জনগোষ্ঠীএটা পরিস্কার করে বলা মুশকিল যে স্লোভাকিয়ায় তাদের সংখ্যা কত, কারণ ভোটের সময় প্রায়শই তারা নিজেদের আদি স্লোভাক বা হাঙ্গেরীয় জনগোষ্ঠী বলে দাবি করে।

শত শত বছর আগে তারা এখানে এসেছিল, এমনকি যদিও এই দেশ তাদের বাসগৃহ, তারপরেও তারা সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগোষ্ঠীর সাথে পুরোপুরি মিশে যেতে পারেনি। যেমন, উদাহরণ হিসেবে স্লোভাক ভাষায় “জিপসি” মানে (সিগানিট) “মিথ্যা বলা”। অন্যদিকে জিপসিরা নানা বৈচিত্র্যময় সঙ্গীতের জন্য বিখ্যাত এবং ঐতিহাসিকভাবে তাদের অসাধারণ কামার এবং ঘোড়সওয়ার হিসেবে বিবেচিত হয়।

ঐতিহ্যগতভাবে তারা তাদের নিজস্ব সম্প্রদায়ের মধ্যে বাস করে, তাদের মধ্যে কেউ কেউ আবার যাযাবর জীবন যাপন করে। তারা একই ধরনের কিছু উদ্যেগের মাধ্যমে টিকে রয়েছে, আজকের দিনে যার অনেকগুলোই গ্রহণযোগ্য নয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ২২৩,০০০ থেকে ১,৫০,০০০ জন রোমানীকে (জিপসিকে) নাৎসীরা মেরে ফেলে

স্লোভাকিয়ার এক অবৈধ রোমা বসতি। ছবি ফ্লিকার ব্যবহারকারী মাতইসেক/মাতসু কাজমার-এর (সিসি বাই ২.০)।

কমিউনিস্ট শাসনামলে যাযাবর জীবন নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল, এবং সে সময় ওয়াগন এবং ঘেটো (জিপসিদের বসতি/পাড়া) বাদ দিয়ে বাস করার জন্য রোমা জনগোষ্ঠীকে নতুন ফ্লাট দেওয়া হয়। কোসিচ-এর লুনিক ৯ নামক এলাকা স্লোভাকিয়ার অন্যতম পরিচিত এক রোমা এলাকা।

তবে সাম্যবাদের পতনের পর, অল্প শিক্ষিত রোমা সম্প্রদায়ের লোকেরা বেকারত্বের প্রথম শিকার হয়। তখন তারা তাদের বিল প্রদান করতে অক্ষম হয়ে পড়ে, তাদের অনেকে এই সব ফ্লাট ত্যাগ করে এবং এমন জায়গায় অবৈধ বাসস্থান তৈরি করে, যেখানে জন সেবামূলক কর্মকাণ্ড, যেমন বিদ্যুৎ, পয়নিষ্কাশন ব্যবস্থা এবং আবর্জনা সংগ্রহের কোন ব্যবস্থা নেই।

তারা আবার অন্য ধরনের সামাজিক সুবিধার উপর প্রচণ্ড নির্ভর করতে শুরু করেছে। এর সাধারণ এক বিষয় হচ্ছে “রোমা জনগোষ্ঠীর পরিবারে সন্তান সংখ্যা বেশী, কারণ তারা রাষ্ট্র কর্তৃক এই সংক্রান্ত সুবিধা গ্রহণ করার জন্য বেশী করে সন্তান নেয়”-এমনকি এতিম খানার মত সন্তান লালন পালন করার জন্য তৈরি করা বিশেষ প্রতিষ্ঠানে রোমা জনগোষ্ঠীর শিশুরাই বেশী।

দারিদ্রের কারণে তাদের মধ্যে অপরাধ প্রবণতা বেড়ে গেছে। রোমা বসতির কাছে বাস করা ব্যক্তিরা তাদের নিজস্ব বাগানের ফল এবং মাঠের শস্য উপভোগ করতে পারে না, এমনকি তারা জাতীয় উদ্যানের গাছ পর্যন্ত অবৈধভাবে কেটে ফেলে। প্রায়শই রোমা তরুণরা, ছোট ছোট শিশু এবং বয়স্ক লোকদের চুরি করে নিয়ে যায়, এর জন্য যাদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো যায় না। রোমা বসতির কাছে নির্মাণ করা বাড়িগুলো দ্রুতই তাদের মূল্য হারায়। কিছু কিছু ব্যক্তি অবশ্য নিজেদের রোমা জনগোষ্ঠীর হাত রক্ষা করার চেষ্টা করছে। যেমন অস্ট্রোভানি নামক গ্রামে রোমা বসতি এবং বাকি গ্রামের মাঝে এক দেওয়াল নির্মাণ করা হয়েছে- তবে তা তেমন একটা কার্যকর প্রমাণিত হয়নি, কারণ তরুণ চোরেরা সহজেই এই দেওয়াল টপকাতে সক্ষম।

প্রচার মাধ্যমের ধারা হচ্ছে সাধারণ রোমার বদলে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের সমস্যা সৃষ্টিকারী সদস্যদের প্রতি মনোযোগ দেওয়া, এদিকে সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগোষ্ঠীর কয়েকজন লোক বিশ্বাস করে যে সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠী সম্বন্ধে যে সব অপ্রিয় তথ্য, তার বেশীর ভাগ “সামাজিক একতাকে”বিনষ্ট করার জন্য সৃষ্টি।

সৌভাগ্যক্রমে রাষ্ট্রের বৈষম্যের মাঝে, বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠান রোমা জনগোষ্ঠী নিয়ে কাজ করছে। তারা নিয়মিত তাদের বসতিতে যায়, কি ভাবে টাকা পয়সায় খরচ করতে হবে এবং তাদের ছেলেমেয়েদের জন্য শিক্ষার গুরুত্ব কতখানি সেই বিষয়ে তাদের শিক্ষা প্রদান করে। জোজেফ সেরভান (স্লোভাক ভাষায়) এ রকমই এক কাজের সাথে জড়িত, লুনিক ৯ এর তিনি এক ক্যাথলিক যাজক, যিনি এই ধরনের প্রচেষ্টার এক সুন্দর উদাহরণ।

পূর্ব স্লোভাকিয়ার মালদোভা নাড বোদভোর একটি রোমা বসতি। এই অংশটি একটি ক্ষত (গর্ত) হিসেবে বিবেচিত হয়, যা শহরের বাইরে অবস্থিত। এর খুব কাছে সম্প্রতি এক পরিবারের জন্য নিদিষ্ট করে এক কামরার বাসগৃহ নির্মাণ করা হয়েছে। তার অনেকগুলো পরিষ্কার, রঙিন এবং সুন্দর। অন্যগুলো নোংরা এবং খুবই বাজে। পুরোনো বাসগৃহগ সমূহের একটা অংশে ক্ষয়ে যাওয়া কিছু ফ্লাট রয়েছে, তার সাথে অনেক বাজে কামরা রয়েছে, যেগুলো ভিন্ন ভিন্ন উপাদানে তৈরি। ছবি টেরার, কপিরাইট@ডেমোটিক্সের (০৮/২২/২০০৯)

এমনকি শিক্ষিত বা অন্য অর্থে মূলধারার সাথে মিশে যাওয়া রোমা সম্প্রদায়ের নাগরিকদের জীবনও কঠিন হতে পারে।

ব্লগার জ্যানেট্টা মাজিনিওভা (স্লোভাক ভাষায়), এসএমই.এসকে-তে প্রদান করা এক সাক্ষৎকারে তার অভিজ্ঞতা কথা বলছেন (স্লোভাক ভাষায়)। প্রাথমিক স্কুল থেকে তার সমস্যা শুরু হয়, যখন তার পরিবার একটি ভিন্ন শহরে বাস করতে শুরু করে এবং সেখানে কেউ তার সাথে বন্ধুত্ব করতে চায়নি। এমনকি তার শিক্ষক ক্লাসের সেরা খারাপ ছাত্রের পাশে তার জন্য সিট বরাদ্দ করে রাখত।যখন সে প্রাপ্তবয়স্ক, তখন মাজিনিওভা মানুষের দ্বারা দ্বারা গিয়ে ইনসুরেন্স বিক্রি করার কাজ ধরে রাখতে ব্যার্থ হয়, কারণ তার গায়ের রঙ এবং চামড়া। একবার এক রেস্তোরাঁর এক ওয়েটার ততক্ষণ পর্যন্ত তাকে খাবার সরবরাহ করতে অস্বীকার করে- যতক্ষণ না সে ফরাসী ভাষায় তার সাথে কথা বলা শুরু করে।

অন্যদিকে, সিলভিয়া সাকোজিভা একজন সফল সঙ্গীতজ্ঞ। তিনি বলেন তিনি কেবল পরোক্ষভাবে বর্ণবাদের মুখোমুখি হয়েছেন (স্লোভাক ভাষায়) তিনি এ ধরনের ঘটনার কথা স্মরণ করেন। যেমন উদাহরণ হিসেবে তিনি বলে, তার মেয়ে তার বন্ধুদের জানায় যে সে এক জিপসি, তার মেয়ের বান্ধবীরা বিশ্বাস করতে পারেনি যে তার মত কেউ একজন জিপসি হতে পারে।

প্রচার মাধ্যমের সংবাদ অনুসারে, ইউরোপিয়ান নেটওয়ার্ক এগেইনেস্ট রেসিজম (ইএনএআর), স্লোভাকিয়ার বিরুদ্ধে সকল প্রকার বর্ণবাদ দুর করার ব্যার্থতার অভিযোগে এনে তার নামে ইউরোপীয় ইউনিয়নে এক অভিযোগ দায়ের করেছে। ইএনএআর-এর স্লোভাকিয়ার কোসিচ শাখার প্রধান মিরোস্লোভ লাকো বলেছেন (স্লোভাক ভাষায়): বর্ণবাদ স্লোভাকিয়ার দৈনন্দিন জীবনের অংশে পরিণত হয়েছে” এবং তিনি তার এক উদ্ধৃতিতে এর উদাহারণ হিসেবে রোমা জনগোষ্ঠীর জন্য আলাদা এক নতুন কলোনী গড়ার কথা বলেছেন, যা স্লোভাক সরকারের অর্থায়নে তৈরি হচ্ছে, যা ইউরোপীয় ইউনিয়নের জ্ঞান এবং টাকায় গড়া হচ্ছে। লাকো বলেন: এটা হচ্ছে বেড়া দিয়ে ঘেরা একটা কনসেনট্রেশন ক্যাম্প।

স্লোভাকিয়ার অনলাইন জগতে ইএনএআর-এর এই উদ্যোগের বিষয়ে বিস্তারিত মন্তব্য করা হয়েছে।

ব্লগার জুজানে পানাকোভা লিখেছে (স্লোভাক ভাষায়):

যে সব একটিভিস্ট বৈষম্যের কথা বলছে তাদের অবশ্যই পূর্ব স্লোভাকিয়ার কোন একটা গ্রামে একটা বাসা কেনা উচিত, যেখানে জিপসিরা মোট জনসংখ্যার অন্তত ৬০ শতাংশ এবং সেখানে সে যে ফলের গাছ লাগাবে তাকে সে গাছ থেকে ফল খাবার আশা ছেড়ে দিতে হবে। এরপর এ রকম একজন একটিভিস্টের কেবল এই ধরনের অভিযোগ করার অধিকার আছে।[…] এ রকম বাস্তবতায় ঠিক এক বছর বাস করার পর তাকে ঠিক নীচের প্রশ্নগুলো করুন: উক্ত একটিভিস্ট এর কোন গাছের ফলটি শেষ পর্যন্ত তার খাবারের টেবিলে এসে পৌঁছতে সমর্থ হয়েছিল? আপনার বাসায় কি কুকুর বা অন্য কোন পোষা প্রাণী আছে? আপনার পকেটে কি কোন টিয়ার গ্যাসের বোমা বা কোন ছুরি আছে?[…]

নীচে ইএনএআর সম্বন্ধে এসএমই.এসকে-তে লেখা প্রবন্ধের (স্লোভাক ভাষায়) উপর আসা মন্তব্য তুলে ধরা হল।
মার৯::

আমার বাসার চারপাশে কাটাতারের বেড়া রয়েছে, তার মানে কি এই আমি এক কনসেনট্রেশন ক্যাম্পের মধ্যে বাস করছি? এই ভদ্রলোক কি বন্দীশালা এবং বেড়ার দিয়ে ঘেরা বাগানের মধ্যে পার্থক্য কি তা জানেন। এর উত্তর খুব সাধারণ- প্রথমটির ক্ষেত্রে পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র এবং প্রহরী থাকে […]

প্যানারমিক্সপইএনঃ:

আমি পুরোপুরি একমত যে স্লোভাকিয়ায় বর্ণবাদ বিদ্যমান। এই মন্তব্যের বিবৃতি সাথে আমি একমত, কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে এই বর্ণবাদের শিকার কারা। এখানে সাধারণের সাথে মিশে যাওয়া রোমা জনগোষ্ঠী এবং একই সাথে সাদা মানুষেরা এর শিকার, রাষ্ট্র যাদের সাধারণের সাথে না মেশা রোমা জনগোষ্ঠীর অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের হাত থেকে রক্ষা করে না।[…]

থমাস৯ঃ:

নিসন্দেহে, লাকোর কনসেনট্রেশন ক্যাম্প সম্বন্ধে কোন ধারনা নেই। তা না হলে সে বলত চেক প্রজাতন্ত্র এবং হাঙ্গেরির তুলনায় স্লোভাকিয়ার জিপসিরা অনেক ভালো অবস্থায় রয়েছে। ওই দুটি রাষ্ট্রে তাদের অনেককে হত্যা করা বা আগুনে পোড়ানো হয়েছিল। […]

জিক্স.এক্সইঃ:

[…]আমার পূর্ব পুরুষেরা মিশ্র বর্ণের এবং প্রথম দেখায় মানুষজন মনে করে যে আমি কোন এক [আদিম] উপজাতি থেকে এসেছি, কিন্তু আমি যখন চাকুরি খুঁজতে যাই, তখন আমি কোথাও বর্ণবাদের মুখোমুখি হই না, এমনকি আমার অফিসেও না, কাজেই খুব সাধারণ ভাবে এটা একটা অর্থহীন বিষয়, এ ছাড়াও আমি যে সমস্ত জিপসিদের জানি তারা এক সাধারণ জীবন যাপন করে […]। অবশ্যি কোথাও কোন বার বা কোন ডিস্কোতে এ রকম ঘটনা ঘটে যেখানে কিছু লোকের মানুষ নিয়ে সংস্কার থাকে, কিন্তু তাদের বড় বড় চোখ করে তাকাতে এবং বলতে দিন, কার এতে কি এসে যায়। […]

কেউ কি আমাকে বলবে জিপসিদের কাছে স্লোভাকিয়ার ঋণ কোথায়? ইউরোপ তার কাছে কি ভাবে ঋণী? তারা যে জন্তুর মত জীবন যাপন করে তা কার দোষে? দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে অনেক ইহুদি মারা গিয়েছিল, কিন্তু তাদের তো কেউ কিছু দেয়নি। রোমারা এখানে শত শত বছর ধরে বাস করছে, মাত্র গতকাল তারা এখানে আসেনি এবং তারা এভাবেই এখানে বাস করছে।

যেমনটা আমি আগেও বলেছি, আমার নিজের পরিবারে জিপসি রয়েছে, কিন্তু আমি বুঝতে পারিনা তারা কি কারণে এ ভাবে বাসবাস করে, ময়লার মাঝে, স্কুল ছাড়া বাস করা, এ কি ধরনের জীবন?

আমার দাদির নিজের ঘর, বাগান ছিল, এবং তিনি গবাদি পশু রাখতেন, আমার দাদা নাচের অনুষ্ঠানে বাদ্যযন্ত্র বাজাতেন এবং সাদাদের যে পরিমাণ টাকা থাকত, তাদের কাছেও সে পরিমাণ টাকা থাকত, তার চারটি সন্তান ছিল এবং তারা রাজধানীর স্কুলে পড়ত, যার জন্য সে সময় অনেক টাকা লাগত […]
[…]

এবং যেহেতু, বংশ পরিচয়ে আমি আধা জিপসি, আমি আগ্রহী যদি সংখ্যালঘু-পন্থী কোন ভদ্রলোক আমার ঋণ, কার লিজিং-এর অর্থ প্রদান করে, অথবা যদি রাষ্ট্র আমার জন্য জমি বা বাসগৃহ কেনে[…]. […] আমি ৫০০ ইউরোর জন্য পাগলের মত কাজ করেছি, কিন্তু কেউ আমার কাছে আসেনি। এ সব কেবল তাদের জন্য যারা তাদের জীবনে কখনো কাজ করে না […]. […]

এনফিল্ড রোড নেমা রাড সেনুজুরু:

যদি এই অভিযোগে ফ্রান্সের বিদেশীদের বিদায় করার বিষয়টি উল্লেখ করা হয়, সে ক্ষেত্রে স্লোভাকিয়ার নাম উল্লেখ করার ক্ষেত্রে আমি সমস্যা দেখছি না

টিম্মি_এঃ:

আমি মনে করি এ ধরনের অভিযোগ এই ধরনের ঘৃণাকে দূর করার বদলে তা আরো গভীরে ছড়িয়ে দেবে।

জিয়নঃ:

জিপসিদের ক্ষেত্রে পরবর্তী যে বিষয়টি বলা যায়, তা হল “সাদারা” তাদের কাজ দেবে না। স্লোভাকিয়ার চাকুরির বাজারের পরিস্থিতি খুব খারাপ। ( স্লোভাকিয়ার পূর্বাংশের পরিস্থিতি সবচেয়ে খারাপ)। এটা এক সময় আমার ক্ষেত্রে ঘটেছিল, যখন আমি [কর্মসংস্থান অফিসে] নাম নিবন্ধন করেছিলাম। সে সময় আমি চাকুরি খুজে না পাওয়া পর্যন্ত দুই মাস সেখানে ঘোরাঘুরি করি ( আমি যা অনেক বছর ধরে করেছিলাম)। প্রতিবার সে অফিসে যাবার ক্ষেত্রে একই ঘটনা ঘটত- এখানে স্বাক্ষর করুন, আর এখানে এবং এখানে (স্বাক্ষর করতে বলত)…এবং এরপর বলত দুর্ভাগ্যক্রমে আমাদের কাছে কোন চাকুরি নেই… দুই সপ্তাহের মধ্যে এসে আবার সই করবেন। একবার কেবল আলাদা এক ঘটনা ঘটেছিল… যখন আমি কাগজে সই করছিলাম, এক জিপসি রমণী তার স্বামীর সাথে জোর করে ঘরে প্রবেশ করল এবং টেবিলে আঘাত করা শুরু করল; এবং বলল, আমাকে একটা কাজ দাও! আমি কাজ চাই! কর্মকর্তা ভদ্রমহিলা সকলকে যা বলছিলেন, তাকেও তাই বললেন, “দুর্ভাগ্যক্রমে এখন কোন কাজ নেই”। এরপরে মহিলা তার স্বামীকে বলল “ক্যামেরায় এই দৃশ্যটি ধরে রাখ, তারা আমাকে কোন কাজ দিতে চায় না- তারা আমাদের প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণ করছে! আমরা ইংল্যান্ডে চলে যাবো [রাজনৈতিক আশ্রয় লাভের উদ্দেশ্যে!]”। সে সময় মনে হচ্ছিল আমি যেন একটা রিয়ালিটি শোতে অংশ গ্রহণকারী ব্যক্তি।

রিপেনঃ:

স্লোভাক=বর্ণবাদী।
আমি এটি বিশ্বাস করি না-এমনকি নাচের আসরে জিপসি সঙ্গীত বাজানো হয় এবং স্লোভাকরা তা ভালোবাসে এবং তার সাথে নাচে।

জোমক১:

নিয়ম মেনে চলা জিপসিদের ক্ষেত্রে বেশিরভাগ স্লোভাকদের কোন অভিযোগ নেই… এবং সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে যে, আক্রমণাত্মক‌ অসামাজিক ভাব, জিপসি নয় এমন ব্যক্তিদের উপর ঘৃণা বর্ষণ করে না। তারা অন্য সব জিপসিদের প্রতি সেই আচরণ করে যারা ভালো এবং সামাজিকতা বজায় রাখে। আমি খুশি হব যখন মানবাধিকার সংগঠনের ভদ্রমহোদয় এবং মহিলারা এই বিষয়টির ব্যাখ্যা দেবে-এই সব জিপসিরা কেন এ রকম।

১২৩এবিসি:

অবিশ্বাস্য। রাষ্ট্র বিনে পয়সায় গৃহ নির্মাণ করে দেবে এবং সেই মানুষগুলোকে সেখানে নিয়ে যাবে, যারা এমন এক অবস্থায় বাস করছে যে অবস্থায় আমি কোন পশুকে-ও বাস করতে দেখতে চাই না। মিঃ লাকো এই ঘটনায় বৈষম্যের গন্ধ খুঁজে পেতে পারেন এবং এমনকি ব্রাসেলসে গিয়ে এর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করতে পারেন।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .