বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

আরব বিশ্বঃ আরব রাজতন্ত্রের সংগঠন-এ জর্ডান ও মরোক্কো

প্রথমে, সবাই ভেবেছিল যে, এটা কৌতুক বা আরেকটা টুইটার গুজব। কিন্তু, শীঘ্রই নেট নাগরিকরা বুঝতে পেরেছে যে এটা সত্যি এবং এই ঘটনা সবাইকে হতবাক করেছে, এমনকি যারা এটা নিয়ে মজার টুইট প্রদান করেছে, তাদের কাছে আশ্চর্যের বিষয় হল জর্ডান ও মরোক্কোর গালফ কোপারেশন কাউন্সিল বা জিসিসি-তে যোগদান অনুরোধকে স্বাগত জানানো হয়েছে এবং এটা নিয়ে আলোচনা করা হবে।

জিসিসি নামক সংস্থায় জর্ডানের অংশগ্রহণের বিষয়টি এত গুরুতর নয় কারন এর সীমানায় অংশীদারিত্ব আছে। কিন্তু আরব বিশ্বের অন্য প্রান্তে অবস্থিত মরক্কোর ব্যাপারটি অনেক কৌতুক ও প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে।

জিসিসি, ১৯৮১ সালে গঠিত একটি রাজনৈতিক সংঘ, যার সদস্য হল কুয়েত, সৌদি আরব, বাহরাইন, ওমান, কাতার ও সংযুক্ত আরব আমিরাত।

The hash tag #GCC went on fire after the news of Morocco and Jordan requesting to join the GCC.

#জিসিসি নামক হ্যাশট্যাগ, মরোক্কো এবং জর্ডানের জিসিসি নামক সংস্থায় যোগদানের অনুরোধে উত্তপ্ত হয়ে উঠে

আরব আমিরাতের কলাম লেখক এবং টুইটার ব্যবহারকারী সুলতান আল কাসেমি (@সুলতানআলকাসেমি) এই খবরের ব্যপারে প্রথমে টুইট করেছিল। তিনি লিখছেন :

“এখন জিসিসি-এর সীমানা ইসরাইল, ফিলিস্তিন ও সিরিয়ার সীমানার সাথে যুক্ত হয়েছে”

এরপর, আল কাসেমি আরো বলেন:

“প্রকৃতপক্ষে, জিসিসি আরব রাজতন্ত্রের এক ক্লাবে পরিণত হয়েছে”#মরোক্কো# জর্ডান।

এমবিসি সম্প্রচার কেন্দ্রের এক প্রখ্যাত সৌদি উপস্থাপিকা মুনা আবু সুলায়মান (@মুনাআবুসুলায়মান) লিখছেনঃ

“নতুন জিসিসি নিশ্চিত করছে যে, পুরনো জিসিসি বাদে আর কারো কোন ক্ষমতা নেই। মিশরের জন্য বড় শিক্ষা, তারা আরব লীগকে সেকেলে এক সংস্থায় পরিণত করেছে”।

সৌদি আরবের অপর এক প্রখ্যাত নারী অধিকারকর্মী হাতুন-আল-ফাসি জিসিসি নামক সংস্থায় জর্ডান ও মরোক্কোকে নেয়ার প্রতিক্রিয়া জানিয়ে টুইট করেছে এবং তার দৃষ্টিভঙ্গি অন্যান্য টুইট করা ব্যক্তির টুইটে বিভিন্ন ভাবে পুনরায় উপস্থাপিত হয়েছে। আল-ফাসি (@হাতুনআলফাসি) লিখেছেন :

জিসিসি, রাজতন্ত্রের ধ্বজাধারীদের এক সংস্থায় রূপান্তরিত হচ্ছে। জর্ডান এবং মরোক্কোকে সেখানে যোগ দিতে অনুরোধ করা হচ্ছে।

এবতিহাল মুবারাক (@এবতিহালমুবারাক) এক সৌদি একটিভিস্ট এবং সাংবাদিক যিনি বর্তমানে নিউইয়র্ক শহরে বাস করছেন, তিনি আল ফাসির সাথে একমত, ভদ্রমহিলা তার টুইটে বলছেনঃ

“ অবশিষ্ট রাজতন্ত্র/একনায়কদের রক্ষার জন্য নতুন জিসিসি কি ধনী উপসাগরীয় রাষ্ট্রের-এর এক বেপরোয়া পদক্ষেপ?”

খোবারে পৌরসভা নির্বাচনে প্রথম নিবন্ধনকারী সৌদি তরুণী হেবা-আল-বুতাইরি (@হে_বা) কয়েক সপ্তাহ আগে লিখছেন:

“এই দুর্বোধ্য ব্যাপারটিকে দেখতে দেয়ার জন্য ধন্যবাদ। গণতন্ত্রের একে বিরুদ্ধে জিসিসি ও রাজতন্ত্রের জোট হিসেবে দেখা যেতে পারে”

কুয়েতি আইনজীবী ও রাজনৈতিক কর্মী ওবাইদ-আল-ওয়াসমি (@ডঃ_আলওয়াসমি) এই খবরের সমালোচনা করে লিখেছেন:

الترحيب يإنضمام الأردن و المغرب لمنظمة مجلس التعاون يستوجب تغيير نظامها القانوني من منظمة دولية إلى نقابة للأسر المالكة لأنه هو الهدف الفعلي

“জিসিসিতে, জর্ডান ও মরোক্কোকে স্বাগত জানালে তা জিসিসি এর বৈধ নিয়মকে বদলে, একে আন্তর্জাতিক সংস্থা থেকে রাজ পরিবারের এক সংস্থাতে পরিবর্তিত করবে, আর এটাই আসল উদ্দেশ্য”

সৌদি টুইটার ব্যবহারকারী তরুণী আলিয়া-আল-ফায়িঘ (@আলিয়া-এফ) এ ব্যাপারে আরেকটি দিক উল্লেখ করে বলছেন :

“সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল এ ব্যাপারে নাগরিকদের কাছ থেকে কোন কিছু জানতে চাওয়া হয়না এবং তাদের কোন মতামত নেই”।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .