বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

পাকিস্তান: ভিনা মালিক সংক্রান্ত বিতর্ক

ভিনা মালিক

লা্ক্স স্টাইল পুরস্কার অনুষ্ঠানে ভিনা মালিক। ছবি অরুন রেজিনাল্ডের। ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্সের আওতায় ব্যবহুত

যখন উঠতি পাকিস্তানী নায়িকা ভিনা মালিক ভারতীয় রিয়ালিটি শো বিগ বসে অংশগ্রহন করেন, খুব বেশী লোক তাকে লক্ষ্য করেননি। কারন অনেকেই বিশ্বাস করেননি যে তিনি এই শোতে কয়েক সপ্তাহের বেশী টিকবেন। তবে তিনি ভারতে ঘরোয়া নামে পরিণত হন যখন প্রাথমিক পর্যায় পার হয়ে এই অনুষ্ঠানের শেষ রাউন্ডে পৌঁছানোর পর বাদ পড়েন। ওদিকে তার নিজভূমে কট্টরপন্থীরা এরই মধ্যে ছুরিতে শান দিচ্ছিলেন এই শোতে তার কথিত লজ্জাজনক কাজের জন্য তাকে একটা শিক্ষা দেয়ার জন্য। তিনি দেশে ফিরে এসে পরেছেন তোপের মুখে। তবে তিনি স্পষ্টভাষী আর কঠোর অবস্থান নিয়েছেন যেমন দেখা গেছে এক্সপ্রেস টিভিতে সাম্প্রতিক একটা টক শোতে যখন মুফতি (ধর্মীয় পন্ডিত) আব্দুল কাওয়াই পাকিস্তান আর ইসলামকে অপমান করার অভিযোগ আনেন তার প্রতি।

আয়েশা তার শার্প পারশেপসান্স ব্লগে ভিনার সাহসের প্রশংসা করেছেন:

ভিনাকে প্রশংসা নিজের জন্য দাঁড়ানোর জন্যে; সেইসব অগুন্তি মানুষের অনুভূতিকে শব্দ দিয়ে প্রকাশের জন্যে, যারা জনসম্মুখে ভয়ে কথা বলতে পারেন না এবং এরকম গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সমাজে মুখোমুখি হওয়া থেকে বিরত থাকেন।

রাজা রুমি পাক টি হাউস ব্লগে জানিয়েছেন:

‘সংক্ষেপে, ভিনা মালিক মধ্যবিত্তদের নীতিকে চ্যালেঞ্জ করেছেন যা উর্দু প্রেসের মধ্যে ঢুকে আছে, আর এর থেকে বেড়ে তার ইলেক্ট্রনিক দোসরের কাছেও। কেবলমাত্র এই বাস্তবতা যে একজন পাকিস্তানী বিনোদনকারী পশ্চিমা পোশাকে ঘুরে বেড়াচ্ছেন আর ভারতীয় দর্শকদের প্রীত করতে একজন ‘হিন্দু’ অভিনেতার সাথে প্রেমের অভিনয় করছেন – এই বিষয়টি জনগনের নীতির রক্ষকদের, যাদেরকে ঘাইরাত ব্রিগেড বলা হয় আদর করে, তাদেরকে সতর্ক করে দিয়েছে। ঘাইরাত এর ধারনা মূলত: সরকার আর বেসরকারী পথের মাধ্যমে নারীদের নিয়ন্ত্রণ করা আর জঙ্গী জাতীয়তাবাদীদের ব্যাখ্যা বার বার তুলে ধরা। একজনের পর আর একজন উপস্থাপক ভিনা মালিকের বিরুদ্ধে ক্ষুব্ধ উচ্চারণ করেছেন আর তাকে ওয়াজিব-উল-কাতল এর থেকে একটু কম ঘোষণা করেছেন। এটি তালিবান প্রচলনে জনসম্মুখে দোররা মারা থেকে খুব একটা পৃথক না।“

সানা সালিম ডন ব্লগে পাকিস্তানে বিদ্যমান অসামঞ্জস্যতা নিয়ে কথা বলেছেন যা অধ্যাদেশ প্রচারকারীদের দ্বারা সৃষ্ট:

“এটা সত্যি, কেউ কোন পুরুষ সম্পর্কে এইভাবে কথা বলার সাহস পেতেন না, তাকে গালি দেয়া বা তার চরিত্র বা কাজ নিয়ে জাতীয় টেলিভিশনে প্রশ্ন তুলতো না। যদিও না এমন যে এটা তাদের করা উচিত, কিন্তু কেউ কি আতিফ আসলাম, আলি জাফর, রাহাত ফাতেহ আলি খান বা আরও অগুন্তি শিল্পী যারা ভারতীয় চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন, মিউজিক ভিডিও প্রযোজনা আর তৈরি করেছেন তাদের নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন? তাদের কাজ কি কেউ কখনো পর্যালোচনা করেছেন? আমরা কখনো এটা আলোচনা করিনি যে তাদের কোন ভিডিও ইসলাম বা আমাদের সংস্কৃতিকে মূল্য দিয়ে করা কিনা। তারপরেও, আমরা আমাদের অধিকার মনে করি একজন নারীকে অপমান করে তাকে আমাদের দেশের ‘সম্মানের’ একমাত্র দায়ী করে তুলতে। যারা মনে করেন যে এই ধরনের প্রচন্ড প্রতিক্রিয়া দেখানো প্রয়োজন তাদের উচিত তাদের ‘সম্মান আর সম্ভ্রম’ এর মানে আবার বোঝার। তবে সেই সম্ভ্রম রিয়ালিটি শোতে নারীর আবির্ভাবের ফলে বাধাগ্রস্ত হলেও কিন্তু যখন ১০০০ শিশু- যাদের বেশীরভাগ মেয়ে- হত্যা করা হয় বা মারা যাওয়ার জন্য পরিত্যাগ করা হয় সেটাতে কোন দাগ পড়ে না। এটা ভণ্ডামি ছাড়া আর কিছু না।“

রুমায়সা মোহানি তার ব্লগ লিটল থিংস এ বর্তমান ঘটনার প্রেক্ষিতে অন্য ধরনের একটা বিষয়ের বেড়ে চলা তুলে ধরেছেন:

“পাকিস্তানে, আমাদের সমাজে বিশাল একটা অংশের উত্থান দেখা যাচ্ছে- আংশিক স্বাধীনচেতা বা তাদেরকে আংশিক- মৌলবাদী (না ডানপন্থী না বামপন্থী) … তারা উন্মুক্ত মিডিয়াতে বেরিয়ে আসছেন আর মুসলিম আর পাকিস্তানী হিসাবে তাদের ভাবমূর্তি অপব্যবহার আর খুব খারাপভাবে উপস্থাপন করা নিয়ে তাদের দুশ্চিন্তার কথা জানাচ্ছেন।“

অবশ্য সবাই না এমন কি সহনীয় পাকিস্তানী ব্লগ জগৎও এই ব্যাপারে একই ধরনের মত দেন:

স্প্রিং অফ অটাম ব্লগের রিবস মনে করেন বিগ বস শো কে পাকিস্তনে নিষিদ্ধ করা উচিত:

“এ ছাড়া, ভারতীয় মিডিয়া বেশ ভালো একটা কৌশল অবলম্বন করেছে যতদূর সম্ভব লাভ করার আশায় বিগ বস ৪ এ পাকিস্তানী তারকাদের অন্তর্ভূক্তির সিদ্ধান্ত নিয়ে। পাকিস্তানে ভিনা মালিক সব থেকে বির্তকিত আর অপছন্দের পাত্রী। তিনি জানেন মিডিয়াতে কিভাবে থেকে সবার মনোযোগ আকর্ষণ করা যায়। বিগ বস ৪ এও তিনি গুরুত্বর অপরাধ করেছেন, যদি সেটা তিনি যে ধর্ম/ মূল্যবোধের অংশ সেই হিসাবে বিচার করা হয়। যেহেতু তিনি একজন পাকিস্তানী প্রতিযোগী, বিগ বস শো পাকিস্তানে বেশ নাম করেছে, আর তাই টিভি চ্যানেল আর আরি পাকিস্তান এর সব কটা পর্ব প্রচার করছে। এটা তরুণ প্রজন্মকে দূষিত করার একটা সূত্র আর একই সাথে পারিবারিক মূল্যবোধ এতে আক্রান্ত হয়।“

স্পিক ইউর মাইন্ড ব্লগ কেবলমাত্র এই ব্যাপারে মন্তব্যই করছে না বরং ভিনা মালিকের একটা দিক দেখাচ্ছে যা খুব একটা ভালো না:

“আমরা ভিনা মালিককে অনেক দিন থেকে দেখছি। তিনি সেই মুখদের মধ্যে একজন যিনি এই ইন্ডাস্ট্রিতে কখনো কোন পরিচিতি পাননি। তিনি স্বতস্ফূর্ত আর নিজের জীবন, সার্জারি, মতামত, ভালোবাসা আর ক্ষোভের ব্যাপারে বেশ খোলামেলা। আমার মনে হয় ভিনা মালিক একজন মনোযোগ আকর্ষণকারী আর একজন ভন্ড।“

বর্তমানে ভিনা মালিক বিগ বসে তার অংশগ্রহনের কারনে কেবলমাত্র জনগণের সমালোচনার সম্মুখীন হচ্ছেন না বরং অনৈতিকতার জন্য তাকে অভিযুক্ত করা হয়েছে লাহোরের আদালতে জানিয়েছে ফ্রন্টিয়ার ইন্ডিয়া আর অলভয়েসেস:

“মামলার আবেদনকারী দাবী করেছেন যে অভিনেত্রী ভিনা মালিক সম্প্রতি একটা ভারতীয় রিয়ালিটি শোতে অনৈতিক আর অনৈসলামিক কার্য করেছেন আর একই অভিযোগ জানানো হয়েছে স্থানীয় প্রেসে।“

ভিনার পক্ষে বা বিপক্ষে উপরের সকল মতামত আরো এই মতকে দৃঢ় করছে যে পাকিস্তান এখন তার সংরক্ষণশীল আর উদার সম্প্রদায়ের মধ্যে বিভক্ত, এই দুই পক্ষই ক্ষমতা দেখানোর চেষ্টা করছে আর তাদের মতামতে একটুও ছাড় দিতে কেউ রাজি না।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .