বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

মিশর: যখন মুবারকের ভাষণ আরো ক্ষোভের সঞ্চার করে

এই পোস্টটি ২০১১ সালে মিশরের প্রতিবাদ বিপ্লব সম্পর্কে আমাদের বিশেষ কাভারেজের অংশ

Mubarak addressing Egyptians. Photo credit: Sultan Al Qassemi

মুবারক মিশরীয় নাগরিকদের উদ্দেশ্য ভাষণ প্রদান করছেন। ছবি: সুলতান আল কাসেমির

যখন চারদিন ধরে চলা বিক্ষোভ মিশরকে উত্তপ্ত করে রেখেছিল, তখন এই কয়দিন মিশরের একগুয়ে রাষ্ট্রপতি হোসনি মুবারক চুপচাপ থেকে অবশেষে আজ জাতির উদ্দেশ্য ভাষণ প্রদান করলেন। তিনি বিক্ষোভকারীদের “গুণ্ডা” এবং “লুটেরা” বলে উল্লেখ করেন। এছাড়াও তিনি মন্ত্রীসভার সকল সদস্যকে বরখাস্ত করেন এবং বলেন যে আজকেই তিনি মন্ত্রীসভায় নতুন সব মন্ত্রীদের নিয়োগ দিতে যাচ্ছেন। সারা বিশ্বের নেট নাগরিকরা তার এই ভাষণে কেবল হতাশ নয়, তারা এই ভাষণে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেছে।

অ্যাংরি আরব নিউজ সার্ভিসের আসাদ আবুখালিল তীব্র কণ্ঠে বলছেন:

মুবারকের ভাষণ টিভিতে সরাসরি প্রচার হচ্ছে। সে তার নিজের জন্য এক বড় গর্ত খুঁড়ছে। সে বিক্ষোভকারীদের অপমান করেছে। মুবারক তার ভাষণে বলেছে যে সে সারা জীবন ধরে গরিবদের প্রতি সহানুভূতিশীল ছিল। এই কারণে কি আপনার চারপাশে সব কোটিপতিদের ভীড়, যে আপনি এক স্বৈরশাসক?

আরেকটি তীব্র আক্রমণাত্মক লেখায়, লেবাননে জন্ম নেওয়া এই আমেরিকান নাগরিক লিখেছেন:

সে তার পুরো মন্ত্রীসভার পদত্যাগের কথা বলেছে: কারো গিয়ে তাকে বলা উচিত: জনতা আপনার পদত্যাগ চায়। হে নির্বোধ।

এবং সে মুবারকের ভাষণের সাথে তিউনিশিয়ার বিতাড়িত রাষ্ট্রপতি জয়েন এল আবেদিন বেন আলির ভাষণের তুলনা করেছে। ২৯ দিনের এক বিক্ষোভের পর বেন আলিকে দেশ ত্যাগ করতে বাধ্য করা হয়।

আপনারা মুবারকের এই ভাষণকে রাষ্ট্রপতি হিসেবে বেন আলির দেওয়া সর্বশেষ ভাষণের সাথে তুলনা করতে পারেন। এই ভাষণ কেবল সবকিছুকে আরো খারাপের দিকে নিয়ে যাবে। সে এমন ভাবে কথা বলছে যেন লোকজন এই দুর্দশার জন্য প্রধানমন্ত্রী নাদিফকে দায়ী করছে। যে ভাবে একজন স্বৈরশাসক শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত লড়াই করে। ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি যে আজ সে তার ক্ষমতা ত্যাগ করত, কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র তাকে ক্ষমতায় থাকতে বাধ্য করছে। আমি এই বিষয়টি ধারণা করছি মাত্র, কিন্তু আমার মনে হয়, এই ব্যাপারে আমি সঠিক। আমি এই রকম তথ্য পেয়েছি যে, যুক্তরাষ্ট্র মিশরীয় সেনবাহিনী প্রধানকে নতুন নেতা হিসেবে তৈরির চেষ্টা চালাচ্ছে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের সুলতান আল কাশেমি জানুয়ারির ২৫ তারিখ থেকে শুরু হওয়া বিক্ষোভের সময় থেকে মিশরের উপর খুব নিবিড় ভাবে নজর রাখছিলেন। তিনি বেশ কিছু ধারাবাহিক টুইটে তার ক্ষোভ এবং হতাশা ব্যক্ত করেছেন।

তিনি বলছেন:

তিনি ইন্টারনেট এবং মোবাইল ফোন নেটওয়ার্ক সংযোগের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে নেননি, তিনি বিরোধী দলের নেতাদের সাথে বৈঠকের কোন প্রস্তাব করেননি। তিনি মিশরীয় নাগরিকদের চাওয়াকে গ্রহণ করেননি।

তিনি এর সাথে যোগ করেছেন:

এমনকি তিনি বলেননি যে তিনি এ বছরে পরবর্তী সময়ে যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে, তাতে তিনি আর অংশ গ্রহন করবেন না। তার পুত্রকে ক্ষমতায় আসীন করবেন না অথবা সংসদ ভেঙ্গে দেবেন! মিশরীয় যা পাবে তা হচ্ছে জামাল মুবারক দ্বারা নিয়ন্ত্রিত এক নতুন সরকার।

এবং সে ক্ষোভে ফেটে পড়ে বলছে:

একজন বয়স্ক স্বৈরশাসকের প্রদান করা ইতিহাসের সবচেয়ে বাজে ভাষণ। কি সব বাজে কথায় ভরপুর।

এদিকে, সারা বিশ্ব থেকে আসা কিছু প্রতিক্রিয়া নীচ তুলে ধরা হল:

এই টুইটটি ১০০ বারের মত পুনরায় টুইট করা হয়েছে:

@সিভাভেইড: মুবারকের প্রতি, অস্বীকার (ডিনাইল/নীল নদ) #মিশরে একটি প্রবাহমান ধারা।

মিশরে যা কিছু ঘটছে তার ক্ষেত্রে নমনীয় আচরণ প্রকাশ করে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা তোপের মুখে পড়েন

@সামিরআহমেদইউকে: গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের পরিবর্তন করার ক্ষেত্রে মুবারকের যে চিন্তা: তাতে সে “নিজেকে বাদ দিয়ে সবাইকে বরখাস্ত করেছে”। পুরোদস্তুর পরিবর্তনের বিষয়ে ওবামার যে বক্তব্য তা অনেক দুর্বল।

উপ-রাষ্ট্রপতি জো বাইডেন, তারচেয়ে ভালো কোন বক্তব্য প্রদান করেনি :

@এফগেনিমোরোজভ: জো বাইডেন উদ্বেগের সাথে উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা অ্যাসাঞ্জেকে “উচ্চ মানের প্রযুক্তি ব্যবহারকারী সন্ত্রাসী” হিসেবে অভিহিত করেছেন, কিন্তু তিনি মুবারককে “স্বৈরশাসক” বলতে অনিচ্ছুক। আমেরিকার তার নিজের মত সব তৈরি করছে।

টুইটারে মুবারকের কিছু বক্তব্য হাসির বিষয় এবং বিচিত্র বলে বিবেচিত হয়েছে:

@নানাওয়ারিকো: হাহাহাহা আরটি@জিচিভুহু:#মুবারক, আমি এখানে মিশরের নিরাপত্তার বিধানের দায়িত্বে নিয়োজিত”।#ইয়ুলাই,#এসওবি

@মাইয়োসেফ: মিশর প্রধানের পদ থেকে জনতা মুবারককে অপসারিত করে ছাড়বে@ফোরস্কোয়ার,#জান২৫

@রিংলুনাটিক:আরটি @আনএসেনসিয়ালিস্ট:আরটি@ইয়াসমিনহামিদি:মুবারক: আমি যে স্বৈরশাসক নই তা প্রমাণের জন্য, আমি ব্যক্তিগতভাবে এক নতুন সরকারে নাম ঘোষণা করব!#জান২৫,#ইজিপ্ট

@ওমারবাদ্দার: দিনের সেরা কৌতুক-ওবামা: হোসনি, আমরা মনে হয় তোমার জনতার প্রতি তোমার একটা বিদায় পত্র লেখা উচিত”। হোসনি মুবারক: কেন? তারা কোথায় যাচ্ছে?

অন্যরা আমাদের স্মরণ করিয়ে দেবার জন্য ইতিহাসের পাতায় প্রবেশ করেছে:

@এমআলশেহরি: “মুবারক #মিশরের ৫০০০ বছরের ইতিহাসে তৃতীয় শাসক যিনি সবচেয়ে বেশি দিন ক্ষমতায় রয়েছেন। তার চেয়ে কেবল মোহাম্মদ আলি বাশা এবং ফারাও দ্বিতীয় রামেসিস বেশি দিন ক্ষমতায় ছিলেন#জান২৫”।

যাই হোক না কেন, মনে হচ্ছে তার ভাষণ রাস্তায় বিক্ষোভকারীদের মনে আরো ক্ষোভের সঞ্চার করেছে:

@ইএনিউজফিড: #ইজিপ্ট: কায়রোর থেকে সরাসরি পাওয়া সংবাদ: মনসিক দৃঢ়তা, কোন কিছু শুনতে বাধ্য নয়। বিক্ষোভ চলছেই”।#সিদিবোউজিদ।http://tinyurl.com/6ysbf9a #Jan25 #sidibouzid

@মোনায়েলতাহাওয়া:#মুবারক: একজন স্বৈরশাসকের মত আচরণে, যার নাগরিকদের শঙ্কিত হবার কথা, তার বদলে সে নাগরিকদের ঘৃণা এবং ক্ষোভ অর্জন করেছে। বিক্ষোভকারীরা তাকে মোটেও ভয় পায় না।#জান২৫

@আহমাদএইচকেএইচ:#মিশরের রাজধানী কায়রোতে সামরিক বাহিনীর ট্যাঙ্কের উপর লেখা রয়েছে “মুবারক নিপাত যাক”। যা আসলে সবকিছু স্পষ্ট ভাষায় বলছে।#জান২৫

এবং টুইটারে আরো অনেকে মুবারককে তল্পিতল্পা গুটিয়ে মিশর ত্যাগ করার আহ্বান জানাচ্ছে:

@ইউনাইটেডআরব:#মুবারক, আপনার পরিবারের সদস্য এবং সহযোগীদের একসাথে করা এবং #মিশর থেকে অন্য কোথাও চলে যাবার জন্য আজ একটা চমৎকার দিন।

@আলইয়াখানস্তাচু: জনতা চেঁচিয়ে বলছে, মুবারক, মুবারক, সৌদি আরব তোমার জন্য অপেক্ষা করছে”। তারা তখন এই কথাগুলো উচ্চারণ করে, যখন জল কামান তাদের দিতে তাক করা হচ্ছিল। –

@আকসাআআ_: প্রথমে তোমারা নাগরিকরা, তারপর যুক্তরাষ্ট্র এবং এখন তোমার সামরিক বাহিনীর সদস্যরা তোমার প্রতি সমর্থন প্রত্যাহার করে নিয়েছে। যখন তোমার ঘনিষ্ঠ মিত্ররা তোমাকে পরিত্যাগ করেছে, তখন #মুবারক, ক্ষমতা ত্যাগ করাই বুদ্ধিমানের কাজ। #মিশর,#জান২৫

যখন মুবারকের ৩০ বছরের শাসনের বিরুদ্ধে চলতে থাকা ব্যাপক বিক্ষোভ আজ পঞ্চম দিনে পা দিয়েছে, তখন এই সংক্রান্ত আরো তথ্যের জন্য আমাদের সাথেই থাকুন।

এই পোস্টটি ২০১১ সালে মিশরের প্রতিবাদ বিপ্লব সম্পর্কে আমাদের বিশেষ কাভারেজের অংশ

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .