বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

“শুরতে কেবল ছিল শব্দ”: বাইবেল অনুবাদকদের ব্লগ

Computer support for Bible translators in Nairobi

নাইরোবিতে বাইবেল অনুবাদকদের কম্পিউটারের সাহায্য গ্রহণ করছে

এই সপ্তাহ সারা বিশ্বের খ্রিষ্টানরা (জুলিয়ান ক্যালেন্ডার অনুসারে ২৫ ডিসেম্বর, যিশুখ্রিষ্টের জন্মদিন পালন করা হয়) যিশুখ্রিষ্টের জন্মদিন পালন করেছে। সারা বিশ্বে বিভিন্ন মতাবলম্বী খ্রিষ্টান সম্প্রদায় ছড়িয়ে রয়েছে এবং সারা বিশ্বে তাদের সংখ্যা প্রায় ২.২ বিলিয়ন (২২০ কোটি প্র্রায়)। এই পোস্টে আমরা সেই সমস্ত ব্লগের লোকদের উপর নজর দিব, যারা খ্রীস্ট ধর্মের বাণীকে পৃথিবীর যতগুলো ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব, তা নিশ্চিত করার চেষ্টা করে যাচ্ছে- তারা বিশ্বের বিভিন্ন ভাষায় বাইবেল-এর অনুবাদ করছে।

বাইবেল অনুবাদের এক অন্যতম অংশীদার প্রতিষ্ঠানের দেওয়া তথ্য মতে, সারা বিশ্বে প্রায় ৩৫০ (৩৫ কোটি) মিলিয়ন লোক রয়েছে, যাদের কাছ মাতৃভাষায় প্রকাশিত কোন বাইবেল নেই। বর্তমানে প্রায় ১৯০০টি সক্রিয় বাইবেল অনুবাদ কার্যক্রম চলছে। অডিও বাইবেল মিনিস্ট্রি বিশ্বের প্রায় ৫০০ ভাষায় নিউ টেস্টামেন্ট রেকর্ড করেছে। এই সব ভাষার মধ্যে রয়েছে প্যারাগুয়ের চামাকোকো, ফিলিপাইনসের পাঙ্গাসিনান, ভারতের আসাম অঞ্চলের বোড়ো এবং উগান্ডার কাপসাবিনাইপেরুর আমাজান অঞ্চলে একদল আদিবাসী সম্প্রদায়ের স্থানীয় ভাষায় বাইবেল অনুবাদের কাজ করে যাচ্ছে। ইথিওপিয়ার স্থানীয় কয়েকটি চার্চ, দেশটির আঞ্চলিক ভাষায় বাইবেল-এর অনুবাদ প্রকল্পের সাথে যুক্ত এবং তারা মিশনারিদের এশিয়া এবং অফ্রিকার অন্য অংশে পাঠাচ্ছে।

প্রয়োজনে সাড়া প্রদান করা

কার্নিশ ম্যান ইন আফ্রিকা নামে ব্লগ করা ডেভিড রবার্ট গত বছর এই কারণে আনন্দিত হয়েছিলেন যে, গত বছর তিনি এক বাইবেল অনুবাদ প্রকল্পে সাহায্য করেছিল। এটি টোগো, বেনিন এবং ঘানার লামা নামক ভাষায় বাইবেলের সৃষ্টিতত্ত্বের (বুক অফ জেনেসিস) অনুবাদ করেছিলেন।

আমি গত শনিবার দিনটিকে বাইবেলের বুক অফ জেনেসিস-এর জন্য (সৃষ্টিতত্ত্ব) উৎসর্গ করতে পারিনি, কিন্তু আমি পরের সারাটা দিন সেই বইটি পড়ে কাটালাম, যা আমার প্রতিবেশী নিয়ে এসেছিল। এই সপ্তাহের পরবর্তী সময়ে, আমি সাইকেলে করে আমার গ্রাম থেকে কানটেতে গেলাম। এটি ছিল ১২ মাইলের এক ভ্রমণ। এই জন্য সেখানে গেলাম, যাতে আমি নিজের জন্য একটা বই কিনতে পারি। আমি এই বইটির প্রতি বেশ মুগ্ধ ছিলাম, যদিও ফরাসী ভাষায় পাঠ করা আমার জন্য খানিকটা কঠিন, কিন্তু আমি সহজেই লামা ভাষায় তা পড়তে পারি। এমনকি, যদি আমি আজকে মারা যাই, তারপরেও আমি বলতে পারব, আমি লামা ভাষায় অনুবাদকৃত প্রথম ওল্ড টেস্টামেন্ট বইটি পাঠ করতে সক্ষম হয়েছি। এর জন্য আমি স্রষ্টার কাছে কৃতজ্ঞ।

ডেভিড রিঙ্গার ক্যামেরুনের বামবালাং গ্রামের যাজক নোভেথান শানাউর এক মন্তব্য উদ্ধৃত করেছে, যেখানে চিরাম্বো নামের একটি ভাষায় কথা বলা হয়:

“এই গ্রামের লোকেরা তখনই জানবে এবং বিশ্বাস করবে খ্রিষ্টান ধর্ম তাদের নিজস্ব ধর্ম, যখন তারা নিজের ভাষায় তা বুঝতে পারবে। অতীতে- এবং এখনো আমি মনে করি- অনেকে মনে করে খ্রিষ্টান ধর্ম কেবল সাদা মানুষদের ধর্ম। আমি মনে করি এর কারণ হতে পারে, তাদের নিজের ভাষায় কোন বাইবেল নেই। আমি মনে করি সত্যিকার অর্থে, এটা তাদের নিজস্ব জিনিস, তাহলে কেন তা তাদের নিজেদের ভাষায় ছাপা হবে না? কেন ঈশ্বর সবসময় তাদের নিজেদের ভাষায় কথা বলে না? কাজেই আমি মনে করি, নিজেদের ভাষায় বাইবেল থাকলে সেটি তাদের মনে এই অনুভূতি প্রদান করবে যে, খ্রিষ্টান ধর্ম তাদের নিজস্ব ধর্ম।”

সীমাবদ্ধতা

তবে, বাইবেলের অনুবাদ মোটেও সহজ কাজ নয়। সম্প্রতি, বেটার বাইবেল ব্লগে ডেভিড ফ্রাঙ্ক আফ্রিকার একটি দেশে তার বাইবেল অনুবাদের কাজ দেখার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেছেন (তিনি এই দেশটির নাম উল্লেখ করেননি):

ভৌগলিক এবং সাংস্কৃতিকভাবে প্রেক্ষাপটে যেমনটা আশা করা হয় […], অনুবাদ করার ক্ষেত্রে কিছুটা সীমাবদ্ধতা রয়ে যায়, বিশেষ করে যখন ভৌগোলিকভাবে কিছু জলজ উদ্ভিদ এবং প্রাণীর কথা উল্লেখ করার বিষয় চলে আসে। যদিও এই সম্প্রদায়ের কাছে ভেড়া এবং গরু রয়েছে, তবে সেখানে গাধা বা উট নেই, এবং এই প্রাণীগুলোকে পরিচিত করতে পারে এমন কোন শব্দ সেই ভাষায় নেই। এটা আমাদের লুক লিখিত সুসমাচার-এর এক অংশের কাছে নিয়ে যায়। এই ভাষায় তা অনুবাদ করা হয়েছে এ ভাবে “সেখানে একটা সুচের ভেতর দিয়ে একজন ধনী লোকের চেয়ে, একটা জলহস্তীর পার হয়ে যাওয়া সহজ, সেখানে তাকে গ্রহণ করতে হবে যে ঈশ্বর তার উপরে এক রাজা” এটা লুক লিখিত ১৮.২৫ অনুচ্ছেদের একটি অংশের ইংরেজী অনুবাদ থেকে করা সেই ভাষায় অনুবাদ। বেশ কৌতুহলজনক এক অনুবাদ। এই ভাবে অনুবাদ করা কি বৈধ। আপনি কি উৎসাহ প্রদান করেন যে অন্য ভাষায় অনুবাদ করার ক্ষেত্রে, মূল যে প্রাণী উটের কথা উল্লেখ রয়েছে, তার বদলে অন্য আরেকটি প্রাণীর কথা বলা যায়।? এটা বলা আমার জন্য কঠিন যে, অনুবাদ এখানে সঠিক এবং আইনসিদ্ধ নয়। তবে এটি এমন এক ধারা যা আমি পছন্দ করি, সত্যিকার অর্থে। এখন নিশ্চিতভাবে, যদি আপনি গ্রীক শব্দ κάμηλος ( উট) এর সাথে মিল রেখে কোন শব্দ অনুবাদ করতে চান, তাহলে তাহলে জলহস্তি খুব ভালো একটা মিল নয়, কিন্তু আপনি যদি আপনার দৃষ্টিভঙ্গি খানিকটা বিস্তৃত করেন, এবং কেবল শব্দের দিকে নয়, তার অর্থের দিকে নজর দেন, তাহলে এই বিশেষ প্রেক্ষাপটে, তাহলে এক নির্দিষ্ট শব্দের অর্থ হিসেবে জলহস্তি যৌক্তিকভাবে গ্রীক শব্দ κάμηλος (উটের)-এর একটা গ্রহণযোগ্য অনুবাদ।

ফিলিপ হিউয়ার একদল অনুবাদকের সাথে কাজ করছেন। তারা ঘানার কাসেম নামক ভাষার জন্য বাইবেল অনুবাদ করেছ

জেরেমিয়ায় ৪৮.১৭,-এ অনুচ্ছেদে লেখা রয়েছে, আমাদের রয়েছে এক বিস্ময় :
“শক্তিশালী রাজদণ্ড কতটা ভঙ্গুর, গৌরবের প্রতীক এই দণ্ডটি (কতটা ভঙ্গুর) (নতুন আন্তর্জাতিক সংস্করণ)
কি ভাবে শক্তিশালী রাজদণ্ড ভেঙ্গে পড়ে আছে, গৌরবের প্রতীক দণ্ডটি!” (পরিমার্জিত নতুন আদর্শ সংস্করণ)
[…] অবশ্যই বলা যায়, কাসেম নামক ভাষায় রাজদণ্ড শব্দটির সরাসরি অনুবাদ করা সম্ভব নয়, কিন্তু এই এলাকায় গোত্রপ্রধানের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নেবার সময় হাতে একটি লাঠি নিয়ে অংশ নিয়ে থাকেন, যা তার আনুষ্ঠানিক পরিচয়ের প্রতীক। এবার দ্বিতীয় লাইনের গৌরবজনক দণ্ডের বিষয়ে আসা যাক, যা অনেকটা রাজদণ্ডের মতই এক অর্থ তৈরি করে এবং এখানে ‘রাজদণ্ড’ এবং ‘কর্তৃত্বের নিদর্শন সূচক দণ্ড” দুটোই ক্ষমতা এবং শাসনের প্রতীক। এবং বাইবেলের কিছু ইংরেজী সংস্করণ, এদের ভাবানুবাদের বদলে প্রতীকি অর্থের অনুবাদ করেছে।
“ ক্ষমতাশালী শাসন ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে; এর গৌরব আর ক্ষমতার কিছুই আর অবশিষ্ট নেই”। (গুড নিউজ বাইবেল)
কাসেম নামক ভাষার ক্ষেত্রে হিব্রু ভাষায় লেখা এই দুই লাইনের কবিতার ভাব বজায় রাখার জন্য, এবং তার যে প্রতীকি অর্থ সেটিকে সঠিক রাখার জন্য আমরা এখন এর অর্থ করেছি
“দেখ (কি ভাবে) এক দলপতির চলার লাঠি এখন ভেঙ্গে পড়ে আছে! মোয়াবের আর কোন ক্ষমতা নেই!”

নীচের ভিডিওটিতে, আমরা বাবাকানি ভাষায় বাইবেলের অনুবাদ কর্ম দেখেতে পাচ্ছি। (এটি ক্যামেরুনের একটি ভাষা)। এই ভাষায় বাইবেল অনুবাদ করার ক্ষেত্রে এডাপ্ট ইট নামক সফ্টওয়ার ব্যবহার করা হচ্ছে।

শিক্ষার এক প্রক্রিয়া

কোয়ুইয়া ক্রনিকলে, এডি আর্থার (ওয়াইক্লিফ বাইবেল ট্রান্সলেশন-এর পরিচালক) একটি অনুবাদ কর্মের মাধ্যমে কি অর্জন করা যায় তা নিয়ে ভাবছেন:

এটা একটা মৌলিক সত্য অনেক লেখক উল্লেখ করেছেন যে, সুসমাচার বা গসপেলকে ভিন্ন এক সংস্কৃতিতে রূপান্তর করার ক্ষেত্রে যে ব্যক্তিটির জন্য তা করা হয়, তার প্রেক্ষাপটে তা পরিবর্তন অপরিহার্য। এটা অনুবাদকের জন্য বিশেষভাবে সত্য। ঈশ্বরের সত্যের প্রকাশ করার ক্ষেত্রে ভিন্ন কোন ভাষায় যে জটিলতা এবং সংস্কৃতিক অপরিহার্যতা, তা অনুবাদক-কে এক নতুন অন্তর্দৃষ্টি খুলে দেয় এবং এই বিষয়টি প্রকৃতি এবং স্রষ্টার চরিত্রকে বুঝতে সাহায্য করে। […] এই একটি উদাহরণ আমাকে কোউইয়া সংস্কৃতির ভিন্ন বাস্তবতাকে বোঝাতে চেষ্টা করে (আইভরি কোস্টের এক সংস্কৃতি)। কোউইয়া জনগণ মুক্তিকে প্রাথমিকভাবে এক আধ্যাত্মিক ক্ষমতা হিসেবে দেখে; এক ধরনের রূপান্তর, শয়তানের সাম্রাজ্য থেকে ঈশ্বরের সাম্রাজ্যে প্রবেশের বিষয় হিসেবে দেখে। ক্ষতিপূরণ সম্বন্ধে তাদের ধারণার বিষয়টি তাদের পেনাল সাবস্টিটিউশন (পাপের দায় আরেকজনের গ্রহণ করা) বা বিকল্প কাউকে শান্তি-প্রদান করতে অস্বীকার করে না, কিন্তু তা একই সাথে তা গভীরতার এবং উদারতার বোধ তৈরি করে, যা অনেক পশ্চিমা দেশে অনুপস্থিত।

অনুবাদ কি ধ্বংসাত্মক?

মালির ডোগন ভাষায় বাইবেলের অনুবাদ করা হচ্ছে, সেই বিষয়ে এই প্রবন্ধের ব্যাপারে সাড়া দিতে গিয়ে, অন্য আরেকটি পোস্টে এডি আর্থার খ্রিষ্টান মিশনারিদের স্থানীয় সংস্কৃতি নিয়ে কাজ করার প্রচেষ্টার বিষয় নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। যেখানে বলা হচ্ছে, সমালোচকেরা বলছেন যে, আদিবাসী সমাজে খ্রিষ্টান ধর্মে প্রবেশের সাথে সাথ তাদের সংস্কৃতি এবং ভাষা পরিবর্তিত হয়ে যাচ্ছে-অন্যদিকে যারা বাইবেল অনুবাদ করছে, তারা যুক্তি দিচ্ছেন যে তারা আদিবাসী সম্প্রদায়কে শিক্ষিত করার মধ্যে দিয়ে, স্থানীয় সংস্কৃতি সংরক্ষণে সাহায্য করছেন। এডি জিজ্ঞেস প্রশ্ন করেছেন, ‘আসলেই কি বাইবেলের অনুবাদ কোন সংস্কৃতিকে পরিবর্তন বা সংরক্ষণ করে?

যখন আমরা সুসমাচার এবং সংস্কৃতি নিয়ে ভাবব তখন আমাদের তিনটি বিষয় নিয়ে ভাবতে হবে। প্রথমত, সুসমাচার কোন বিশেষ সংস্কৃতির অংশ নয়। আপনি হয়ত ব্রিটিশ এক খ্রিষ্টান হতে পারেন এবং যুক্তরাজ্যে বাস করতে পারেন অথবা আপনি একজন ডোগান খ্রিষ্টান হতে পারেন এবং সেই সংস্কৃতির মাঝে বাস করতে পারেন . […]। দ্বিতীয়ত, যখন সুসমাচার বা সুসমাচার কোন সংস্কৃতির সংস্পর্শে আসে, তখন তাকে বদলে ফেলতে পারে, কোন সংস্কৃতি নিখুঁত নয় এবং সুসমাচার, সেই সমস্ত সংস্কৃতিক জটিলতার মুখোমুখি হতে পারে, যা স্রষ্টার চাওয়া অনুসারে সাজানো হয়নি; যা কেবল পশ্চিমা সংস্কৃতির একচেটিয়া অধিকার হিসেবে আসেনি, কিংবা ডোগানদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত নয়। […] । তৃতীয়ত, সংস্কৃতি কোন স্থির বিষয় নয়, কোন না কোন ভাবে, সকল সংস্কৃতি কোন না কোন সময়, পরিবর্তিত হয়েছে। তবে এ ব্যাপারে একটি অতি বিভ্রান্তিকর ধারণা রয়েছে যে, কিছু সংস্কৃতি আদিম এবং সেগুলোর কোন পরিবর্তন ঘটেনি এবং সংস্কৃতির পরিবর্তন ঘটানোর ক্ষেত্রে খ্রিষ্টানরা শঙ্কিত বোধ করে। কিন্তু এমনকি বিশ্বে যে সংস্কৃতি অন্য সবকিছু থেকে বিচ্ছিন্ন সেটিও সময়ে বিবর্তিত হয় এবং ভিন্ন সংস্কৃতি নিজেদের তুলে ধরার জন্য দ্রুত নিজেদের পরিবর্তন ঘটাতে থাকে।
সকলেই বলছে, এটা সত্য যে বাইবেল এবং তার সাহিত্যকর্মের অনুবাদ অসাধারণ হাতিয়ার হতে পারে, যা সংস্কৃতির উপাদান সংরক্ষণের সাহায্য করতে পারে।

অনুবাদের চেয়ে বেশি

ডেভিড কার লিখেছেন: কিছু কিছু বাইবেল অনুবাদক সংস্কৃতির উন্নয়নে উৎসাহ প্রদান করে থাকে।

“স্বদেশী সাহিত্য উন্নয়ন” আসলে কি? এটা আসলে “সাহিত্যকে” “স্বদেশের” প্রেক্ষাপটে উন্নয়ন করা, যে আঞ্চলিক বা নিজ ভাষায় করা হয়। এটা আসলে কোন উপাদানকে অন্য সংস্কৃতির প্রেক্ষাপটে অনুবাদ করার বিপরীত। এর মধ্যে বাইবেলও অন্তর্ভূক্ত। বাইবেলের অনুবাদ ভালো কাজ। এ বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই। কিন্তু আমি লেখক, সম্পাদ এবং শিক্ষকদের প্রতি আগ্রহী, যারা সমৃদ্ধশালী এক স্বদেশী কাজ হিসেবে একে সম্ভব করে তুলবে।

কাদের জন্য অনুবাদ ?

অনুবাদের ক্ষেত্রে একটি প্রশ্ন সকল অনুবাদককে অবশ্যই বিবেচনায় রাখতে হবে, তা হচ্ছে তাদের অনুবাদের পাঠক করা। এখানে বিষয়টি গুরত্বপূর্ণ, অনুবাদকেরা কি চার্চের জন্য অনুবাদ করছে, নাকি তারা সেই সমস্ত লোকদের জন্য অনুবাদ করছে, যারা খ্রিষ্ট ধর্ম সম্বন্ধে এখনো ততটা পরিচিত নয়? ইউনাইটেড বাইবেল সোসাইটি কেবল চার্চ গ্রুপের জন্য অনুবাদের উপর মনোযোগ প্রদান করেন, যেখানে ওয়াইক্লিফ বাইবেল ট্রান্সলেটর মিশনারিদের জন্য অনুবাদ করার উপর মনোযোগ প্রদান করে। এডি আর্থার বিষয়টিকে বিবেচনা করছে:

খ্রিষ্ট ধর্মের বিশ্বাস, বিশাল এক নিশ্চয়তার বিষয়ে কিছুই জানে না- যা বৈচিত্র্যময় এবং বিভিন্ন আনন্দদায়ক অনুভূতি প্রদান করতে শুরু করে এবং তা বহুমুখী হতে শুরু করে, যখন এই বিশ্বাস সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে। এই বৈচিত্র্যময়তা ছড়িয়ে পড়ার মধ্যে যে বিষয়টি ঘটে, তা হচ্ছে জনতা (তা সে চার্চ হোক বা আবিস্কৃত জনতার গ্রুপ হোক) যারা সুসমাচারকে পরিষ্কারভাবে বুঝতে পারে, কারণ তা তাদের নিজস্ব ভাষায় প্রকাশ করা হয়েছে […], যেখানে সম্পদ (শব্দ ভান্ডার) সীমিত। সকল অনুবাদক সংগঠনের বেছে নিতে হবে যে, কোন কোন সম্প্রদায়কে তারা সেবা প্রদান করতে পারবে, তা কোন প্রতিষ্ঠিত চার্চের সাথে হোক কিংবা অনাবিষ্কৃত কোন সম্প্রদায়ের মধ্যে হোক। বাইবেলের অনুবাদ হচ্ছে ঈশ্বরের সাথে যোগ দেওয়া, বিভিন্ন ভাষার- বিভিন্ন সংস্কৃতির লোকদের স্রষ্টার পথে আনা এবং তার উপাসনার আহ্বান জানানোর যাত্রা এবং এর পরবর্তী কাজের জন্য আমরা বাইবেলের অনুবাদ করি হয় কারণ এ রকম ঈশ্বরের জন্য আমরা কাজ করি

ছবি ডেভিড রিঙ্গারেরক্রিয়েটিভ কমন্স এট্রিউবিউশন-ননকর্মাশিয়াল-ননডিরাইভস ২.৫ জেনেরিক লাইসেন্সের অধীনে পুনরায় তা ব্যবহার করা হয়েছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .