বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

সৌদি আরব: টুইটারে মানবাধিকার কর্মীকে চুপ থাকতে বলা হয়েছে

সৌদ আরবের মানবাধিকার কর্মী যারা তাদের বক্তব্য উপস্থাপনের জন্য টু্‌ইটারের মত মাইক্রো ব্লগিং সাইট ব্যবহার করছে, তাদের বলা হচ্ছে, তারা যেন তাদের মুখ বন্ধ রাখে। ড: মোহাম্মদ আবদুলকারিমের গ্রেফতারের ঘটনার পর টুইটারের #ফ্রিড:আবদুলকারিম নামক হ্যাশট্যাগ, টুইটারের এক ধারায় পরিণত হয়েছে, যে হ্যাশট্যাগের মাধ্যমে তাকে মুক্ত করার আহ্বান জানানো হয়েছে। সৌদি রাজ পরিবারের উপর রাজনৈতিক সংস্কার প্রভাবের উপর তার এক প্রবন্ধ প্রকাশিত হবার পর আবদুলকারিম গ্রেফতার হন। স্বাভাবিক ভাবে এই নিয়ে মানবাধিকার কর্মী, সরকারী কর্মকর্তা এবং নেট নাগরিকদের মধ্যে উত্তেজনাপূর্ণ বাক্য বিনিময় হচ্ছে।

এই ঘটনা নিয়ে সবচেয়ে উত্তেজনাপূর্ণ টুইট বার্তা বিনিময় ঘটেছে সৌদি উপদেষ্টা (শুরা) পরিষদের সদস্য (মূলত বাদশাহকে সাহায্য করার জন্য নিয়োগ প্রাপ্ত ব্যক্তি, তিনি সৌদি সংসদের সদস্য বটে) আবদুলরহমান আলেনাদ এবং ড: আব্দুলকারিম-এর আইনজীবী ওয়ালেদ আবদুলখায়ের-এর মধ্যে।

এই বার্তা বিনিময় শুরু হয় তখন, যখন আলেনাদ অভিযোগ করেন যে ড: আবদুলকারিম-এ রকম এক প্রবন্ধ প্রকাশ করে দায়িত্বহীনতার পরিচয় প্রদান করেছে। স সময় আবদুলখায়ের দাবি করেন যে উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য হিসেবে তার এই রকম উগ্র মন্তব্য করার জন্য ক্ষমা চাওয়া উচিত। কিন্তু আলেনাদ তা করতে অস্বীকার করেন এবং বেশ আক্রমণাত্মক ভাষায় আবুলখায়েরকে চুপ থাকতে বলেন। তিনি আক্ষরিক অর্থে আবুলখায়ের খড় বা কোল টবিন খেতে বলেন (যার প্রকৃত অর্থ চুপ থাক), যা শীঘ্রই সৌদি টুইটারস্ফেয়ারে ছড়িয়ে পড়ে। এই ঘটনা অনেক ক্ষুব্ধ এবং ব্যঙ্গাত্মক টুইটের জন্ম দেয় এবং এরপর #কোলটাবিন নামক হ্যাশট্যাগ তৈরি হয়।

পেছনের ঘটনা

ওয়ালেদ আবুলখায়ের মানবাধিকার রক্ষাকারী ব্যক্তিদের পক্ষে আইনী লড়াইয়ের জন্য বিখ্যাত। তিনি অনেক মানবাধিকার কর্মীর পক্ষ হয়ে আদালতে লড়েছেন, এর মধ্যে রয়েছেন সামার বাদোয়াইস-এর মামলা। অন্যদিকে টুইটার থেকে প্রাপ্ত জীবনী অনুসারে আবদুলরাহমান আলেনাদ গণ যোগাযোগ বিভাগের অধ্যাপক আর একই সাথে সৌদি উপদেষ্টা পরিষদ এবং সৌদ আরবের জাতীয় মানবাধিকার সংস্থার সদস্য।

সত্যি?!

ব্যঙ্গাত্মক থেকে ক্ষুব্ধ মন্তব্যের মধ্যে দিয়ে টুইটারে এই বিষয়ের উপর নানা প্রতিক্রিয়া প্রকাশ হতে থাকে।

আবদুলরাহমান আলসাউয়িদ নামক টুইটারকারী আলেনাদকে সঠিক ভাবে সমালোচনা করার শিক্ষা প্রদান করার চেষ্টা করছেন:

@aalenad النقد الهادف للاصلاح يا دكتور لا يعيش مع التعالي وسحق الاراء المخالفة وعدم العدل و الهبوط بلغة الحديث و امتطاء ظهرالوطنية #Koltebin
কার্যকর সমালোচনা কেবল পদমর্যাদায় উপরে থাকা, কারো কণ্ঠস্বর দমিয়ে রাখা, অন্যায়, তুচ্ছ ভাষা এবং স্বদেশপ্রেমের দাবীর মাধ্যমে হয় না।

আবদুলআজিজ আলনুয়াইম নামক টুইটারকারী আলেনাদকে পিছু হঠে যাবার উপদেশ প্রদান করেছেন:

@aalenad يارجل اعتذر عما بدر منك تجاه الجميع فالاعتذار من شيم الكبار اما الصغار هم فقط من يعجزون عن الاعتذار #Koltebin #FreeDrAlabdulkarim
আপনি যা বলেছেন তার জন্য ক্ষমা চান। ক্ষমা একটা মহৎ গুণ! যারা অনেক নীচু মনের অধিকারী, তারাই কেবল ক্ষমা চাইতে পারে না।

এবং আলাথুব আবদুলআজিজ আলেনাদকে তার বৈশিষ্ট্যপূর্ণ ভাষা ব্যবহারের জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন:

#Koltebin @aalenad المواطن السعودي متعود على أكل التبن .. بس لما تكون من عضو بمجلس الشورى لها طعم خاص .. شكراً لمعاليكم ..
সৌদি নাগরিকরা শাপ-শাপান্তর মত গালি শুনে অভ্যস্ত। কিন্তু যখন সর্বোচ্চ পরিষদের একজন সদস্য এই ভাবে শাপ দেয়, তখন তা এক আলাদা রূপ লাভ করে। হে রাজাধিরাজ! আপনাকে ধন্যবাদ।

আহমেদ আল ওমরান বা সৌদি জিনস, এই ঘটনায় তার ব্লগে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন:

আল-এনাদের শব্দ চয়নে আমি মুর্হূতের মধ্যে থমকে গিয়েছিলাম এবং যদিও তা ছিল মুখ ফসকে বের হয়ে যাওয়া বাক্য মাত্র।

রিন টুইটারে মন্তব্য করেছে, কি ভাবে সৌদিরা এই হ্যাশট্যাগের পেছনের মূল কারণ তা ভুলে গেছে:

মজার ব্যাপার হচ্ছে #কোলটেবিন নামক হ্যাশট্যাগ, #ফ্রিআবদুলকারিমের চেয়ে বেশি লোক দেখছে..জনগণ অন্য বিষয়ে মনোযোগ দিতে ভুলেনি এবং তারা মূল ঘটনা ভুলে গেছে।

মিশাল আলখুলাইয়া ব্যাখ্যা করেছে যে এই বাগধারার অর্থ কি:

খড় খাও=কোল টেবিন :P, আপনাদের এতে আদৌও মাথা ঘামানোর কিছু নেই :D#কোলটেবিন

ওমার আল হাজ্জাজ ব্যাখ্যা করছে কেন এই অভিশাপ আলাদা:

#koltebin عندما يكون التبن مقدم من شخصية اعتبارية فلا شك انه تبنا معتبر!!!
যখন এই অভিশাপ এ রকম বিশেষ কোন পদবিধারী ব্যক্তির কাছ থেকে আসে, তাহলে তা সর্বোচ্চ মানের এক অভিশাপ!

তার ব্লগে, ফায়েদ আলেলাউই মন্তব্য করেছে:

الأدهى والأمر أن العناد عضو جمعية حقوق الإنسان!!
أردناه يحمي حقوقنا فأكلنا تبنا

لكن لاتلوموه فهو ليس منتخب فليقل مايشاء!

এই অভিশাপের চেয়েও যেটি খারাপ, তা হচ্ছে আলেনাদ মানবাধিকার পরিষদের একজন সদস্য! আমরা চাই যে তিনি আমাদের অধিকার রক্ষ করুন, আর তার বদলে তিনি আমাদের অভিশাপ দিচ্ছেন!

তাকে দোষ দেয়া উচিত নয়, সে নির্বাচিত পরিষদ নয়, সে যা বলতে চায়, তাকে তাই বলতে দিন!

সামওযান ব্লগের হাদি ফুগাইহি প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ এক পোস্ট লিখেছেন, যার শিরোনাম : “প্রিয় সৌদি নাগরিকগণ, চুপ করে থাক!” [আরবী ভাষায়]।

এরপর কি?

আবদুলআজিজ কাসিমকে উদ্দেশ্য করে আবুল খায়ের একটি লেখা লিখেছেন এবং এটি গুগল গ্রুপে প্রকাশ করেছেন, যেখানে তিনি তার দেশ সম্বন্ধে হতাশা ব্যক্ত করেছেন:

كم هو مجتمعنا قاسي .. كم هو مؤلم يا أبا أسامة ..

وإلى ذلك الحين سأتحمل من الدكتور العناد أمره لي بأن ( آكل تبن ) ومن التميمي
وصفه إياي بأني غوغائي ومن القاضي الرفيع تهديده بالانتقام .. ومن المسؤول
تحذيره إياي من دخولي السجن..

ومن والدتي الرؤوم الوجلة إلحاحها علي مراراً بأن لا أفجعها يوماً بخبر مسيء عني ..

ومن المجتمع الذي لا يرحم ينتظر متى ينهش عرض المدافع عن المظلومين فيه ..

আমার প্রিয় বন্ধু, সৌদি নাগরিক হওয়া কত কঠিন এক বিষয়?!
যতক্ষণ না সত্য প্রকাশ হয়, আমি আলেনদার অভিশাপকে মাথায় নেব এবং সকল সরকারি সতর্কতা এবং হুমকিকে।
আমি আমার মায়ের বার বার দিয়ে যাওয়া উষ্ণ হৃদয়ের ভালোবাসাকে গ্রহণ করব, যিনি আমাকে এই কারণে তা প্রদান করেন, যে আমি তাকে আমার সম্বন্ধে কোন খারাপ সংবাদ প্রদান করে একদিনও তাকে বেদনার্ত করিনি।
সবশেষে, আমি এমন এক সম্প্রদায়ের কাছ থেকে সকল কিছু গ্রহণ করব, যারা সেই সমস্ত লোকদেরকে ক্ষমা করে না, যারা নির্যাতিত মানুষকে রক্ষা করার চেষ্টা করে।

অন্যদিকে পরিষদের সদস্য তার অবস্থানকে আরো দৃঢ় করেছে:

كل من يتطاول على الدولة والأسرة المالكة ويسيء للوطن يستحق ان يأكل تبن… هذا رأيي وأنا حر في التعبير عنه #FreeDrAlabdulkarim #Koltebin
যে ব্যক্তি দেশের নিয়ম ও আইন এবং রাজ পরিবারে সম্বন্ধে কথা বলবে, সেই অভিশপ্ত হবার যোগ্য। এটাই আমার মত এবং তা প্রকাশ করার স্বাধীনতা আমার রয়েছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .