বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

মালয়েশিয়া: উইকিলিকসের নথিতে উল্লেখ রয়েছে দুটি প্রতিষ্ঠানের নাম

সম্প্রতি উইকিলিকস কর্তৃক যুক্তরাষ্ট্রের “কূটনৈতিক নথি” ফাঁস হয়ে যাওয়ার ঘটনায় দেখা যাচ্ছে যে, মালয়েশিয়ার দুটি প্রতিষ্ঠান ইরান নিয়ন্ত্রিত এক নেটওয়ার্কের সাথে যুক্ত, যারা চীন থেকে ক্ষেপনাস্ত্র কিনেছে। কিন্তু তা দেশটির নাগরিকদের মাঝে তেমন একটা গুঞ্জন সৃষ্টি করতে পারেনি, যারা দেশের ঘরোয়া বিষয়ে বেশি মনোযোগ প্রদান করেছে।

তবে ব্লগার মেলভিন মাহ উইকিলিকসের যে সব নথিতে মালয়েশিয়া সম্বন্ধে বিবরণ রয়েছে তার সারসংক্ষেপ সরবরাহ করছে

ডিসেম্বর, ২০০৯-এ, আমরা জানিয়েছিলাম মালয়েশিয়া ভিত্তিক ইলেকট্রনিক্স কম্পোনেন্ট লিমিটেড (ইসিএল) নামক কোম্পানিটি চীনের ভিবটেল ইন্ডাস্ট্রিয়াল কো. ইন্ক নামক প্রতিষ্ঠানের কাছ থকে টিআরএস-৫০০ নামের জাইরোস্কোপ বা ঘূর্ণায়মান বস্তুর গতি ব্যাখ্যা করার যন্ত্র কেনার চেষ্টা করেছে।

এখন আমরা এ ব্যাপারে আপনাদের আরো কিছু তথ্য প্রদান করতে চাই যে, ইসিএল ইরান নিয়ন্ত্রিত অন্যতম কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের একটি নেটওয়ার্কের অংশ। এই সব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে ইরানের কোম্পানী শাহিন সেফিদ এস্টা এবং মালয়েশিয়া ভিত্তিক অন্যতম কোম্পানী স্কাইলাইফ ওয়ার্ল্ডওয়াইড এসডিএন.বিএইচডি নামক প্রতিষ্ঠান।

এই নেটওয়ার্ক ইরানের বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানের জন্য কিছু সংবেদনশীল পণ্য কিনেছে, এই সব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে শহিদ হেম্মাত শিল্প গ্রুপ (এসএইচআইজি), যারা ইরানের তরল বিস্ফোরক বহনকারী ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের উন্নয়ন ঘটিয়েছে এবং ভারী ধাতব শিল্প, কৌশলগত ক্ষেপনাস্ত্র উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে এমন এক অন্যতম কোম্পানী ইয়া মাহদি ইন্ডাস্ট্রিজ।

মূলধারার সব সংবাদ মাধ্যম এই বিষয়ে সংবাদ প্রকাশ করতে দিয়ে মূলতই সরকারকে সমর্থন করেছে। সর্বাধিক পঠিত দি স্টার সংবাদ প্রকাশ করেছে যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এই দুটি প্রতিষ্ঠনের উপর নজর রাখছে এবং তিনি সেগুলোকে জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি বলে মনে করছে না।

হিশামউদ্দিন একই সাথে বলছেন যে, উক্ত প্রতিষ্ঠান তার মন্ত্রণালয়কে পূর্ণ সহযোগিতা প্রদান করেছে এবং এই দুটি কোম্পানীর পরিচালকদের সাথে কথা বলা হয়েছে।

যদি আবিষ্কার হয় যে, তারা নিরাপত্তার জন্য হুমকি, তাহলে তারা আর এখানে থাকতে পারবে না।

তিনি এর সাথে যোগ করেছেন “সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, তারা আমাদের নজরদারির মধ্যে রয়েছে এবং আমরা সহজেই বলতে পারি যে তাদের সাথে সন্ত্রাসবাদী কর্মকাণ্ডের কোন সম্পর্ক নেই”।

টুইটারে, উইকিলিকস মালয়েশিয়ার অনুসন্ধানে এই ফলাফল এসেছে যে, মালয়েশিয়ান সরকার এই বিষয়ে সাড়া দিচ্ছে, টুইটারকারীরা সে সংবাদ সবাইকে জানাচ্ছে। এখানে যে সংবাদটি সবচেয়ে ছড়িয়ে পড়েছে তা হচ্ছে, মালয়েশিয়ান সরকার বলছে যে, এই দুটি প্রতিষ্ঠান নিরাপত্তার জন্য হুমকি নয়।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .