বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

বার্বাডোজ: একটি শেষ বিদায়

বার্বাডোজের নাগরিকেরা তাদের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ডেভিড থমসনকে শেষ বিদায় জানায় এ সপ্তাহে। এই অঞ্চলের অন্যতম কম বয়সী নেতা থমসন গত ২৩শে অক্টোবর পাকস্থলির ক্যান্সারে মারা যান। গত বুধবার একটি রাষ্ট্রীয় অন্তিম সংস্কারের ব্যাবস্থা করা হয় এবং ব্লগাররাও তার এবং তার কাজের স্মরণ করেছেন।

বার্বাডোজ ফ্রি প্রেস ব্লগ নিয়মিত ঘটনার বর্ণনা দিয়ে গেছে:

বেলা ১২:০৮ প্রেসিডেন্ট কেনেডি ড্রাইভ থেকে মিছিলটি ঈগল হলে সরে গেছে এবং সেখান থেকে সামনে আগাচ্ছে।

বেলা ১১:৪৩ জাতীয় সঙ্গীত হচ্ছে। অন্তেষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে এবং মৃতদেহ কেনসিংটন থেকে সেন্ট জন প্যারিশ চার্চে কবর দেবার জন্যে পর্যন্ত নিয়ে যাবার সময় লোকজন রাস্তার দুই পাশে দাড়িয়ে ছিল।

বেলা ১১:০৩ দাস এবং দাসের মালিকদের উত্তরসূরিরা জন নিউটনের লেখা অ্যমেজিং গ্রেস গানটি গাচ্ছে। নিউটন একদা একটি দাসদের জাহাজের নাবিক ছিলেন। পরবর্তীতে তিনি খ্রীষ্টান এবং অ্যাবলিশনিস্ট হয়েছেন। আমরা কে এবং আমরা কোথা থেকে এসেছি তার সত্যতা বার্বাডোজে কখনই দুরের কিছু নয়।

সকাল ৯ টা: কেনসিংটন ওভালের একদিকে ঘন কালো মেঘ এবং বৃষ্টি আর অন্যদিকে নিল আকাশ এবং সূর্য। এই দিনের একটি সঠিক বার্তা..

বাজান রিপোর্টার মৃতদেহ সহকারে মিছিলের কিছু ছবি তুলে দিয়েছে। এই ব্লগার দেখেছে যে যারা তাকে শ্রদ্ধা জানাতে এসেছে তাদের কেউ কেউ সকাল ৬:৩০ মিনিট থেকে ঈগল হল জাংশনে দাড়িয়ে ছিল এবং “কোন বৃষ্টিই জনগনকে থামাতে পারবে না বার্বাডোজের তরুণ এই নেতাকে বিদায় জানানো থেকে”।

বার্বাডোজ আন্ডারগ্রাউন্ড প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসাপত্র ছেপেছে। তার মতে অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার অনুষ্ঠান হৃদয়ঘণ ছিল এবং খুশি হয়েছে দেখে যে বেশ কিছু আঞ্চলিক নেতারা এই অনুষ্ঠানে এসেছিলেন:

কেনসিংটন ওভালে বিশেষ অতিথিরা এবং রাস্তার জনগণ একসাথে মিলে তাদের শেষ শ্রদ্ধা জানিয়েছে। যে সব দেশের প্রধান এতে অংশ নিয়েছেন তার মধ্যে রয়েছে বাহামার প্রধানমন্ত্রী হুবার্ট ইনগ্রাহাম, সেইন্ট কিটস এর প্রধানমন্ত্রী ডেনজিল ডগলাস, গ্রানাডার প্রধানমন্ত্রী টিলম্যান থমাস, অ্যান্টিগুয়ার প্রধানমন্ত্রী বাল্ডইইন স্পেন্সার, ত্রিনিদাদের প্রধানমন্ত্রী কমলা প্রসাদ বিসেসার এবং জামাইকার প্রধানমন্ত্রী ব্রুস গোল্ডিং।

আমার বার্বাডোজ ব্লগ এই অনুষ্ঠানকে “বার্বাডোজের একটি খারাপ দিন” বলে অভিহিত করেছেন। ওদিকে বিএফপি মনে করছেন: “প্রধানমন্ত্রী থমসনের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া যে কোন অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার মতই ছিল। তিনি সংক্ষেপে বলছেন:

এই পোস্টে আমি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি সেই সকল লোকের প্রতি যারা থমসনের অন্ত্যষ্টিক্রিয়ার পরিকল্পনা ও ব্যবস্থাপনার কাজ করেছে। তাদের কঠোর পরিশ্রম, বিষয়ের প্রতি পরিপূর্ণ মনোযোগ এবং কাজের প্রতি পূর্ণ প্রতিজ্ঞা আমাদের প্রধানমন্ত্রী এবং তাদের পরিবারকে সঠিকভাবে শেষ সম্মান দেয়া গেছে। তাদের কান্না এবং অশ্রু দ্বীপের সব বাজানকেই গর্ব এনে দিয়েছে।

এই পোস্টে ব্যবহৃত থাম্বনেইল “বার্বাডোজের পতাকা” কোরিক্যাম এর সৌজন্যে এবং ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্সের আওতায় প্রকাশিত।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .