বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

থাইল্যান্ড: বৌদ্ধ মন্দিরে পাওয়া দুই হাজার মৃত ভ্রূণ

যদি কোথা কোন মৃত ভ্রূণ আবিষ্কার হয়, তাহলে তা কঠোর নিন্দার সৃষ্টি করে, বিশেষ করে রক্ষণশীল সমাজ। কিন্তু যদি বৌদ্ধ উপাসনালয়ে ২,০০০ মৃত ভ্রূণ পাওয়া যায়, তাহলে তার যথাযথ প্রতিক্রিয়া কি হতে পারে?

থাইল্যান্ডের ওয়াট পাহি নাগরেন নামক বৌদ্ধ মন্দিরে ২০০০ অবৈধ পরিত্যক্ত ভ্রূণের সন্ধান পাওয়ার মত এক সংবাদের ঘটনায় দেশটির সকলে এখন তাদের মানসিক ধাক্কা কাটিয়ে উঠার চেষ্টা করছে। এটি দেশটির এই বিতর্ককে পুনরায় জাগিয়ে তুলেছে যে এ দেশের গর্ভপাত বিষয়ক আইনটিকে এখন আধুনিক করার সময় হয়ে এসেছে কি না।

বিশেষ প্রেক্ষাপট ছাড়া থাইল্যান্ডে গর্ভপাত অবৈধ। যদি কোন মেয়ে ধর্ষণের ফলে গর্ভবতী হয়ে পড়ে, যদি গর্ভ ধারণ প্রসূতির স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে প্রভাব সৃষ্টি করে অথবা যদি ভ্রূণের অবস্থা অস্বাভাবিক হয়, তাহলে থাইল্যান্ডে কেবল গর্ভপাতের অনুমতি প্রদান করা হয়। ধারণা করা হয়ে থাকে দেশটিতে প্রতি বছর ১,৫০,০০০-২০০,০০০ জন নারী প্রতি বেসরকারি ক্লিনিকগুলোতে অবৈধ গর্ভপাতের জন্য যায়।

দেশটির প্রধানমন্ত্রী বিশ্বাস করেন গর্ভপাতের জন্য যে আইন রয়েছে তাই যথেষ্ট। তিনি এখানে তরুণদের পুনরায় শিক্ষা প্রদান করার পরামর্শ দিচ্ছেন। টুইটার ব্যবহারকারী টুলসাথিট এই বিবৃতিতে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে।

টগিআব: আরটি @টুলসাথিট: সত্যিকার অর্থে বলতে গেলে অবৈধ গর্ভপাত বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সাড়া প্রদান আমাকে বিভ্রান্তিতে ফেলে দিয়েছে। আইন ঠিক আছে, কিন্তু সামাজিক মূল্যবোধ সঠিক অবস্থানে নেই, এবং অবৈধ ক্লিনিকের পরিমাণ এতে বাড়তে থাকবে।

মৃত ভ্রূণের ভীতিকর গল্প এক আইন নির্মাতাকে গর্ভপাত বৈধ করার প্রস্তাব করতে উৎসাহ প্রদান করছে। কিন্তু তার উদ্দেশ্য হচ্ছে দেশে “নিম্ন মানের” মানুষের পরিমাণ কমিয়ে আনা। বিষয়টি ব্যাংকক পণ্ডিতকে বিস্মিত করেছে।

যদিও থাইল্যান্ড বড় আকারে এবং সক্রিয় যৌন শিল্পের এক দেশ, তারপরেও যৌনতার বিষয়ে অনেক থাইবাসী রক্ষণশীল ধারণা পোষন করে এবং বিশেষ করে সক্রিয় বৌদ্ধ ধর্মপালনকারী গর্ভপাত আইনের উদারীকরণের বিপক্ষে।

এখন এই নীতির শেষ পরিণতি হয়ত অপরাধ হ্রাস করার জন্য প্রয়োগ করা হতে পারে, কিন্তু সমাজে অবাঞ্চিত সদস্যদের পরিমাণ কমিয়ে আনার জন্য এই ধরনের চিন্তাকে স্থাপন করা? বিপির এটাই প্রথম চিন্তা ছিল, আসলে সে কি নিয়ে চিন্তা করছে? কেন পৃথিবীতে একজন জনসম্মুখে বিবৃতি প্রদান করবে যে, গর্ভপাতের সুফল হচ্ছে “নিম্ন মানের” মানুষের সংখ্যা কমিয়ে আনা?

থাই ফিল্ম জার্নাল সন্দেহ করছে যে উপাসনালয়ে অন্য কারণে মৃত ভ্রূণগুলো জমা করা হয়েছিল।

কিন্তু আমি বিস্মিত, যদি ভ্রূণগুলো এখানে জমা করার অন্য অন্য কোন কারণ থাকে। থাইল্যান্ডের চলচ্চিত্র অতিপ্রাকৃত বিশ্বাসের এক চিত্র অঙ্কন করে, তাতে দেখা যায় ভ্রূণের অশুভ শক্তি থাকে।

গর্ভপাত নিয়ে নতুন করে শুরু হওয়া বিতর্ক নিয়ে ব্যাংককের টুইটারকারীদের কিছু প্রতিক্রিয়ার নমুনা।

ওমেনলার্নথাই:@থাই_টক, ওয়াট পাহি নাগরেন চোটানারম আরো ১,৫০০টি ভ্রূণ পাওয়া গেছে,… আমি সত্যি অসুস্থ বোধ করছি।
দিগ্রিগ্লো: যে গ্রিসলী ওয়াট পাহি নাগরেতে পাওয়া গেছে তা পরিষ্কারভাবে প্রদর্শন করছে যে, থাইল্যান্ডকে অবশ্যই তার গর্ভপাত আইনকে সংশোধন করতে হবে এবং নারীদের যথাযথ সেবা পাবার অধিকার অর্জনের সুবিধা প্রদান করতে হবে।
সিটিবিচ: দয়া করে ইতোমধ্যে পাওয়া গর্ভপাত সম্বন্ধে সংবাদ প্রদান বন্ধ করুন!! যতই আপনি আইন পাল্টান না কেন, এটা এখনো এখানে রয়েছে যাচ্ছে, বুঝেছ হে গর্দভের দল!!
রেসপন্সএপি:আরটি-@জুয়াউইয়ি: আরটি@টুলসাথিট: এ বিষয়ে এক জরিপ করা হয়েছে- জরিপে অংশ নেওয়া ৬৫.৬ শতাংশ লোক গর্ভপাতকে আইনগতভাবে বৈধ করার পক্ষে। ১২.৬ শতাংশ লোক এর বিপক্ষে। ৪৭ শতাংশ লোক বিশ্বাস করে যে গর্ভপাত ব্যক্তির নিজস্ব অধিকার।
ইসামারে: @ব্যাঙ্কক পণ্ডিত@ট্রি২৬ কিন্তু সেই দাবিটিকে গর্ভপাত বৈধ করার এক কারণ হিসেবে ব্যবহার করা উচিত নয়।
মোয়ি: @কাফিম কেবল একটা মন্তব্য করতে চাই যে যদি কোন বৌদ্ধ সন্ন্যাসী গর্ভপাতকে সমর্থন করে, তবে সে অবশ্যই একজন সাধারণ মানুষ হবে।
প্রাকোব: গর্ভপাতের চেয়ে ছেলেদের জন্য কনডম আর মেয়েদের খাওয়ার বড়ি গ্রহণ করা ভালো। তবে যৌন শিক্ষার বিস্তার ঘটানো প্রয়োজন।
সিননেইএক্সএক্স: হে ঈশ্বর!! থাইল্যান্ডে এসব কি ঘটছে? এক মাসে এত গর্ভপাত? ও সব মৃত শিশু, শান্তিতে ঘুমাও।
এনসিমিশনমম: আরটি@টুলসাথিট: পাই নেগরেন মন্দিরে প্রাপ্ত মৃত ভ্রূণের সংখ্যা এখন ২০০০-তে গিয়ে ঠেকেছে। থাইল্যান্ডে যে বিশাল পরিমাণ গর্ভপাত হয় তার সামান্য অংশ দেখা যাচ্ছে।
খলংব্যাংসু:@ফরেস্টমাট, গভীর বেদনা এবং শঙ্কার বিষয়। এই চিত্র বর্তমান গর্ভপাত নীতির ক্ষেত্রে জনতার ক্ষোভকে বাড়িয়ে তুলবে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .