বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

তাঞ্জানিয়া: নির্বাচনে দাঁড়ানো এবং কাঙ্গাকে সামাজিক মিডিয়ার সাথে একত্র করা

তাঞ্জানিয়াতে সাধারণ নির্বাচন হচ্ছে ৩০শে অক্টোবর ২০১০ তারিখে। আমাদের লেখক নাম্বিজা তুঙ্গারাজা তার “তাঞ্জানিয়ার ২০১০ সালের নির্বাচনে সামাজিক মিডিয়ার ব্যবহার” নামক পোস্টে উল্লেখ করেছেন যে সে দেশের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী আর সংসদীয় প্রার্থীরা ভোটারদের সাথে যোগাযোগের জন্য সামাজিক মিডিয়াকে ব্যবহার করছেন।

ড্যানিশ ব্লগার পারনিল ব্যারেন্দসেন তাঞ্জানিয়ার নির্বাচনী প্রচারণায় ঐতিহ্যবাহী বিষয় আর সামাজিক মিডিয়ার ব্যবহার নিয়ে লিখেছেন। তিনি কিগোমা উত্তরের সংসদীয় প্রার্থী জিট্টো কাবোয়েকে অনুসরণ করেছেন। তার পোস্টের নাম ‘নির্বাচনের জন্য দাঁড়ানো (কাঙ্গা আর সামাজিক মিডিয়াকে একত্র করা)'। কাঙ্গা হচ্ছে ছাপা সূতি কাপড়ের টুকরা যা পূর্ব আফ্রিকা ব্যাপী মহিলারা আর মাঝে মাঝে পুরুষরা পরে থাকেন।

তিনি লিখেছেন:

এই বাস্তবতা যে জিট্টো কাবোয়ে টুইটার, ব্লগ, ফ্লিকার আর ফেসবুকের মাধ্যমে প্রচারণা করছেন কিগোমা উত্তর থেকে, আর একই সময়ে নির্বাচন প্রচারণায় অংশগ্রহন করছেন ঐতিহ্যবাহী উপাদান দিয়ে- যেমন গোমা আর কাঙ্গা- এটি আফ্রিকা ২০১০ এর পরিষ্কার নিদর্শন।

এটা অদ্ভুত কোন ব্যাপার না যে জিট্টো তার প্রচারণার কৌশল হিসাবে সামাজিক মিডিয়া ব্যবহার করছেন। তিনি সংসদের সব থেকে কনিষ্ঠ সাংসদ। তিনি প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত অর্থনীতিবিদ আর পাবলিক বিনিয়োগের ব্যাপারে সংসদীয় স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি।

একজন নারী কাঙ্গা পড়ে আছে জিট্টো কাবোয়ের ছবি হাতে নিয়ে। ছবি পারনিল ব্যারেন্দসেন এর সৌজন্যে

পারনিল লক্ষ্য করেছেন যে জিট্টো কাবোয়ে দ্বারা কাঙ্গা আর সামাজিক মিডিয়ার ব্যবহার হচ্ছে ‘ঐতিহ্যবাহী আর আধুনিকতার মধ্যকার এক আফ্রিকা। সেই আফ্রিকা যা আমরা উত্তর থেকে ক্রমে বুঝতে পারছি যে ক্রমশ: পরিবর্তিত হচ্ছে।’

জিট্টো তার আকাউন্ট জিট্টোকাবোয়েতে নিয়মিত ইংরেজী আর সোয়াহিলিতে টুইট করেন, আর প্রচারণা কার্যের ভিডিওর লিঙ্ক পোস্ট করেন। সম্প্রতি গুজব শোনা যায় যে তিনি গাড়ীর দূর্ঘটনায় পরেছেন। তবে তিনি টুইটারে এটা নাকচ করেছেন:

আমি জীবন্ত আর ভালো আছি আর বর্তমানে কাহামাতে অবস্থান করছি। অনুগ্রহ করে এই খারাপ সংবাদ বিশ্বাস করবেন না যে আমি একটা দূর্ঘটনায় পরেছি।

১৩উ অক্টোবর, ২০১০ সালে তিনি রাজনৈতিক র‍্যালিতে পুলিশের উপস্থিতির ব্যাপারে অভিযোগ করেন:

আজকে মুসোমাতে যা দেখেছি, পুলিশ পুরোদস্তুর সশস্ত্র, তা ভীতিজনক। শান্তি যেন এই জাতির কাছে আসে।

একই দিনে তিনি ইউটিউবে প্রচারনার একটা ভিডিওর লিঙ্ক পোস্ট করেন:

Video Clips ya Ziara ya Kumnadi Vincent Josephat Nyerere -Jimbo La Musoma Mjini: http://wp.me/pRboX-dU

ভিনসেন্ট জোসেফাট নায়রেরে প্রচারণার ভিডিও ক্লিপ এটি – তিনি মুসোমা এলাকার

১৪ই অক্টোবর ২০১০ তারিখে তিনি লিখেছেন:

এখন ইসাকা শহরে। এই বন্দর বেশ অকর্মন্য, তরুণদের মধ্যে কর্মহীনতা আর আশাহতের সংখ্যা বেশী।

তার ব্লগ, জিট্টো না ডেমোক্রাসিয়া (জিট্টো আর গনতন্ত্র) তার নির্বাচনী এলাকার আর কিগোমা অঞ্চলের অন্যান্য এলাকার যেখানে তার দলের (চাদেমা) প্রার্থী আছে। তার ফ্লিকার অ্যাকাউন্টে অন্যান্য ছবি পোস্ট করা আছে। তার ইউটিউব অ্যাকাউন্টে ৬৯টি ভিডিও আছে। তাঞ্জানিয়ার রাজনীতিবিদরা কিভাবে সামাজিক মিডিয়া ব্যবহার করছেন নির্বাচনী প্রচারণায়, এই ব্যাপারে তুঙ্গারাজার পোস্ট পড়তে পারেন।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .