বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

মেক্সিকো: নাগরিক ভিডিও ও মাদক পাচার

মেক্সিকোর ব্লগাররা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের দৃশ্য প্রদর্শন করা নাগরিক ভিডিও (সিটিজেন ভিডিও) ও ছবি নিয়ে বিতর্কে লিপ্ত হয়েছে। এই সমস্ত ছবি যে সংঘাতময় চিত্র প্রদর্শন করে সে ক্ষেত্রে কেউ বলছে গণমাধ্যমে মাদক পাচার নিয়ে যে লড়াই, এটি তার এক ধরনের প্রতিরোধ, আবার অন্যদের কাছে এটি এটি কেবল ভয় এবং সন্ত্রাস ছড়ানোর অন্য আরেক মাধ্যম।


রাতের মেক্সিকো সিটি নগরী। ছবি এনেয়স ডে ট্রোয়ার, ক্রিয়েটিভ কমন্স এট্রিবিউশন লাইসেন্স এর মাধ্যমে তা ব্যবহার করা হয়েছে।

কিছু কিছু মেক্সিকোবাসীর মতে ভয়ঙ্কর সব অপরাধের সংবাদ প্রদানের ক্ষেত্রে প্রচার মাধ্যম তাদের কাজটি ঠিকভাবে করছে না। তারা ভয়ঙ্কর সব মাদক পাচারকারী ও গুণ্ডাদের কার্যক্রমের উপর মনোযোগ প্রদান করার বদলে সরকার ও রাষ্ট্রের সমালোচনার দিকে মনোযোগ প্রদান করছে। তাদের কাজ দেখে মনে হচ্ছে, যদি তারা গুণ্ডাদের সব কার্যক্রমের সংবাদ প্রদান করতে পারত।

কার্লোস রামিরেজ হার্নানদেজ লা পালাব্রা.কমে ব্লগ করেন। তিনি মনে করেন মারপিটের মত অপরাধ মূলক কার্যক্রমের সংবাদ প্রদান না করা, প্রচার মাধ্যমের জন্য বিশেষ কোন সুযোগ নয়। তিনি বলেন বিশেষ করে, এটি প্রকৃত অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের পরিমাণ কমিয়ে আনবে না, কেবল তার পরিমাণকে লুকিয়ে ফেলবে। তবে প্রচার মাধ্যমের ভূমিকা হওয়া উচিত নয় যে, সে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডকে গৌরবান্বিত করবে, তার বদলে তার কাজ হচ্ছে শুধু এই বিষয়ে প্রাপ্ত সংবাদ প্রদান করা, তবে তা করা উচিত সঠিক ভাবে:

Los medios, a su vez, han perdido el foco de la información. La mayor parte del contenido informativo de prensa, radio y televisión ha insistido en criticar severamente al gobierno y al Estado y no a denunciar la criminalidad del narcotráfico. Se ha llegado al punto de que algunos medios de comunicación parecen narcomantas de los capos y no representantes de la sociedad. No se trataría de elogiar por sí solo sino de convertir la información en un instrumento social de crítica a una realidad.

এদিকে প্রচার মাধ্যম তথ্যের উপর মনোযোগ প্রদান করার গুরুত্ব হারিয়ে ফেলেছে। সংবাদপত্র রেডিও এবং টিভিতে পাওয়া সংবাদের বড় অংশই সরকার ও রাষ্ট্রের সমালোচনায় মুখর। এই সব সংবাদ মাদক পাচারের মত অপরাধের পরিমাণ কমাচ্ছে না। এটা এমন এক জায়গায় এসে দাঁড়িয়েছে যে কিছু গণমাধ্যমের কর্মকাণ্ডে মনে হচ্ছে তারা মাদক সম্রাটদের বিলবোর্ড এবং সেগুলো সমাজের মুখপাত্র নয়। এটা কেবল প্রশংসা করার বিষয় নয়, কিন্তু তার বদলে এরা তথ্যকে সামাজিক যন্ত্রে রূপান্তরিত করছে যা বাস্তবতার সমালোচনা করছে।

তাহলে প্রচার মাধ্যম এখানে কি ধরনের ভূমিকা পালন করবে? গত মাসে এক মাদক পাচারকারী দল চারজন সাংবাদিক ও ক্যামেরাম্যানকে অপহরণ করে। এদের জন্য মুক্তিপণ চাওয়া হয়েছিল তিনটি নারকোটিক ভিডিও টিভি স্টেশনে প্রচারের দাবী জানিয়ে। ১৫ মিনিটের সম্পাদনা ছাড়াই প্রচার করা এই ভিডিও জনতার সামনে কর্তৃপক্ষ এবং বিরোধী মাদক পাচারকারীদের সম্পর্কের বিষয়টি উন্মোচন করে। যে দিন এই ভিডিও টিভিতে প্রচার করা হয় তার পরের দিনই তাদের মুক্তি প্রদান করা হয়।

এটা নতুন কোন উদ্বেগের বিষয় নয়, ২০০৭ সালে জর্জ জেপাডো প্যাটারসন নার্কো ভিডিওর ব্যাপারে প্রচার মাধ্যমের ভূমিকা নিয়ে লিখেছিল

Sin embargo, tampoco es sencillo para los medios de comunicación erradicar estos temas. Si bien es cierto que los noticieros de televisión se han convertido en un inventario de nota roja, no es tan fácil dejar de hacerlo. Entre otras cosas, porque es gravísimo lo que está pasando. Los periodistas haríamos un flaco favor a la comunidad si nos pusiéramos hablar de otras cosas, mientras el crimen organizado toma el control de Monterrey, el narcomenudeo se enseñorea de nuestros barrios y escuelas, y los tribunales y cuerpos policíacos terminan por ser quebrados totalmente por los carteles. Y justamente eso es lo que está sucediendo. En este momento se está librando una verdadera guerra en nuestras calles y en nuestras sierras. Una guerra que estamos perdiendo. Pero aún menos oportunidades tendremos de ganarla si ofrecemos sucedáneos a la opinión pública y construimos una operación “avestruz” distorsionada pero tranquilizante.

তবে, গণ মাধ্যমের পক্ষে এই সমস্ত বিষয় সমূহকে মুছে ফেলা সহজ নয়। যদিও এটা সত্যি যে টিভি সংবাদ ভয়াবহ অপরাধের দৈনন্দিন নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর তালিকায় পরিণত হয়েছে এবং এটিকে থামানো সহজ নয়। অন্য সব বিষয়ের মধ্যে এসব তুলে ধরা হচ্ছে কারণ যা ঘটছে তা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সাংবাদিকরা সম্প্রদায়ের প্রতি মনোযোগ প্রদান করবে, যদি আমরা অন্য সব বিষয়ের ব্যাপারে কথা বলতে শুরু করি তাহলে সংগঠিত অপরাধ অর্থনীতির উপর প্রভাব বিস্তার করে, মাদক পাচারকারী গোষ্ঠী আমাদের প্রতিবেশী এলাকা এবং স্কুলে ও আদালত ভবন এবং পুলিশ সংস্থায় ক্রমাগত ফাটল তৈরি করে যাচ্ছে। মাদক পাচারকারীরা এসব ব্যবস্থা পুরোপুরি ভেঙ্গে ফেলার চেষ্টা করছে এবং আসলে তা ভেঙ্গে পড়ছে। যেমনটা আমরা আমাদের রাস্তাঘাটে এবং পাহাড়ে পর্বতে এসব বিষয় নিয়ে আলোচনা করছি। আমরা বলছি যে সত্যিকারের এক যুদ্ধ শুরু হয়েছে। এমন এক যুদ্ধ, যেটিতে আমরা পরাজিত হচ্ছি। এমনকি আমরা এই যুদ্ধে জেতার সুযোগ হাতছাড়া করব, যদি আমরা জনতার মতামতকে একটা সান্তনা প্রদান করি এবং বালিতে মুখ গুঁজে থাকা উটপাখির মত কোন কার্যক্রম পরিচালনা করি, যা হয়ত শান্তি প্রদানকারী বিষয় কিন্তু এক মিথ্যা এক প্রয়াস ।

মাদক পাচারকারীরা গোষ্ঠী ইন্টারনেট ব্যবহারে দক্ষ হয়ে উঠছে এবং তাদের অনেকে এখন অনলাইনে তাদের নিজস্ব গণসংযোগ সাধন করছে। এর একটি উর্বর ক্ষেত্র হচ্ছে ইউটিউব.কম। যেমন এই পাঠক এটি “লাস্ট অফ দি ডোডোস” ব্লগে পাঠিয়েছে। ডোডোস ইউটিউব চ্যানেল পর্যালোচনা করেছে (যা এই মূহূর্তে নিষিদ্ধ করে রাখা হয়েছে), যাকে বলা হচ্ছে গাল্ফ কার্টেল (মেক্সিকোর একদল মাদক পাচারকারী গোষ্ঠী) নিজস্ব চ্যানেল। যেখানে তারা বিরোধী বিরোধী জেটা দলের কারো পরিচয় জেনে থাকে তাহলে তা তুলে ধরার এবং একটি শান্তিপূর্ণ মেক্সিকো গড়ার আহ্বান জানাচ্ছে:

Un ejercicio de relaciones públicas perverso, que muestra la incapacidad del gobierno federal para llevar una guerra de amplio espectro que incluya el manejo de la opinión pública.

গণ সংযোগের ক্ষেত্রে একটি বিপরীত অনুশীলন প্রদর্শন করে যে বিশাল এক যুদ্ধের ক্ষেত্রে মুখোমুখি হবার ব্যাপারে কেন্দ্রীয় সরকারে অদক্ষ, যার মধ্যে রয়েছে গণমতকে নিজের পক্ষে নিয়ে আসা।

ইনফরমেসিওন সিভিকা ব্লগে, ডেভিড সাসাকি মেক্সিকোর অনলাইন ভিডিও দৃশ্যের ভালো, খারাপ এবং মন্দ দিক নিয়ে লেখেন ( দি গুড, ব্যাড এন্ড আগলি)। নারকো ভিডিওর (মাদক পাচারকারী ও তাদের কর্মকাণ্ড নিয়ে তৈরি করা ভিডিও) বিষয়ে বলা যায়, সেখানে মাদক পাচারকারী দলগুলো খুন, প্রহার, অত্যাচার, এবং স্বীকারোক্তির ভিডিও পোস্ট করে, এই বিষয়ে ডেভিড মিকা রোজেনবার্গের কথা উল্লেখ করে লেখেন:

নামছাড়া পোস্ট করা এই ভিডিওগুলো অপরাধীদের ধরার ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় পুলিশের খুব সামান্য কাজে লাগে, কিন্তু মারিয়া গুয়াদালুপ লিসেয়ার মতে এগুলো কেবল সংঘর্ষের এক চক্র তৈরি করছে। মারিয়া গুয়াদালুপ লিসিয়া নামক ভদ্রলোক বাজা ক্যালিফোর্নিয়ার বিচার বিভাগের প্রধান। লিসেয়া বলেন, নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার এবং প্রচার মাধ্যমে সংঘর্ষ একটি চক্রের এক অংশ, যার মধ্যে ধাক্কা দেবার মত হামলাগুলো একই ভাবে অনুকরণ করে খুন করার (কপিক্যাট) এক উৎসাহজনক মাধ্যম। রোজেনবার্গ লিখেছে।

তবে কেবল মাত্র যে মাদক পাচারকারী দলের সদস্য বা সমর্থকরাই এই সমস্ত সংঘর্ষের ভিডিও সরবরাহ করছে না: নাগরিকরাও এ ধরনের ছবি এবং ভিডিও পোস্ট করছে যা মাদক পাচারকারী গোষ্ঠীর দ্বন্দ্বের শিকার ব্যক্তি। এইসব বিচিত্র রক্তাক্ত উপাদানের ভিডিও পোস্ট করার কারণ অনেকে এগুলো অনেক বেশি পছন্দ করছে, অন্যরা মনে করছে যদি গণ মাধ্যম জনতাকে এই সব বিষয়ে কোন কিছু না জানায়, তাহলে তারাই তা জানাবে, কাজেই এই সমস্ত কর্মকাণ্ড এড়িয়ে যেতে পারে না। এই তথ্য জানানোর জন্য বেশ কিছু ওয়েবসাইট প্রতিষ্ঠা করা এই সমস্ত তথ্য প্রদর্শন করার জন্য যার মধ্যে অর্ন্তভুক্ত সেই সমস্ত এলাকা যেখানে লোকজন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের বিষয় জানতে পারে, বিপজ্জনক শহরগুলো সম্বন্ধে আলোচনা করতে পারে, সংঘর্ষের উত্থান এবং কি ভাবে মাদক পাচারকারী গোষ্ঠীগুলো পরিচালিত হয় সে সম্বন্ধে জানতে পারে।

যখন নাগরিকরা সেই ভূমিকা গ্রহণ করছে যা এর আগে গণ মাধ্যম পালন করছিল, তখন একই প্রশ্ন উত্থাপন করা হয়েছে, অনেক শহরে যা ঘটছে সেই সংঘর্ষের বিষয় প্রকাশ করা কি ক্ষতিকর, নাকি চুপ থাকা বেশি ক্ষতিকর?

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .