বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

কেনিয়ার সাম্প্রতিক গণভোট নিয়ে টুইটার বার্তা

কেনিয়ানরা আজ (৪ঠা আগস্ট ২০১০) নতুন সংবিধানের জন্যে গণভোটে অংশ নিচ্ছে। আজকে আগের এক পোষ্টে আমরা এই ঐতিহাসিক ঘটনা নিয়ে সাম্প্রতিক খবর পরিবেশন করা বিভিন্ন ওয়েবসাইটকে তুলে ধরেছি। কেনিয়ার টুইটার ব্যবহারকারীরা গণভোট সম্বন্ধে বিভিন্ন টুইট বার্তা প্রকাশে ব্যস্ত ছিলেন এই সব হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে: #উচাগুজি, #কেনিয়াডিসাইডস, #রেফারেন্ডাম এবং #কুয়েনসিরিয়াস (সোয়াহিলি ভাষায়- মনযোগী হোন)।

#উচাগুজি ট্যাগ ব্যবহার করে করা টুইট বার্তাগুলোর কিছু উদাহরণ:

টেগান বুকস্কি রিপোর্ট করছেন:

একটি #উচাগুজি এসএমএস রিপোর্ট: “কাবেতে ভোটদান কেন্দ্রে এক মহিলার প্রসব যন্ত্রণা শুরু হয়। ভোটাররা এই নবজাতককে ‘রেড ওয়াফুলা গ্রীন’ নাম দেয়।” #কেনিয়াডিসাইডস

ডিজেএক্সপেক্ট এর একটি অনুরোধ আছে।

অনুগ্রহ করে এটি রিটুইট করেন। আমার একজন চিত্রশিল্পী দরকার যিনি সংবিধানের ভোটের দিনে সবার মুখে মুখে ফেরা নবজাতক ‘রেড ওয়াফুলা গ্রীন’ কে আঁকবে একটি শান্তির প্রতীক ছুড়ে মারা অবস্থায়।

লোকোকোকোমোকো টুইট করেছে:

ডনহোল্ম এ কেনিয়ানরা এখনও ভোট দিচ্ছে যদিও ভোট ইতোমধ্যে শেষ হয়ে যাবার কথা (পূর্বের একটি বিভ্রান্তি অনুসারে)।

রজারও_২০২ ভোট কেন্দ্রগুলো বন্ধ হবার খবর দিয়েছে:

ভোটদান বন্ধ হয়েছে, এখন ভোট গণনা হচ্ছে।

#কেনিয়াডিসাইডস হ্যাশট্যাগ এর টুইট বার্তাগুলো:

ওয়েন্ডোহ:

নারোকের এক মহিলা বলেছেন তিনি ভোট দিচ্ছেন কারণ সরকার তা করতে বলেছে, এবং এর জন্যে (সংবিধান) পড়ার দরকার নেই তার!

সেমহার:

রিটুইট @ডাব্লিউএসজেআফ্রিকা: কেনিয়ায় ভোটের চমৎকার সব ছবি: http://bit.ly/dnCeHr

লোকোকোকোমোকো:

সারা দেশ জুড়ে ভোট গণনা শুরু হয়েছে এবং আধ ঘণ্টার মধ্যেই একটি প্রাথমিক গণনার ফলাফল প্রকাশ করা হচ্ছে।

ওয়ারোদ:

@নিম্মোহ ভোটদান বিকেল ৫টায় শেষ হয়েছে। এটি শান্তিপূর্ণ ছিল। আমি কোন নিরাপত্তা বিঘ্নকারী ঘটনা শুনি নি। এটি বেশ দ্রুতই শেষ হয়েছে। আমি পাঁচ মিনিটেই ভোট দিয়ে বের হয়েছি।

রম্বকিনস:

কিতুই শহরের কিতুই কারাগারের কেন্দ্রে প্রথম ভোট গণনা শেষ হয়। ৩৮ জন নিবন্ধিত ভোটারের মধ্যে হ্যা ভোট ২১টি এবং না ভোট ৭টি পরেছে (সূত্র: ন্যাশনমোবাইল)।

কেনিয়ার টুইটার ব্যবহারকারীরা উচাগুজি ওয়েবসাইটে তাদের বার্তা পাঠাতে সক্ষম হয়েছে #উচাগুজি আর #কেনিয়াডিসাইডস হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে। উচাগুজি ওয়েবসাইটটি গণভোট সংক্রান্ত ঘটনাগুলো পর্যবেক্ষণ করছে।

আপনারা আরও খবরের জন্যে কেনিয়ার সাম্প্রতিক গণভোট নিয়ে ই-হাবের লাইভ স্ট্রিমিং দেখতে পারেন।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .