বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

মিশর কি ডুবে যাচ্ছে?

রাষ্ট্রপতি হোসনি মুবারক পরবর্তী সময়ে মিশর এবং তার ভবিষ্যৎ কি হতে যাচ্ছে তা নিয়ে ইকোনোমিস্ট নামের পত্রিকাটি মিশরের উপর একটি বিশেষ সংবাদ প্রকাশ করেছে। মিশরের রাষ্ট্রপতি মুবারক ইতোমধ্যে ২১ শতকের মধ্যপ্রাচ্যের দুর্বল মানুষ হিসেবে চিহ্নিত হয়েছেন।

জেইনোবিয়া নামক ভদ্রমহিলা মনের মধ্যে ধাক্কা দেয় এমন এক অনুচ্ছেদ দিয়ে তার পোস্ট শুরু করেছে।.

জেইনোবিয়া তার লেখা এই বলে শুরু করেছেন::

এই সংবাদ একটি স্তরে বেশ কৌতুহল জনক, আমি বিশ্বাস করি সামনের মাসে এই পত্রিকাটিকে মিশরের পত্রিকার দোকানগুলোতে দেখতে পাব না, এর জন্য এই পত্রিকার প্রচ্ছদটিকে ধন্যবাদ।

তিনি মিশরের দুটি সংবাদপত্রের লেখা এখানে যুক্ত করেছেন:

ইয়ুম৭ এবং আল শোরোউক অনলাইন মুবারকের প্রতীকী চিত্রটি বাদ দিয়েই এই সংবাদের একটি সারাংশ প্রকাশ করেছে। দেখা যাচ্ছে কামরার মধ্যে একটা হাতি রয়েছে, সঠিকভাবে বললে এক বিশাল মৃতপ্রায় হাতি এবং মনে হচ্ছে শাসকরা এটা স্বীকার করতে চাচ্ছে না। এটা আপনাকে বিস্মিত করবে যে, এটা কি ঔদ্ধত্যের কারণে বাস্তবতা এড়িয়ে যাওয়া, নাকি আদতে তা তিক্ত বাস্তবতাকে স্বীকার করে নেওয়ার ভয়; শেষ সময় এত কাছে ঘনিয়ে এসেছে এবং সময় তার পুত্রের অনুকুল নয়, যার জন্য এই মূহূর্তে অনেক বেশি পরিকল্পনা করা হচ্ছে।

মোহালি একই কথা বলছে এবং তার বিভ্রান্তির বিষয়টি নিয়ে ব্লগ লিখেছে:

৩০ বছর ধরে চলতে থাকা এই ব্যবস্থার পরে মিশর কি বালিতে ডুবে, যাচ্ছে নাকি ডুবে যাওয়া বালির নীচ থেকে দেশটি আবার জেগে উঠছে?! আমরা কি বিচ্ছিন্ন এক উপনিবেশে বাস করছি, নাকি আমরা একটা দলে এক হয়ে কাজ করছি?!

কল্পনা করুন মিশর ইকোনমিস্ট-এর মত একটা পত্রিকার প্রচ্ছদ কাহিনী হয়েছে। এটি এমন এক প্রবন্ধ যা পাঠের যোগ্য।

দি আরাবিস্ট-এ ইসান্ডার এল আমারানিও এই প্রবন্ধের ওজন পরিমাপ করার চেষ্টা করছে::

এ সপ্তাহের ইকোনমিস্ট পত্রিকা মিশরের উপর বিশেষ একটি লেখা প্রকাশ করেছে যা পড়ার যোগ্য। এই বিষয়টি বিবেচনা রাখা উচিত ইকোনমিস্ট এই দেশের পরিস্থিতির উপর প্রতি দশকে একটা করে মূল্যায়ন করে। এটা সম্ভবত মুবারকের উপর এ ধরনের তৃতীয় মূল্যায়ন। আমি বিস্মিত যে এটা পূর্বের প্রবন্ধের তুলনায় কেমন হবে।

এই প্রবন্ধের সার্বিক স্বর অনেকটা সতর্ক আশাবাদ এবং মিশরের কিছু ব্যর্থতার কারণে দু:খ প্রকাশের মত- এর দুর্নীতিগ্রস্ত পুলিশ ব্যবস্থা, এর শিক্ষা পদ্ধতি-এ সব নিয়ে দুঃখ প্রকাশ। বেদনা যখন আমাদের, এ রকম এক আবেগে যা দেশটির উপর শাসন করে এবং কিছু সতর্ক ব্যক্তি হিসেব করে দেখেছে যে, মিশর ভেঙ্গে পড়ার দ্বারপ্রান্তে এসে দাঁড়িয়েছে, এই সংবাদটি জানানো অনেকটা তাজা হাওয়ার মত যে, মুবারক শাসনকাল সামাজিক এবং অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে নাটকীয় কিছু পরিবর্তন সাধন করেছে। এই সমস্ত পরিবর্তন কি সমৃদ্ধ এক পরিবর্তনে রূপান্তরিত হবে, অথবা হবে না, অথবা সেগুলো কি এমন এক বিশ্বের অপরিহার্য পরিবর্তন ছিল যা মিশরকে প্রভাবিত করেছে তার নিজস্ব প্রভাবের চেয়ে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .